রবিবার, ১৮ই আগস্ট, ২০১৯ ইং

অনিয়মে আবদ্ধ মেঘনা-গোমতি সেতুর টোলপ্লাজা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ২২, ২০১৭
news-image

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু ঃ
ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক বাংলাদেশের একটি অন্যতম ব্যস্ত মহাসড়ক। এই মহাসড়কের কুমিল্লার দাউদকান্দিতে মেঘনা-গোমতি সেতুর টোলপ্লাজায় ব্যাপক অনিয়ম আর দুর্নীতি হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। যার ফলে প্রতিনিয়ত সৃষ্টি হয় যানজট। টোলপ্লাজার ওজন স্কেলে ট্রাক-কাভার্ডভ্যান থেকে চাঁদাবাজিই এই কৃত্রিম যানজট লেগে থাকার কারন। আসন্ন ঈদে এই যানজটই ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে মূল ভোগান্তির কারণ হবার আশংকা চালকদের।


নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক সূত্র জানায়, সেতুর টোলপ্লাজায় ওভারলোড যানবাহন থেকে লাইনম্যানের সাহায্যে চাঁদা আদায়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে টোল কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে। ফলে সরকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। ওজন স্কেলে কিছু অসাধু লাইনম্যান রয়েছে যারা স্কেল কর্মকর্তার যোগসাজশে ওভারলোড ট্রাকগুলো থেকে বেপরোয়া চাঁদাবাজি করে ওভারলোড ট্রাকগুলোকে সেতু দিয়ে পারাপারের সুযোগ করে দেয়। এতে করে ওভারলোড যানবাহন প্রতিনিয়ত চলাচলের ফলে গুরুত্বপূর্ণ এই সেতুটির স্থায়িত্বও হুমকিতে পড়েছে।
স্থানীয় লোকজন জানান, সেতুর উপর দিয়ে সরকার নির্ধারিত ওজনের বেশি গাড়িগুলো থামিয়ে লাইনম্যানের সাহায্যে টাকা আদায় করা হয়। ১৮ টনের অধিক ওজনের যানবাহন থেকে ২ হাজার টাকা জরিমানা আদায়ের নিয়ম থাকলেও প্রায় সব পন্যবাহী যানবাহন থেকেই চাঁদা আদায় করা হয় বলে অভিযোগ চালকদের। ওজন কম হলেও কোন মাফ নেই। অনেক ট্রাক ও কন্টেইনার চালক বা হেলপাররা অতিরিক্ত টাকা আদায় নিয়ে টোল আদায়কারী প্রতিষ্ঠানের লাইনম্যানদের (নিজস্ব বাহিনী) সাথে তর্কাতর্কি কিংবা ধস্তাধস্তিও হয়। অনেক গাড়ি চালক লাইনম্যানদের পাশ কাটিয়ে দ্রুত চলে যাওয়ার চেষ্টা করে। এরই ফলশ্রুতিতেই চলতি বছরের ২৫ মে ভোরে অলি উল্লাহ নামের টোলপ্লাজার এক লাইনম্যান ট্রাকের চাঁপায় নিহত হয়।
টোলপ্লাজা সূত্র জানায়, মেঘনা-গোমতি সেতুর টোলপ্লাজায় প্রতিদিন গড়ে ৪৫ হাজার যানবাহন থেকে টোল আদায় করা হয়। ওজন বা ওয়েট স্কেল অতিক্রম করে ১৬ হাজার ভারী যানবাহন। ওয়েট স্কেল থেকে প্রতিদিন গড়ে ২৫ লক্ষ টাকা এবং টোলপ্লাজায় যাত্রীবাহি যানবাহন থেকে প্রায় ৮৫ লক্ষ টাকা রাজস্ব আয় হয়। এর বাইরে একটি বৃহৎ পরিমান আদায় করা টাকা চলে যাচ্ছে অসাধু চক্রের পকেটে।
সরেজমিনে ট্রাক, কাভার্ডভ্যান, লরি চালকদের সাথে কথা বলে জানা যায়, ওজন স্কেলটি নিয়ন্ত্রন করে একটি অসাধু চক্র, যেখানে টোলপ্লাজার সংশ্লিষ্টরাও জড়িত।
ইব্রাহিম নামে এক ট্রাক চালক জানান, সেতু দিয়ে চলাচল করার মত ওজনের কম হলেও আমার কাছ থেকে আড়াই হাজার টাকা নিয়েছে টোল কর্তৃপক্ষ। দিয়েছে ৫ শত টাকার রিসিট। সম্প্রতি সড়ক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের যেদিন এসেছিল, ওই দিন আমাদের ২ হাজার টাকার চাঁদার রশিদ দিয়েছিল। সেখানেও আমার ট্রাকের মালের ওজন কত তা রশিদে লেখা নেই। অনেক চালক চাঁদা দিতে না চাইলে টোলের লাইনম্যানরা গাড়ির গ্লাস ভাংচুরসহ মারধর করে। মোবাইল, মানিব্যাগ খুলে রেখে দেয়। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই রশিদ না দিয়ে চাঁদা নিয়েই ছেড়ে দেয়া হয় অতিরিক্ত ওজনের যানবাহন।
জানা যায়, স্কেলে তিন শিফটে ১০ জন করে ৩০ জন লাইনে কাজ করে। সরেজমিনে তাদের মধ্যে প্রতিযোগীতা দেখা যায় গাড়ি স্কেলে না পাঠিয়ে দরকষাকষির মাধ্যমে চাঁদা আদায় করে ছেড়ে দেয়ার।
টোলপ্লাজায় অতিরিক্ত টাকা আদায় নিয়ে সময় ব্যয় হয় অনেক। ফলে টোলপ্লাজা থেকে প্রতিদিন ১/২ কিঃমিঃ জুড়ে ওভারলোড যানবাহন দাড়িয়ে থাকতে দেখা যায়। ফলে যানজট তীব্র আকার ধারণ করে। ভোগান্তিতে পড়ে যাত্রীরা।
এদিকে ১৬ জুন সড়ক-পরিবহন সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি দাউদকান্দি টোলপ্লাজা পরিদর্শনে এসে ওজন স্কেলে অনিয়ম -দুর্নীতির অভিযোগ পেয়ে শাসিয়েছেন টোলপ্লাজার কর্মকর্তাদের।
এ বিষয়ে মেঘনা গোমতি সেতুর স্কেল ঠিকাদার কোম্পানীর নির্বাহী পরিচালক মেজর (অব.) জিয়াউল আহসান জিয়া জানান, আমি শতভাগ সৎ আছি। টোল আদায়কারির কেউ যদি এমন কাজ করে থাকে আমি তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিবো। চাঁদা আদায়ের বিষয়টি আমি খতিয়ে দেখছি।

আর পড়তে পারেন