মঙ্গলবার, ১৫ই জুলাই, ২০১৯ ইং

৯৯৯: সেবা পাওয়ার অন্যতম দ্বার

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ডিসেম্বর ২৯, ২০১৭
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

২৩ ডিসেম্বর দিবাগত রাত প্রায় ২টা।  হঠাৎ শ্বাসকষ্টে ভোগা বোন রুবি আক্তারকে নিয়ে কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যান ভাই নুর নবী সুমন। মধ্যরাতে গ্রামের বাড়ি হাসানপুর থেকে প্রায় ৫ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে হাসপাতালে পৌঁছে দেখেন হাসপাতালের দরজা বন্ধ। অনেক ডাকাডাকির পরও তিনি হাসপাতালের কাউকে খুঁজে পাননি। তখন অসুস্থ বোনকে কোথায় নেবেন, এই ভেবে যখন দিশেহারা, তখনই তার মনে পড়ে-ন্যাশনাল ইমার্জেন্সি সার্ভিস-৯৯৯-এর কথা। আর তখনই এই নম্বরে কল দেন নূর নবী। ফোন করার ২০ মিনিটের মধ্যেই ঘটনাস্থলে পুলিশ সদস্যরা হাজির হন। রোগীর চিকিৎসার জন্য হাসপাতালের দরজা খোলা থেকে শুরু করে ডাক্তার ডাকাসহ প্রয়োজনীয় কাজগুলো করে দেন তারা। এভাবে মোবাইল ফোনে বাংলা ট্রিবিউনের কাছে ন্যাশনাল ইমার্জেন্সি সার্ভিস-৯৯৯-এ কল দিয়ে সেবা পাওয়ার অভিজ্ঞতার বর্ণনা দেন নূর নবী।

বোনের চিকিৎসা প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে নূর নবী বলেন, ‘শনিবার (২৩ ডিসেম্বর) দিবাগত রাতে আমার বোন রুবি আক্তার শ্বাসকষ্টজনিত রোগে অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাকে সিএনজিতে করে নাঙ্গলকোট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে যাই। সেখানে দেখি, জরুরি বিভাগের দরজা বন্ধ। হাসপাতালের কেউ নেই। অনেক ডাকাডাকি করেও সাড়া শব্দ মিলছে না। তখন কোনও উপায় না দেখে হাসপাতালের সামনে থেকেই রাত ২টা ৩১ মিনিটে ন্যাশনাল ইমার্জেন্সি সার্ভিস-৯৯৯-এ কল দিয়ে বিষয়টি জানাই। ফোন দেওয়ার ২০ মিনিটের মাথায় হাসপাতালের সামনে হাজির হন থানা পুলিশের সদস্যরা।’ তিনি আরও বলেন, শুধু তাই নয়, ৯৯৯ সেন্টার থেকে পরে একাধিকবার কল দিয়ে আমাদের খোঁজ নিয়েছেন পুলিশ সদস্যরা। তারা জানতে চেয়েছেন, আমরা ঠিকমতো সেবা পেয়েছি কিনা।’

নূর নবী আরও বলেন, ‘ফেসবুক থেকেই ৯৯৯-এর কথা জেনেছিলাম। কিন্তু বিশ্বাস করতে পারছিলাম না, এত দ্রুত এমন সেবা পাবো।’

ন্যাশনাল ইমার্জেন্সি সার্ভিস কার্যালয়ে কর্তব্যরত সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) মিরাজুর রহমান পাটোয়ারী  বলেন, ‘বর্তমানে ৩৩টি কলার টেকার রয়েছে। মানুষের ব্যাপক সাড়া পড়েছে। সেবা নেওয়ার পাশাপাশি অনেকেই তথ্য নিতেও কল করছেন। পাশাপাশি বিরক্তিকর কলও আসে। এতে যারা জরুরি প্রয়োজনে কল করেন, সেই সেবাপ্রার্থীদের কখনও কখনও অপেক্ষায় থাকতে হয়।’

উল্লেখ্য, গত ১২ ডিসেম্বর ফায়ার সার্ভিস, অ্যাম্বুলেন্স ও জরুরি পুলিশি সেবা নিয়ে ন্যাশনাল ইমার্জেন্সি সার্ভিস-৯৯৯-এর শুরু হয়। এই সেবাটি সম্পূর্ণ ফ্রি, এ নম্বরে কল করলে কোনও সার্ভিস চার্জ কাটা হয় না। গত ১২ ডিসেম্বর থেকে ২৫ ডিসেম্বর দুপুর ২ টা পর্যন্ত ২ লাখ ৫১ হাজার ১৭২টি কলে এসেছে। এরমধ্যে ৮৩৯টি কলে সেবা দেওয়া হয়েছে। এছাড়া, বিরক্তিকর কল ছিল ৪২ হাজার ৬৬৩টি, ব্ল্যাংক ১ লাখ ৪৪ হাজার ৯৪৮টি, মিসড কল ২৪ হাজার ৮৬৮টি। শিশুদের কল ছিল ১ হাজার ৪০৫টি। নারীদের ২৫৬টি, আগুনজনিত ৭৭টি, তথ্য অনুন্ধানের ৩৩ হাজার ৫৯৮টি, পুলিশের বিভাগীয় ২১৪টি এবং অন্যান্য কল ছিল ২৩০৪টি।

সূত্র- বা.ট্রি

আর পড়তে পারেন