শুক্রবার, ২৩শে আগস্ট, ২০১৯ ইং

নির্বাকদের দলে থাকতে চাই না

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ২৫, ২০১৭
news-image

এপি সুমনঃ

অধিকার হলো সমাজ ও রাষ্ট্র কর্তৃক স্বীকৃত সুযোগ-সুবিধা যা ভোগের মাধ্যমে নাগরিকের ব্যক্তিত্বের বিকাশ ঘটে। শিশুদের অধিকারগুলি কি ? প্রতিটি শিশুর আছে সঠিক পরিচর্যা ও নিরাপত্তা পাবার অধিকার। তার জন্য অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, চিকিৎসা, শিক্ষার নিশ্চয়তা দিতে হবে এবং রাষ্ট্র তার জন্য বয়স ও সময়োপযোগী আইন করবে যাতে তার কোন অপরাধমূলক কর্মকান্ডের জন্য সে অনুপযুক্ত সাজা না পায়। তাকে কোনভাবে শারিরীক, মানসিক বা অন্য কোন রকম নির্যাতনের শিকার হতে দেয়া যাবে না এবং তাকে স্বাধীন ও মুক্ত পরিবেশে বড় হতে দিতে হবে। তার জন্ম নিবন্ধন, মা বাবার সাথে থাকার সুব্যবস্থা, নিজ ধর্ম বেছে নেয়ার স্বাধীনতাসহ নানা রকম বিষয়াবলি আছে যা শিশুর অধিকারের অন্তর্গত।

সুবিধা মানে কী? সুবিধা নানা রকম হতে পারে কিন্তু অধিকার নানা রকম হয় না। যেমন স্কুল ভ্যান/বাস একটি সুবিধা। এটি সব স্কুলে নাও থাকতে পারে। বৈদ্যুতিক পাখা/জেনারেটর/এয়ার কন্ডিশন একটি সুবিধা। এটিও সব স্কুলে নাও থাকতে পারে। কিন্তু শিক্ষক, বø্যাকবোর্ড, চক, ডাস্টার, টুল, টেবিল এসব সহ প্রয়োজনীয় শিক্ষা উপকরণ থাকতেই হবে। কারণ এই বিষয়গুলো অধিকার। যে শিশু অধিকার পায় না, তার সুবিধা পাওয়া তো দ্বিতীয় পর্যায়ের বিষয়। সুবিধা বঞ্চিত শিশু এই শব্দটির বদলে আমি বেশী স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি অধিকারবঞ্চিত শিশু এই শব্দটিতে। আমাদের সমাজে আমরা নানাভাবে অধিকার বঞ্চিত। এই বঞ্চনা আমাদের গা সওয়া হয়ে গেছে। ফলে আমরা এখন আর অধিকারহীনতা নিয়ে মাথা ঘামাই না। আমাদের মস্তিষ্কে সেনসিটাইজেশন নামে একটি প্রক্রিয়া আছে, যার মাধ্যমে একটি ঘটনা বারবার দেখতে বা অনুভব করতে করতে সেই নির্দ্দিষ্ট বিষয়টিতে আমাদের কোন প্রতিক্রিয়া হয় না। যেমন রাস্তাতে পঙ্গু মানুষ দেখতে দেখতে আমরা অভ্যস্ত হয়ে গেছি। অথচ এমন মানুষ কোন উন্নত দেশে রাস্তায় দেখা গেলে তাদের দেশের¬ নাগরিকেরা কান্নাকাটি করে অসুস্থ হয়ে পড়বেন কারণ সেখানে এটা রোজ দেখা যায় না। আমরা আমাদের দেশে এসব দেখে দেখে এতোটাই অভ্যস্ত হয়ে পড়েছি যে, এখন রাস্তায় বিকলাঙ্গ ভিখারী না দেখলেই আমরা অবাক হয়ে যাই!

এবার আমাদের দেশের দিকে তাকাই। প্রতিটি শিশুর জন্য নিরাপদ জন্মগ্রহণের ব্যবস্থা আমরা আজো করতে পারি নাই। তাদের জন্য পুষ্টি নিশ্চিত করতে পারি নাই। বিশুদ্ধ আর্সেনিকমুক্ত পানির ব্যবস্থা করতে পারি নাই। তাদের এখনো শ্রম দিতে হয় মাঠে ও কারখানায়। তাদের জন্য শিক্ষার সুব্যবস্থা করতে পারি নাই, যদিও গাল ভরে বিনামূল্যে প্রাথমিক শিক্ষা, নারীর জন্য বিনা বেতনে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষার কথা আমরা বলি। প্রকৃত চিত্র হচ্ছে দেশে প্রাথমিক বিদ্যালয় গুলিতে শিক্ষক নাই, স্কুলঘর নাই, বসার জায়গা নাই এবং এমনও স্কুল আছে, যেখানে পালাক্রমে একেক ক্লাসের ছাত্ররা একেকদিন বেঞ্চ ব্যবহার করতে পারে, কারণ তাদের জন্য বেঞ্চের সংখ্যা অপ্রতুল। অথচ এই দেশে এমন স্কুল আছে যার মাসিক বেতন লক্ষ টাকার কাছাকাছি, সব ক্লাসরুমে এয়ারকুলার আছে, তারা শিক্ষা সফরে সুইজারল্যান্ড যায় এবং প্লে গ্রæপের শিশুদের খেলার জন্য জীবানুমুক্ত মাটি ইউরোপ থেকে আমদানি করে নিয়ে আসে। এমন স্কুলে আমাদের দেশের বড় বড় মানুষদের ছেলেমেয়েরা পড়ে, যাদের বাবা মা দেশের শিক্ষা, সংস্কৃতি, ব্যবসাসহ বড় বড় বিষয়ে সিদ্ধান্ত দিয়ে থাকে।

অধিকার বঞ্চিত শিশুদের মাঝে ঈদে নতুন জামা দিয়ে ভাবি সারা বছরের দায়িত্ব শেষ। আমাদের দেশে অধিকার বঞ্চিত শিশুর জন্য বিশেষ কোন সুবিধা কিন্তু আমরা দিতে পারি নাই। পথশিশু, পথকলি নাকি টোকাই এই নামকরণ বিতর্কে ব্যস্ত থেকেছি কিন্তু তাদের অবস্থার কোন পরিবর্তন করি নাই। হাসপাতালে দরিদ্রদের ফ্রি চিকিৎসার জন্য অস্থির হয়ে যাই আমরা। অথচ নামকরা স্কুলগুলিতে কেন প্রতি ক্লাসে এরকম হতদরিদ্র অন্তত দুজনকে পড়ানোর চেষ্টা করি না? কুমিল্লা শহরে এমন স্কুল আছে যেখানে হাজার টাকার উপর বেতন নেয়া হয়। সামাজিক দায়িত্বের অংশ হিসেবে তারা কি পারেন না অন্তত দুটি করে, দশটি শ্রেণিতে বিশজন শিশুকে পড়াতে?

স্বাভাবিক শিশুদের বেলাতেই আমরা এমন নির্দয়। যেসব শিশু প্রতিবন্ধি, অটিস্টিক, তাদের জন্য আমাদের চিন্তাতেই কোন স্থান নেই। সমগ্র দেশে এতো সুপার মার্কেট, সেগুলোতে নেই কোন হুইল চেয়ার বা অন্ধদের জন্য সুব্যবস্থা। আমাদের কোন পাবলিক প্লেসে এমন কোন বাথরুম নেই যেখানে মায়েরা শিশুর ন্যাপি বা ডায়পার বদলাতে পারেন। অটিস্টিক বাচ্চাদের জন্য ভালো স্কুল নেই। সরকারি যদি ব্যয় বরাদ্দ থাকেও, এর সঠিক ব্যবহার হচ্ছে না।

এসবের সমাধান কি? আমরা ভাবি সমাধান কেবল টাকা দিয়ে অর্জন করা সম্ভব। প্রথমে যা চাই সেটি হলো স্বদিচ্ছা। তারপর চাই স্বতস্ফুর্ত অংশগ্রহন। সারা দেশে যতগুলি অভিজাত স্কুল আছে তারা সবাই ২০ জন করে ছাত্র বিনা বেতনে পড়ালে সংখ্যাটি কয়েক হাজার ছাড়িয়ে যায়। যদি ঠিক করি প্রতিটি স্বচ্ছল পরিবার অন্তত একজন অধিকার বঞ্চিত শিশুর দায়িত্ব নেব, তাহলে অন্তত ১০ লক্ষ শিশুর সংস্থান হয়ে যায়। (আমার জানা মতে কুমিল্লায় অন্বেষণ এবং অবকাশ নামক ২টি সংগঠন এমন দায়িত্ব পালন করছে। যাদের বেশির ভাগ সদস্য কলেজ, ভার্সিটির শিক্ষার্থী)। সামাজিক উদ্যোগ ছাড়া কখনো অধিকার অর্জন করা যায় না। অধিকার কোন চাপিয়ে দেয়া বা বইতে লেখা দূর্বোধ্য শব্দাবলী নয়। আচরণের মধ্য দিয়েই সমাজে অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে হয়।

১৭ কোটি মানুষের এই দেশটিকে বদলে দিতে চাই শুধুমাত্র সংকল্প। শিশুদের অধিকার অর্জনের জন্য সভা সমিতি সেমিনার শুধু নয়, চাই উদ্যোগ। ছোটবেলায় মা যখন চুল আচড়ে দেন, তখন থুতনিটা জোরে ধরে নেন যাতে আমরা মাথা না নাড়ি। সমাজের সেই থুতনী ধরার মানুষ যারা, তারা সমাজের মাথা, বুদ্ধিজীবি, নেতা, রাজনীতিবিদ। তারা এখন আর সে কাজটি করছেন না। ফলে সমাজের মাথা নড়ছে প্রবল অনাচারে। কাউকে সেই কাজটি করতেই হবে।

আমরা না পারলে কি হবে, আগামী দিনের মানুষেরা এ কাজটি করতে প্রস্তুত এখন। আমাদের চুপ করে থাকার কৈফিয়ত দিতে হবে তাদের কাছে। আমরা যদি কথা না বলি, তবে একদিন যখন আগামী প্রজন্ম প্রশ্ন করবে কেন চুপ করেছিলাম আমরা, তখন মাথা নিচু করে আবারো চুপ করে থাকতে হবে আমাদের। আমি সেই চুপকার নির্বাকদের দলে থাকতে চাই না। আর চাইনা বলেই আমি অন্বেষণ নামক একটি সামাজিক সংগঠনের একজন হয়ে গরীব অসহায় অধিকার বঞ্চিত শিশুদের পাশে থাকতে চাইছি আমৃত্যু ।

লেখক- এপি সুমন
উপদেষ্টা, অন্বেষণ ।