শুক্রবার, ২৩শে আগস্ট, ২০১৯ ইং

নেতৃত্ব বিকাশে স্তব্ধতা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ৪, ২০১৭
news-image

ব্যারিস্টার সোহরাব খান চৌধুরীঃ
রাজনৈতিক নেতার নেতৃত্বকে ঠিক রাখতে গিয়ে অথবা নিরঙ্কুশ করার জন্য কর্মীরা বিভিন্ন সময় বিভিন্নভাবে ব্যবহৃত হয়ে থাকে। যেমন-
লেখাপড়া করতে থাকা ছাত্ররা দলীয় পদের লোভে পড়ে লেখাপড়ায় অমনোযোগী হয়ে ছাত্রত্ব হারিয়ে ছাত্রজীবনের ইতি টেনে অবস্থানভেদে অব্যাহত ভাবে মামলায় পড়ে বা জড়িয়ে ছন্নছাড়া জীবনযাপন করে। তারা মনে করতে থাকে এই বুঝি তাদের কাংখিত স্বপ্নের কমিটি গঠিত হয়ে যাচ্ছে। দীর্ঘ দিনের লালিত স্বপ্ন পূরণ হতে যাচ্ছে। কমিটির পদ পদবি পেয়ে বিয়ের পিড়িতে বসবে। কমিটিতে অন্তর্ভুক্তি হওয়ার জন্য বয়স একটি বড় বাঁধা । সে কারনে কমিটি না হওয়ায় কেউ কেউ গোপনে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে বাবা হয়ে আছে। না পাচ্ছে কমিটি, না পারে স্ত্রীকে বরণ করে নিতে কিংবা ছাত্রত্বের ভুয়া আইডি কার্ড বা ভর্তির কাগজ যোগাড় করে রেখেছে। কমিটির জন্য ঘুরতে ঘুরতে হয়রান হতে হতে আর্থিক অনটনে পরে পৈত্রিক সম্পত্তি বিক্রি করতে করতে এমন কি বাবার থেকে ভাগে পাওয়া শেষ সম্বল মাথা গুজার ঠাইটুকুও বিক্রি করে এলাকা ছেড়ে চলে গেছে অন্যত্র অথবা মাদকসেবী হয়ে কিংবা খুনের মামলার আসামী হয়ে বা অন্য কোন কৃতকর্মের ফলে মামলার আসামী হয়ে দেশান্তরিত হয়েছে আর যদি এলাকায়ও থাকে সমাজে বিচরণ করার অবস্থায় থাকেনা। ঋনের দায়ে জর্জরিত হয়ে প্রায় পালিয়েই থাকে। সাধারণত তাদেরকে দিনের বেলায় দেখা যায় না। নেশার টাকা যোগাড় করতে গিয়ে হেন কোন কাজ নেই যে, তারা করেনা। হরহামেশাই মা বাবা বা প্রিয়জনের গায়ে হাত তুলতে দ্বিধাবোধও করেনি। এই শ্রেণীর লোকেরা সমাজে অবহেলিত হতে হতে ধিক্কার পেয়ে বিভিন্ন রকম ক্রাইমে জড়িয়ে নিজেকে ও সমাজকে ধ্বংস করে থাকে। নিরুপায় হয়ে অভিভাবকেরা তাদেরকে বিয়ে দিয়ে অন্য একটি মেয়ের জীবনকে ধ্বংস করে দিয়ে উত্তরণ পাওয়ার বৃথা চেষ্টা করে থাকে।
দ্বিতীয়ত, নেতার নেতৃত্ব ঠিক রাখতে গিয়ে অনেক কর্মী দেশান্তরিত হয়ে কর্মস্থলে জেল খেটেছেন বা ভুখা থেকে থেকে কংকালসার হয়ে দেশে ফিরেছেন খালি হাতে। অথচ তার পরিবারের সদস্যরা তাকিয়ে থােেকন দিনের পর দিন বিদেশ থেকে এই বুঝি টাকা আসবে যা দিয়ে সন্তানের লেখাপড়ার খরচ দিবে, কোচিংয়ের বেতন দিবে, মা বাবার খরচ যোগাবে, প্রিয়তমার প্রসাধনী কিনবে আরো কত কি কিšু— যখনই জেনেছে তাদের প্রিয়জন জেলে বসে আছে অথবা বিদেশে অবৈধ হয়ে যাওয়ার কারনে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। তখনই ধীরে ধীরে সংসারে অশান্তি শুরু হতে থাকে এমনকি প্রতিবেশীদের সাথে কিংবা আত্মীয় স্বজনদের সাথেও ঝগড়া বিবাদে জড়িয়ে পড়ে, পরিনামে বিবাহ বিচ্ছেদ, সংসার থেকে আলাদা করে দেওয়া বা হওয়া অথবা হতাহতের মধ্যে দিয়ে একটি পরিবার নিঃশেষ হয়ে যাওয়া। তারা কখনো উপজেলার শীর্ষ নেতৃত্বের অনুকম্পা পাওয়া তো দূরের কথা তুচ্ছতাচ্ছল্য স্বরে অন্ধকারে তাদেরকে ঠেলে দেওয়া হয়েছে। দল করতে করতে পাগল হয়ে মৃত্যু বরণ করেছেন অনেকে। কোথায় মৃত্যুবরণ করেছেন কোনোদিন খুঁজ নেয়নি শীর্ষ নেতারা।
তৃতীয়ত, আরেক শ্রেনীর লোকেরা সমাজে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার লোভে এই নোংরা রাজনীতির ফাঁদে পরে হয় মাদকসেবী বা মাদক ব্যবসায়ী অথবা মাদক ব্যবসায়ীদের নিরাপদ রুট নিয়ন্ত্রণকারী/ নির্ণয়কারী হয়ে (লাইনম্যান) দালালি করে সমাজে বিচরণ করলেও সারাক্ষনই প্রভুদের ভয়ে টটস্থ থাকে, কখন যে প্রভু অখুশি হয়ে তাদেরকে ফাঁদে ফেলে দেয়। তারা প্রভুদের ইশারায় খুন-খারাবি থেকে শুরু করে সন্ত্রাস, দুর্নীতি, চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি, মাদক ব্যবসা, চোরাচালান, জমি দখল, জমির দালালী, সংখ্যালঘুদের ওপর হামলা, দখলবাজি, নিয়োগ-বদলি বাণিজ্য, টিআর-কাবিখা প্রকল্পে লুটপাটসহ সি.এন.জি. স্ট্যান্ডের চাঁদা উঠানোর নামে যানজট সৃষ্টি করে সাধারণ মানুষকে জিম্মি ও হয়রানিসহ নানা কর্মকাণ্ডে জড়িত। এসব লোকেরাই আবার সমাজের সালিশ বৈঠকের রায় নিয়ন্ত্রণ করে। তাদের মূল কাজ হল দুইজনের মধ্য দাঙ্গা-ফাসাদ বা বিবাদ সৃষ্টি করে দেওয়াসহ সা¤্রাজ্যের সীমানা তৈরী করে রাজত্ব করা আর এভাবেই সমাজে সামাজিক মূল্যবোধের অবক্ষয় হতে থাকে তাতে তারা মোড়ালিপনার মাধ্যমে বিচরণ করে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে। এই শ্রেনীর লোকেদের ভয়ে সমাজে নীতিবান লোকেরা স্তব্দ হয়ে যাওয়ার কারনে কেউ আর অন্যায়ের প্রতিবাদ করেনা।
চতুর্থ, বুড়িচং-ব্রাহ্মনপাড়ার রাজনীতি করতে এসে ২/১ জন ব্যতিত পৈত্রিক সম্পত্তি বিক্রি করে নিস্ব হয় নাই এমন কোন নেতাকর্মী পাওয়া কঠিন অথবা সুদি টাকার ঘানী টানতে টানতে ঋণগ্রস্থ হয়ে অকালেই নুয়ে পড়ে। তাদের এমন দৈন্য দশা দেখলে সহজেই যে কেউ বলে দিবে তাদের এই দুর্দশা কে করেছেন। অনেকেই আবার বউ বাচ্চাদের বাড়িতে ফেলে ধার দেনার ভয়ে বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। নেতার নেতৃত্ব ধরে রাখার জন্য এই বিশাল কর্মী বাহিনী বারবার ব্যবহৃত হচ্ছে। আর এই বেহায়া কর্মীবাহিনীও তার নেতার উত্থানে ৩২টি দাঁত বের করে ফেল ফেল করে হাসে আর মনে মনে ভাবে ইস এই মহান নেতার জন্য কোরবান হয়ে গেলে হয়তো ভাল হতো। এভাবেই স্তব্দ হয়ে যায় নেতৃত্ব বিকশিত হওয়া আর শীর্ষ নেতৃত্ব বিচরণ করতে থাকে তাদেরই কর্মীদের গড়ে দেওয়া সা¤্রাজ্যকে নিয়ে।

লেখক- ব্যারিস্টার সোহরাব খান চৌধুরী
আইনজীবি-বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট