বুধবার, ২৫শে জুন, ২০১৯ ইং

ব্রাহ্মণপাড়ায় যৌতুকের নির্যাতন সইতে না পেরে গৃহবধূর আত্নহত্যা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ৩১, ২০১৭
news-image

মোঃ সাইফুল ইসলাম ভূইয়া, ব্রাহ্মণপাড়া ঃ
কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার চান্দলা ইউনিয়নের বলাখাল গ্রামে রোববার (৩০ জুলাই) সন্ধায় যৌতুকের নির্যাতন সইতে না পেরে আছমা আক্তার (২২) নামের এক গৃহবধূ গলায় ফাসঁ লাগিয়ে আত্নহত্যা করেছে। এ ঘটনায় থানায় আত্নহননের মামলা হয়েছে। পুলিশ নিহতের শাশুড়ী হাজেরা বেগমকে রাতেই আটক করা হয়েছে। স্বামী ও শশুর পলাতক।
নিহত আছমা আক্তার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার চান্দলা ইউনিয়নের বলাখাল গ্রামের ফারুক মিয়ার স্ত্রী।

নিহতের পরিবার, পুলিশ, মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে ব্রা‏হ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার কুটি ইউনিয়নের বিলঘর গ্রামের শাহআলম মিয়ার মেয়ে আছমা আক্তারকে তিনবছর আগে পাশ্ববর্তী ব্রা‏হ্মণপাড়া উপজেলার বলাখাল গ্রামের রেনু মিয়ার ছেলে ফারুক মিয়ার সাথে বিয়ে দেন। বিয়েতে ১ লাখ টাকা নগদ ও ৭৫ হাজার টাকার আসবাবপত্র যৌতুক হিসাবে দেয়া হয়েছে। তাদের সংসারে ১৮ মাস বয়সের একটি পুত্র সন্তান রয়েছে। গত এক বছর আগে ফারুক বিদেশ থেকে একেবারে চলে আসে। সেই থেকে শুরু হয় যৌতুকের জন্য স্ত্রীর উপর নির্যাতন। গত তিন মাস আগে আবারও বিদেশ যাওয়ার জন্য ২ লাখ টাকা যৌতুক চায় ফারুক মিয়া ও তাঁর পরিবার। টাকা না দেয়ার তাঁর উপর চলে নির্যাতন। গত ১ সপ্তাহ আগে ৫০ হাজার টাকা আরো যৌতুক দেয় আছমার পরিবার। গত রোববার আরো দেড় লাখ টাকার জন্য চাপ দেয় ফারুক ও তার পরিবারের লোকজন। টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানালে তাকে শারীরিক ভাবে মারধোর করে ফারুক। এক পর্যায়ে আছমা গলায় ফাঁস লাগিয়ে আতœহত্যা করে। রাতে মোবাইল ফোনে ফারুক তার শশুড় বাড়ির লোকজনকে খবর দেয়। রাতেই নিহতের বড় ভাই খোকন মিয়া বাদী হয়ে নিহতের স্বামী ফারুক, তার বাবা রেনু মিয়া, মা হাজেরা বেগম ও দুই ননদসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে আতœহননের মামলা করেছে। রাতেই পুলিশ নিহতের শশুড়ী হাজেরা বেগমকে গ্রেপ্তার করেছে। তাকে গতকাল সোমবার সকালে কুমিল্লা বিচারিক হাকিমের আদালতে পাঠিয়েছে পুলিশ। আদালত তাকে জেলহাজতে প্রেরণ করেছে। এদিকে নিহতের লাশ গতকাল সোমবার সকালে কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠিয়েছে পুলিশ। ময়নাতদন্ত শেষে গতকাল সোমবার বিকালে নিহতের ভাই খোকন মিয়ার কাছে লাশ হস্তান্তর করেছে পুলিশ। নিহতের ভাই খোকন মিয়া বলেন বিদেশ থেকে এসেই আবারও দুই লাখ টাকা যৌতুক দাবী করেছে। বোনের শান্তির কথা ভেবে ৫০ হাজার টাকা দেয়া হয়েছে। আরো দেড় লাখ টাকা যৌতুকের জন্য তাঁর বোনের উপর নির্যাতন করা হয়েছে। যৌতুকের নির্যাতন সইতে না পেরে বোন আতœহত্যা করতে বাধ্য হয়েছে। ব্রা‏হ্মণপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সৈয়দ আবু মো.শাহজাহান কবির বলেন যৌতুকের নির্যাতনের জন্য আত্নহত্যার অভিযোগে নিহতের স্বামী, শশুড়, শাশুড়ী ও দুই ননদের বিরুদ্ধে একটি মামলা হয়েছে। শাশুড়ীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অপর আসামীরা পালিয়ে বেড়াচ্ছে। তাদেরকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

আর পড়তে পারেন