রবিবার, ১৮ই আগস্ট, ২০১৯ ইং

চৌদ্দগ্রামে মুক্তিযোদ্ধার বাড়িতে চুরি, ৩ লক্ষ টাকার মালামাল লুট

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
সেপ্টেম্বর ৬, ২০১৮
news-image

স্টাফ রিপোর্টারঃ
কুমিল্লায় এক মুক্তিযোদ্ধার গ্রামের বাড়ীতে দুধর্ষ চুরির ঘটনা ঘটেছে। সংঘবদ্ধ চোর চক্রের সদস্যরা গভীর রাতে ঘরের সিঁদ কেটে সাড়ে পাঁচ ভরি স্বর্ণালঙ্কারসহ তিন লক্ষাধিক টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে যায় বলে জানা গেছে।

জেলার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার কনকাপৈত ইউনিয়নের করপাটি গ্রামে মুক্তিযোদ্ধা মৃত: রুহুল আমিনের বাড়ীতে এ ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, মঙ্গলবার দিনগত রাত আনুমানিক ২ টার দিকে চোরের দল বাড়ির বাহিরে জ্বলন্ত বৈদ্যুতিক লাইটগুলো খুলে অত্যন্ত সুকৌশলে সিঁদ কেটে ঘরে প্রবেশ করে। পরে মুক্তিযোদ্ধা রুহুল আমিনের ছেলে মালয়েশিয়া প্রবাসী যোবায়ের হোসেনের ঘুমন্ত স্ত্রী’র বালিশের পাশ থেকে ২টি দামি স্মার্ট ফোনসেট ও চাবি নিয়ে আলমারি খুলে সেখানে রক্ষিত সাড়ে ৪ ভরি স্বর্ণালঙ্কার, নগদ ৫০ হাহার টাকা ও সর্বশেষ তার গলায় থাকা ১ ভরি ওজনের নেকলেস টান দিয়ে নিয়ে আগে থেকে খুলে রাখা দরজা দিয়ে দৌড়ে পালিয়ে যায়। তার চিৎকারে বাড়ির আশ-পাশের অনেক লোকজন এসে জড়ো হয়। চোরেরা পালিয়ে যাওয়ার সময় ঘটনাস্থলে একটি গামছা, মাটি খোঁড়ার কাজে ব্যবহৃত একটি রড, লাইটার ও সিগারেট ফেলে রেখে যায়। সরেজমিনে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, ঘরের ভেতরের দিকে প্রাচীর ঘেঁষে আলমারি, ওয়ারড্রপ, ফ্রিজ ও আলনা সারিবদ্ধভাবে রাখার কারনে বাইরে থেকে ঢোকার তেমন কোন ফাঁকা জায়গা নেই। তবে এগুলোর মাঝে সামান্য একটু ফাঁকা জায়গা দিয়ে অত্যন্ত সূক্ষ্মভাবে ভেতর-বাহির পরিমাপ করে বাইরে থেকে সিঁদ কাটা হয়েছে, যা আগে এ কক্ষে প্রবেশ করেনি বা অপরিচিত কারো পক্ষে একেবারেই অসম্ভব। আর তাতে প্রতীয়মান হয়, চোরের দল বা এর সাথে জড়িত লোকজন পরিচিতজনদের কেউ। পাশের ঘরে থাকা ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী আমজাদ হোসেন বলেন, চিৎকার শুনে আমি ও আমার ভাতিজারা ঘর থেকে দ্রুত বের হয়ে চোরের পেছন পেছন ধাওয়া করি কিন্তু কোন কিছু বুঝে ওঠার আগেই রাতের অন্ধকারে তারা উধাও হয়ে যায়। সারারাত ধরে আমরা চতুর্দিকে খোঁজাখুঁজি করি। তবে আশা করি আমরা এটা উদঘাটন করতে সক্ষম হবো। উল্লেখ্য, মৃত: রুহুল আমিন দেশের একজন প্রথিতযশা মুক্তিযোদ্ধা ও সেনা কর্মকর্তা ছিলেন। তিনি এলাকার অনেক সামাজিক উন্নয়ন কর্মকান্ডের উদ্যোক্তা ছিলেন।

তার ছেলে মোশাররফ হোসাইন ঢাকায় কর্মরত একজন সাংবাদিক নেতা এবং আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল, লায়ন্স ক্লাব, সুজন ও মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম’৭১ সহ বিভিন্ন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক সংস্থার সাথে সম্পৃক্ত আছেন। জানা যায়, গত কিছুদিন ধরে ধারাবাহিকভাবে এ বাড়ি তথা এলাকায় মোবাইল ফোন, মোটর সাইকেল, স্বর্ণালঙ্কার, টিভি-ফ্রিজ, মোটর, গরু-ছাগল, হাঁস-মুরগীসহ বেশকিছু ধারাবাহিক দুর্ধষ চুরির ঘটনা ঘটছে। এর সাথে এলাকার কিছু চিহ্নিত চোর ও তাদের দোসররা জড়িত বলে ধারণা করছেন এলাকাবাসী। তাদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ এলাকার সাধারণ জনগণ। তারা এ ব্যাপারে প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। প্রবাসী নির্ভর এ এলাকায় দেশের অর্থনীতির অন্যতম চালিকাশক্তি তাদের পাঠানো কষ্টার্জিত বৈদেশিক মুদ্রায় কেনা অথবা সেখান থেকে পাঠানো এসব পণ্য লাগামহীনভাবে চুরির ঘটনায় হতাশা ও ক্ষোভ বাড়ছে এলাকায়, পাশাপাশি নির্ঘুম রাত ও আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন অনেকে। মুক্তিযোদ্ধার ঘরে চুরির বিষয়ে ভিকটিম পরিবারের পক্ষ থেকে চৌদ্দগ্রাম থানায় বুধবার একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে বলে জানা যায়।

এ অভিযোগের বিষয়ে তদন্তকারি কর্মকর্তা চৌদ্দগ্রাম থানার উপ-পরিদর্শক নুরুজ্জামানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এ বিষয়ে তদন্ত চলছে, তদন্ত শেষে দায়িদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আর পড়তে পারেন