মঙ্গলবার, ২০শে আগস্ট, ২০১৯ ইং

মহাসড়কের কুমিল্লার অংশে যানজট নেই, মেঘনা সেতু ও গজারিয়াতে অব্যাহত

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ২৬, ২০১৭
news-image

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু ঃ
ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লার ৯৬ কিঃমিঃ অংশে যানজট নিরসন হলেও শনিবার সকাল পর্যন্ত মেঘনা সেতু , মুন্সিগঞ্জের গজারিয়া ও সোনারগাঁও এলাকায় যানজট অব্যাহত রয়েছে। ফলে ওই সড়কের প্রায় ১৫ কি.মি. অংশে যানবাহন আটকে আছে। আর যাত্রীদের ভোগান্তি রয়েছে গেছে। ওই ১৫ কি.মি. অংশ অতিক্রম করতে প্রায় ৩/৪ ঘন্টা সময় লাগছে। এ অবস্থা চলতে থাকলে পুনরায় কুমিল্লা অংশে যানজট শুরু হবে।
স্থানীয় সূত্র জানায়, মঙ্গলবার গোমতি সেতুতে ট্রাক বিকল হওয়ার পর থেকেই যানজট শুরু হয়। পরবর্তীতে মালবাহি যানবাহনের সংখ্যা বৃদ্ধি ও দাউদকান্দি টোলপ্লাজায় টোল আদায়ে ধীর গতি, অতিরিক্ত অর্থ আদায় করতে গিয়ে টোল আদায়কারিদের সাথে চালক-হেলপারদের কথা কাটাকাটাকাটিতে শুক্রবার সন্ধ্যা পর্যন্ত কুমিল্লার অংশে ৫ থেকে ২০ কি.মি. পর্যন্ত যানজট ছিল। এছাড়া মেঘনা সেতুর টোল প্লাজায় টোল আদায়ের ধীর গতি ও মুন্সিগঞ্জের গজারিয়াতে অব্যাহত যানজটের প্রভাব পড়েছিল কুমিল্লার অংশে। শুক্রবার রাত থেকে শনিবার সকাল ৯ টা পর্যন্ত কুমিল্লার অংশে সম্পূর্ণভাবে যানজটমুক্ত রয়েছে। তবে সকাল ৯ টার পর টোলপ্লাজায় মালবাহি যানবাহনের সংখ্যা বাড়তে শুরু করেছে। টোল আদায়কারিরা টোল আদায় করছে ধীরগতিতে। সকাল সোয়া ১০ টা পর্যন্ত বেশ কিছু যানবাহন জমা হয়েছে দাউদকান্দি টোলপ্লাজায়। তারপরেও যানজটমুক্ত রয়েছে। যদি টোল আদায়কারিরা কৃত্রিম যানজট সৃষ্টি না করে তাহলে কুমিল্লার অংশ যানজটমুক্ত থাকবে।
দাউদকান্দি হাইওয়ে পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ আবুল কালাম আজাদ বলেন, মহাসড়কের কুমিল্লার অংশে যানজট নেই। যান চলাচল স্বাভাবিক। তবে মেঘনা সেতু-গজারিয়াতে যানজট হ্রাস না পেলে কুমিল্লার অংশে যানজট শুরু হতে পারে।
গত বৃহস্পতিবার দুপুরে সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের মেঘনা ও গোমতী সেতুর টোল প্লাজা পরিদর্শনে আসেন। ঈদে ঘর ফেরত যাত্রীদের আতংকিত না হওয়ার পরামর্শ দিলেও গত ৫ দিনে মেঘনা সেতু থেকে গজারিয়া, সোনারগাঁও এলাকায় যানজট নিরসন হয়নি। এ এলাকাগুলোতে ঘন্টার পর ঘন্টা যানবাহন আটকে রয়েছে। যাত্রীরা অসম্ভব ভোগান্তির শিকার হচ্ছে।


শুক্রবার রাতে গজারিয়া এলাকায় যানজটে আটকে থাকা এশিয়া পরিবহনের যাত্রী কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের শিক্ষার্থী পলাশ জানান, গজারিয়া এলাকা পার হতে সময় লেগেছে প্রায় সাড়ে ৩ ঘন্টার ওপরে। মেঘনা সেতুতে ছিলাম দেড় ঘন্টার মত। এই দুটি জায়গা যাত্রীদের জন্য অভিশাপ।


সকাল সোয়া ১০ টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মেঘনা সেতু, গজারিয়া ও সোনারগাঁও এলাকায় যানজট অব্যাহত রয়েছে। থেমে থেমে চলছে যানবাহন।
স্থানীয় সূত্র জানায়, মেঘনা সেতুতে টোল আদায়ে ধীর গতিই এই কৃত্রিম যানজট সৃষ্টির জন্য দায়ী। সোমবার থেকে ঈদে ঘর ফেরত মানুষের যাত্রা শুরু হবে। শুরু হবে কোরবানির পশুবাহী যানবাহনের চলাচল। তখন ভোগান্তি আরো চরম পর্যায়ে পৌছবে। তাই এখনি গোমতি ও মেঘনা সেতুর টোলপ্লাজায় টোল আদায়ে ধীর গতি, অতিরিক্ত টাকা আদায় বন্ধ করতে না পারলে ঈদে ঘর ফেরত মানুষের ভোগান্তি লাঘব সম্ভব হবে না।

আর পড়তে পারেন