শুক্রবার, ২৩শে আগস্ট, ২০১৯ ইং

নারী নির্যাতন ও আমাদের নিরবতা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ১৯, ২০১৭
news-image

 

আবরার আল দাইয়ানঃ
সাড়ে চারটে বছর, কম সময় নয়। সাংবাদিকদের বাড়িয়ে ধরা ক্যামেরা-বুমের সামনে মেয়ের কথা বলতে গিয়ে এখন আর ডুকরে কেঁদে ওঠেন না আশা দেবী। মেয়ে হারানোর যন্ত্রণা তো সয়ে নিয়েছেন, বিচারহীনতার সংস্কৃতিতে দিনের পর দিন বিচারের আশায় তীর্থের কাকের মতো চেয়ে থেকে লড়াইটা চালিয়ে গেছেন বদ্রীনাথ সিংহ-আশা দেবী দম্পতি। নিম্ন আদালতে এক বছর, দিল্লী হাইকোর্টে বছর খানেক, তারপর সুপ্রিমকোর্টের আপিলেও একটা বছরের বেশী সময় টানা প্রতিটি শুনানিতে হাজির ছিলেন দুজনে। আদালত প্রাঙ্গনের সবাই চেনে এখন দুজনকে, সাংবাদিকেরা ঘিরে ধরেন মামলার ব্যাপারে তাঁদের মনোভাব জানতে; এখন বেশ গুছিয়ে কথা বলতে শিখে গেছেন আটপৌরে গৃহিণী আশা দেবী। কেউ কেউ সেলফি তোলার আবদার নিয়ে আসেন, হাসিমুখে সেই বায়নাও মেটান তাঁরা। রান্নাঘরের তেল-নুন-মশলার জগৎ থেকে কোর্ট-কাছারির আইনের জটিল সব ধারা- মেয়েটা মরে গিয়ে আশা দেবীর জীবনটাই পালটে দিয়েছে পুরোপুরি। গত শুক্রবার দুপুর দুটোয় রায় পড়ে শোনানো শুরু হল, আধঘন্টার মধ্যেই জানা হয়ে গেল, সর্বোচ্চ শাস্তি বহাল রেখেছেন আদালত। বিচারক বলে দিলেন- “যদি কোন মামলায় ফাঁসির সাজা দিতেই হয়, তবে এটাই সেই মামলা।” আদালত প্রাঙ্গন জুড়ে হুল্লোড়, বদ্রীনাথ শূন্য চোখে তাকিয়ে আছেন বিচারপতির দিকে, আশা দেবীর চোখের কোণে চিকচিক করছে জল- সেই জলে কতটা আনন্দ, আর কতটা হারিয়ে ফেলার বেদনা, সেটা ক’জনে জানেন? নবীন-প্রবীন আইনজীবিরা কেক-মিষ্টি নিয়ে এসেছেন, মুখে তুলে খাইয়ে দিচ্ছেন একে অন্যকে। আশা দেবীর গলার কাছে কান্নাটা আটকে আছে, চিৎকার করে স্বর্গে থাকা মেয়েটাকে জানিয়ে দিতে ইচ্ছে করছে- মা রে, তোর জন্যে বিচারটা আমরা নিয়ে এসেছি! ২০১২ সালের ১৬ই ডিসেম্বরের রাতটা দিল্লীর এক তরুণীর জীবনে নেমে এসেছিলো তীব্র অন্ধকার নিয়ে। বন্ধুকে নিয়ে সিনেমা দেখে থিয়েটার থেকে ফেরার পথে চলন্ত বাসে ধর্ষণের শিকার হয় প্যারামেডিকেল ছাত্রী নির্ভয়া। শুধু ধর্ষণেই সীমাবদ্ধ থাকেনি বাসের চালক আর তার সহকারীরা, বিকৃত কাম চরিতার্থ করার উদ্দেশ্যে নির্ভয়ার ওপরে চালানো হয় মধ্যযুগীয় বর্বরতা। লাথি চড় থাপ্পড় তো ছিলই, চিকিৎসকেরা ওর শরীরে প্রায় দশটি জায়গায় আঁচড় আর কামড়ের দাগ চিহ্নিত করেন, হিংস্র পশুগুলো লোহার রড ঢুকিয়ে ছিন্নভিন্ন করে দিয়েছিল যৌনাঙ্গ, ইচ্ছেমতো পেটানো হয়েছিলো ওর ছেলে বন্ধুটিকেও। এতেই ক্ষান্ত হয়নি ওরা, প্রমাণ লোপাট করার উদ্দেশ্যে দুজনকে রাস্তায় ফেলে বাস উঠিয়ে দিতে চেয়েছিল ওদের গায়ের উপর। দুটো সপ্তাহ মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়েছে বছর তেইশের মেয়েটা; অবস্থার অবনতি ঘটায় এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল সিঙ্গাপুরে, সেখানেই ২৯শে ডিসেম্বর চলে গেল নির্ভয়া, পৃথিবীর সব পুরুষের ওপর অব্যক্ত অভিমান বুকে জমা রেখে। যাবার আগে দিল্লী পুলিশের অফিসার ছায়া শর্মার কাছে আর্জি জানিয়ে গিয়েছিল- “আমার এ অবস্থা যারা করেছে, তাদের ছাড়বেন না প্লিজৃ।” নাহ, ওর দেশের মানুষেরা ছেড়ে কথা বলেনি, ফুঁসে উঠেছে ভারত, ত্রিশটি প্রদেশে ভাগ করা বিশাল এই দেশের আনাচে কানাচে ছড়িয়ে পড়েছিল নির্ভয়ার ধর্ষকদের গ্রেফতার ও বিচারের দাবীতে গড়ে ওঠা আন্দোলন। পাড়ার গলি থেকে দিল্লীর রাষ্ট্রপতি ভবনের ফটক- কোথায় পৌঁছায়নি বিচার প্রার্থীদের মিছিল? পুলিশ দ্রুত পদক্ষেপ নিল , গ্রেফতার হলো ছয় আসামী। শুরু হল বিচারের কাজ, পরিবর্তন আনা হলো আইনে। সাড়ে চার বছরের অপেক্ষার পর চারজনের ফাঁসির রায় এলো গত শুক্রবার। প্রধান আসামী অভিযুক্ত বাসের ড্রাইভার রাম সিং, দুবছর আগে মারা গেছেন জেলেই, কিশোর এক অপরাধীকে পাঠানো হয়েছে কিশোর সংশোধন কেন্দ্রে। নির্ভয়ার বাবা-মা এখন শান্তিতে মরতে পারবেন।
কিন্ত আমাদের দেশে ধর্ষনের ভিক্টিমেরা? তাঁদের ফেলা দীর্ঘশ্বাসের শব্দ কি কারো কানে পৌঁছায়? প্রতিদিন খবরের কাগজ খুললেই দু-চারটে ধর্ষনের খবর চোখে না পড়লে বুঝতে হবে আপনি বাংলাদেশে নেই। তিন থেকে তিরাশি- বয়েসটা যাই হোক না কেন, শিশু থেকে বৃদ্ধা সবাই শিকার হচ্ছেন বিকৃত কাম কাপুরুষদের লালসার। ক’টা ঘটনার বিচার হয়েছে আজ পর্যন্ত? শিল্পপতির মেয়ে হোক কিংবা রিক্সাওয়ালার- বিচারের বাণী তো নীরবে গুমরে কেঁদেই মরে যায়। ক’দিন আগেই গাজীপুরে এক শিশুকে ধর্ষণের ঘটনায় বিচার না পেয়ে মেয়েকে নিয়ে ট্রেনের নীচে ঝাঁপ দিয়ে ছিলেন দিনমজুর বাবা। সেই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই বনানীর অভিজাত পাড়ায় আবাসিক হোটেলে দুই বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ধর্ষন ও ভিডিও ধারণের ঘটনা। বসুন্ধরা আবাসিকের সামনে থেকে এক গারো তরুণীকে মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে ধর্ষনের ঘটনাটা মনে আছে? কিংবা বছরখানেক আগের তনু- ‘ভাল্লুকের’ আক্রমনে যে মেয়েটার মৃত্যু হয়েছিল? ভারত আর বাংলাদেশের পার্থক্য কি জানেন? আমরা ওদের মতো দেশপ্রেমিক না। ওরা নিজের দেশের স্বার্থটা খুব ভালো বুঝে, আমরা শুধু নিজেদেরটা বুঝি। ভারতের পুলিশের হাতে কোন সূত্র ছিল না, নির্ভয়া আর তাঁর বন্ধুর জবানবন্দিতে উঠে এসেছিল লাল বাস, হলুদ রঙের পর্দার কথা। সেই স্বল্পতাকে জয় করেই গ্রেফতার করা হয় চারজনকে, তাদের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী আরো দুজন আটক হয়। আর আমাদের? প্রভাবশালী পরিবারের বিপক্ষে মামলা নিতেই দুই-তিনদিন লাগে, তদন্তের নামে সময়ক্ষেপণ হয়, প্রশাসনের অন্দরমহলে ওৎ পেতে থাকা কিছু নরকের কীটের ছত্রছায়ায় আসামীদের সরিয়ে নেয়া হয় নিরাপদ আশ্রয়ে। তারপর সময়ের সাথেই ফিকে হয়ে আসে সবকিছু, মানুষ ভুলে যায়, নতুন কিছু নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়ে, গণমাধ্যমেও আর এসব কথা আসে না। এভাবেই সময়ের গর্ভে চাপা পড়ে যায় ধর্ষিতার আর্তচিৎকার। নারীর ক্ষমতায়ন নিয়ে আমাদের দেশের নাকি অনেক সুনাম আন্তর্জাতিক অঙ্গনে। যে দেশের প্রধানমন্ত্রী, বিরোধীদলীয় নেত্রী, স্পিকার সবাই নারী, সেদেশে প্রতিবছর দেড় হাজারের বেশী নারী ধর্ষণের অভিযোগ নিয়ে থানায় যান। এর চেয়ে দশগুন বেশি সংখ্যক ঘটনা হয়তো আড়ালেই থেকে যায়, সমাজ কিংবা পরিবারের কথা ভেবে। বিচার তো নেই, সবাইকে জানিয়ে, লোক হাসিয়ে কি হবে? এই সুযোগটাই লম্পট মানুষ গুলো নেয়, তারা জানে ওদের এই ব্যভিচারের কথা হয়তো কেউ মুখ ফুটে বলবে বা, দু-চারজন বললেও বিচার হবে না। আর সমাজের তথাকথিত পয়সাওয়ালা প্রভাবশালীরা এসব করলে তো বিচারের আশা ছেড়েই দিতে হয়। আইন-আদালত কিংবা থানা পুলিশ- সবই সম্ভবত উনারা পকেটে ঢুকিয়ে চলাফেরা করেন;অবস্থাদৃষ্টে এমনটাই মনে হয় মাঝে মধ্যে। ভারতের মানুষ নির্ভয়ার জন্যে রাস্তায় নেমেছিল, বিচার নিয়ে ঘরে ফিরেছে। গতবছর এ দিনে আমরাও তনু হত্যার বিচার চেয়ে পথে নেমেছিলাম। হাতে একগাদা ভাল্লুকের বিষ্ঠা নিয়ে ফিরতে হয়েছে আমাদের। তবে হতাশ হইনি। আবারও দাঁড়াব, আমাদের বোনদের জন্যে। শাহবাগ হোক কিংবা প্রেসক্লাব, ঢাকা হোক কিংবা চট্টগ্রাম, আজ বের হয়ে আসুন বাসা থেকে। যোগ দিন প্রতিবাদে, একতাবদ্ধ হন ধর্ষণের বিপক্ষে। কাউকে পাশে না পেলে একাই ছুটে যান। বনানীতে কি ঘটেছে, কারা ঘটিয়েছে সবাই জানেন সবকিছু। মেয়েরা কে কি পরেছে, কেন রাতে জন্মদিনের পার্টি করতে গেছে, তারা ভালো কি মন্দ মেয়ে সেসব নিয়ে ভাবতে চাইলে ভাবতে পারেন। কিন্ত আমরা বিশ্বাস করি, একজন দেহপসারিনীরও পছন্দ অপছন্দ আছে, তারও অনেক কিছু করতে মন চাইতেই পারে। সে খারাপ বলে তাঁকে জোর করাটাও ধর্ষণ, কারো ইচ্ছের বিরুদ্ধে জোর করে শারীরিক সম্পর্কে বাধ্য করাটাই ধর্ষণের সংজ্ঞা। আর ওরা তো আমাদের বোন, শুধু জন্মদিনের প্রোগ্রামের কথা বলে, ইমোশনাল ব্ল্যাকমেইল করে পার্টিতে এনে অত্যাচার করা হয়েছে, ধর্ষণ করা হয়েছে তাদের। মেয়েদের দোষী সাব্যস্ত করে যারা ওদের চরিত্র উদ্ধারে ব্যস্ত, মনে রাখবেন, আপনার কিংবা আপনাদের পরিবারের/পরিচিত কারো সাথে যদি এমটা কখনও ঘটে, সেদিনও আমরাই এসে দাঁড়াবো সবার আগে।