মঙ্গলবার, ২০শে আগস্ট, ২০১৯ ইং

লাকসামে ৩০ বছরেও সেতুর অপেক্ষার প্রহর শেষ হয়নি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ১০, ২০১৭
news-image

সেলিম চৌধুরী হীরা ঃ
উপমহাদেশের একমাত্র মহিলা নবাব নওয়াব ফয়জুন্নেছা স্মৃতি বিজড়িত লাকসাম। কথিত আছে ব্রিটিশ শাসনামলে লর্ড ক্লাইভ নওয়াব ফয়জুন্নেছা তার শ্বশুর বাড়ীতে যাতায়াতের সুবিধার্থে একটি খাল খনন করে দেন যার নাম কার্জন খাল। ডাকাতিয়া নদী সংযোগ সেই বিখ্যাত কার্জন খালটির উপর নির্মিত প্রায় ২’শ ফুট দীর্ঘ বাঁশের সাঁকো দিয়ে প্রতিদিন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পারাপার হচ্ছে স্কুল, মাদ্রাসার ৫ শতাধিক কোমলমতি শিক্ষার্থীসহ হাজার হাজার মানুষ। একটি ব্রিজের অভাবে ভাগ্য পাল্টাতে পারছে না ৫টি গ্রামের প্রায় ১৫ হাজার মানুষের।
লাকসাম পৌরশহর থেকে প্রায় ৭ কিঃ মিঃ পশ্চিমে ২নং মুদাফরগঞ্জ ইউনিয়নে কালিয়াপুর বাজার,কালিয়াপুর কামিল মাদ্রাসা ও ডাকাতিয়া নদী সংযোগ কার্জন খালের ব্রিজ নির্মাণের দীর্ঘদিনের দাবী এ অঞ্চলের মানুষের। ব্রিজটি নির্মিত হলে একদিকে যেমন কোমলমতি শিক্ষার্থীদের জীবনের নিরাপত্তা নিশ্চিত হবে অন্যদিকে পাল্টে যাবে শ্রীয়াং দক্ষিণ বিলপাড়া, রাজাপুর, নোয়াপাড়া, জগৎপুর, উত্তর বড়কেশতলাসহ কয়েকটি গ্রামের কৃষকদের ভাগ্যে এবং এ অঞ্চলের মানুষের ব্যবসা-বানিজ্যের প্রসার।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় কোমলমতি শিক্ষার্থীদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাঁশোর সাঁকো পার হচ্ছে। এ সময় সাজেদা আক্তার, ইয়াছিন আলম, আবুল কাশেমসহ বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী জানান তাদের দূঃখ দূর্দশার কথা। অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ন এ সাঁকো দিয়ে চলাচল করতে গিয়ে প্রায় তাদের বই-খাতা ও কলম পানিতে পড়ে যায় এবং অনেকেই দূর্ঘটনার শিকার হতে হয়। শ্রীয়াং গ্রামের প্রবাসী আমিনুল ইসলামের স্ত্রী আফরোজা বেগম বলেন আমার ছেলে ১ম শ্রেণি পড়–য়া সাদমান সাকিব রাহাত গত প্রথম সাময়িক পরীক্ষায় দিতে গিয়ে বাঁশের সাঁকো পার হওয়ার সময় বাঁশের কঞ্চি ভেঙ্গে পা ফসকে দূর্ঘটনার কবলে পড়ে মারাত্মক ভাবে আহত হয়। তাহার বাম পায়ের ছালবাকর উঠে রক্তাক্ত হয়। পরে স্থাণীয় লোকজন তাকে ডাক্তার দ্বারা প্রাথমিক চিকিৎসা করে। দূর্ঘটনার পর থেকে আমার ছেলে ২ বিষয় পরীক্ষা দিতে পারে নাই। মাদ্রাসার অধ্যক্ষ কাছে বাকী পরীক্ষা না দেয়ার কারন জানাতে গেলে তাকে পাওয়া যায়নি। শ্রীয়াং দক্ষিণপাড়ার কৃষক মোস্তফা কামাল বলেন, ১৯৯৬ সাল থেকে এ ভাবেই প্রতিনিয়ত জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাজারে আসতে হয়। অনেক সময় কৃষিপন্যে নিয়ে বাজারে আসলে বাঁশের সাঁকো পারাপারের সময় গা থরথর করে কাঁপে। গত ১৫দিন আগে মালামাল নিয়ে আসলে পা পিছলে নদীতে পড়ে যাই এসময় পায়ে প্রচন্ড ব্যাথা পাই। ওই এলাকার বাসিন্দা সাবেক বিভাগীয় হিসাব রক্ষক পূর্ত কর্মকর্তা আবুল খায়ের বলেন, কালিয়াপুর বাজারের কাছে ডাকাতিয়া নদী সংযোগ হয়ে সেই বিখ্যাত কার্জন খালের উপর সেতু নির্মাণের দাবী প্রায় ৩০ বছর ধরে এ অঞ্চলের মানুষের। ১৯৯৬ সাল থেকে বাঁশের সাঁকো দিয়ে এ এলাকার হাজার হাজার মানুষ পারাপার হয়। প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে স্থানীয়দের সহায়তায় বাঁশ কিনে এনে সবাই মিলে সাঁকোটি মেরামত করা হয়। সেতু নির্মাণ করার জন্য বিভিন্ন দপ্তরসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট মৌখিক-লিখিত ভাবে অবহিত করার পরও ৩০ বছরে কর্তৃপক্ষের টনক নড়েনি। ঝুঁকিপূর্ন এ সাঁকোর কারনে শিক্ষার্থীদের নিয়ে প্রতিনিয়তই আমাদের দুশ্চিন্তা বয়ে বেড়ায়। অচিরেই একটি ব্রিজ নির্মাণ করে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের জীবনের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দাবী জানান তিনি।
এ ব্যাপারে কালিয়াপুর কাজিম উদ্দিন সৈয়দ আলিম মাদ্রাসা অধ্যক্ষ মো. ওয়াজিউল্লাহ’র শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে না পেয়ে তার মুঠো ফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন শিক্ষার্থীদের সাঁকো পারাপার সময় দূর্ঘটনার কথা কিছুই জানি না। তবে সেতু নির্মাণের ব্যাপারে আমরা দীর্ঘদিন থেকে বিভিন্ন দপ্তরসহ কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছি।

আর পড়তে পারেন