রবিবার, ১৮ই আগস্ট, ২০১৯ ইং

গণমাধ্যমে জেন্ডার সেনসিটিভ মানদন্ড

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ১৩, ২০১৭
news-image

ইয়াসমীন রীমা ||
যে হাত দোলনায় দোল দেয় সে-ই হাতই যে রাজ্য শাসন করতে পারে তার বেশুমার নজির না থাকলেও নূন্যতম প্রমান আমাদের চোখের সম্মুখে আছে । তবু সে সব দৃষ্টান্ত উদাহরণ হয়না সংখ্যায় নগণ্য বলেই নয়, সভ্যতার বর্তমান পর্যায়ে পৌঁছেও সমাজ তাঁর “অর্ধেক আকাশ (নারী)” সর্ম্পকে যথেষ্ট গোঁড়া ও রক্ষণশীল। তবে আশার কথা হলো এরকম প্রতিবন্ধকতার বেড়া ডিঙিয়েও মেয়েদের একটি অংশ উঠে দাঁড়াবার চেষ্টা করছে,কর্মক্ষেত্রে প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে নিজেদের জায়গা দখল করছেন। কিন্তু সাধারনভাবে পারিবারিক ও সামাজিক উভয় ক্ষেত্রেই তাদের অসংখ্য বাঁধা শুধু মানুষ হিসেবে মর্যাদা পাওয়ার প্রশ্নে। তা থেকে একটি বিষেশ ক্ষেত্রের নারী সমাজের বাস্তব অবস্থার চিত্রই তুলে ধরছি-
আধুনিক সভ্যতার অন্যতম বিম্ময়কর এবং সবচেয়ে পরিবর্তনশীল কর্মময় ক্ষেত্র গণমাধ্যম (গধংং সবফরধ)।্ গনমাধ্যমেই উপস্থিত হয় সমাজ জীবনের সামগ্রিক প্রতিচ্ছবি তাই যোগাযোগের নেটওয়ার্ক বিশ্ব এখন এক সূতায় বাঁধা। সাংবাদিকতার ভাষায় আমরা এ যোগাযোগকে গণযোগাযোগ (গধংং পড়সসঁহধপধঃরড়হ) বলি। সে ক্ষেত্রে গণমাধ্যম শুধু বাস্তবতাকে ব্যাখ্যাই করে না,সৃষ্টিও করে। আর সৃষ্টি-সচেতনতার আগুনে কলম এখন বিশ্ব জুড়ে নারীদেরও হাতের মশাল। ভার্জিনিয়া উলফ যাকে‘এ রুম অফ ওয়ানস ওন’ বলেছিলেন,সেই নিজস্ব আঙ্গিনা সৃষ্টিশীল নারীরা এখনও খুঁজে চলেছে। নিরন্তর। তবে এ-ও সত্য গণমাধ্যম কিংবা মত প্রকাশের স্বাধীনতা ক্রমাগত একটি লড়াইয়ের বিষয়। আর নারীর জন্য শিল্প-সাহিত্যের পথে ফুল ছড়ানো থাকেনা,অনেকটা কাঁটা ও কাঁদা পেরিয়ে সৃষ্টিশীল নারীকে ফুল খুঁজে নিতে হয়। পুরুষেরা সৃষ্টিশীল হলে আশেপাশের লোকজন,পরিবার থেকে যে ছাড় পান,নারীরা তা পান না। আতœবিস্মৃত হয়ে কাজে ডুবে থাকার কয়েকটা মুহুর্ত কিছুটা পরিসর,নারীর সেই নিজস্ব কুঠুরিটা যা বাস্তব ও সৃষ্টির পক্ষে যতটা অনিবার্য নারী “কলম কারির” পক্ষে প্রায় ততটাই দুর্গম।
একুশ শতকে দাঁড়িয়ে সর্বত্র শোনা যাচ্ছে নারীর ক্ষমতায়ন ও উন্নয়নের কথা। সামাজিক মর্যাদা,অর্থনৈতিক মুক্তি এবং শিক্ষা ও চাকুরি ইত্যাদি অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে নারীরা সোচ্চার। তবে অর্জন খুব বেশি নয়। কেননা,সমাজের সর্বস্তরে নারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা সম্ভব হয়নি। পরিবার,সমাজ,রাষ্ট্র সর্বত্র নারীরা অনিশ্চয়তা আর নিরাপত্তাহীনতার উদ্বেগে, উৎকন্ঠায় যাপন করছে জীবন। তবু তাদের কর্মস্পৃহা থেমে থাকেনি। নারীরাও এগিয়ে যাচ্ছে পুরুষদের সমান্তরালে,আপন যোগ্যতায় বাধা-বিপত্তি অতিক্রম করে। আরো সব সংবাদের পাশাপাশি নারীদের উন্নয়ন,অগ্রযাত্রা সম্পর্কে জাতি জানতে পায় সংবাদপত্রের মাধ্যমে। কিন্তু সংবাদপত্র তথ্য সাংবাদিতায় নারীদের অংশগ্রহণ অত্যন্ত হতাশাব্যঞ্জক। এদেশে সাংবাদিকতা তথা শিল্প-সাহিত্যে নারীদের প্রবেশ ঘটেছিল স্বাধীনতার আগে থেকেই। কিন্তু অধিকাংশ ক্ষেত্রেই নারী সাংবাদিকতা সীমিত ছিলো নারী বিষয়ক ফিচার পাতার মধ্যে। এর জন্য তারা নিজেরা যতটা দায়ী ছিলেন তার চেয়ে বেশি দায়ী সংবাদপত্রের অভ্যন্তরিন পরিবেশ ও সামগ্রিকভাবে সামাজিক পরিবেশ। দুভার্গের বিষয়,এ ক্ষুদ্র পরিসরে ও নারীরা তাদের দায়িত্ব কৃর্তিত্বের সঙ্গে পালন করতে পেরেছেন এমন দাবী করা সঙ্গত হবে না। যেসব নারী ম্যাগাজিন পাতা চালাতেন অর্থাৎ খন্ডকালীন সাংবাদিক ছিলেন তাদের কারো কোন অভিজ্ঞতা ছিলোনা। অভিজ্ঞতা অর্জনের সুযোগও দেয়া হতোনা। তারা অনেকটা অনাদৃত ছিলেন। খানিকটা অবহেলিতও। তাদের প্রতি যেটুকু সহযোগিতার হাত সম্প্রসারন করা প্রয়োজন ছিলো সেটুকু করা হয়নি। সবচেয়ে বড় সমস্যা ছিলো তাদের মধ্যে পেশাদারি মনোভাব গড়ে ওঠেনি। তারা অধিকাংশই সৌখিন সাংবাদিকতা করতেন। সেসব নারী পূর্নাঙ্গভাবে সাংবাদিকতায় নিয়োজিত ছিলেন তাদের সংখ্যাও ছিলো সীমিত। এদের কারো কারো মধ্যে পেশাদারি মনোভাব ছিলো। নিজেদের যোগ্য সাংবাদিক হিসেবে গড়ে তোলার আকাংঙ্কা ছিলো কিন্তু পারিবারিক,সংবাদপত্রের অভ্যন্তরিন ও সামাজিক পরিবেশ তাদের,মেধা বিকাশের সহায়ক ছিলোনা। তবে এ অবস্থায় নব্বই দশকের পূর্ব পর্যন্ত বিরাজমান ছিলো।
বাংলা সংবাদপত্রের বয়স প্রায় দু‘শ বছর । মাসিক পত্র দিকদর্শন দিয়ে যাত্রার কিছু পরে প্রকাশিত হয় সমাচার দর্পণ। এরপর সম্বাদ কৌমুদী ও বঙ্গদূত এর রাজা রামমোহন রায়ের পত্রিকায় নারী ছিল গুরুত্বর্পূণ ইস্যু।
বিস্ময়করভাবে এদেশে সাংবাদিকতায় মেয়েদের পথ পরিক্রমা শুরু সম্পাদনার মতো শুরু দায়িত্ব দিয়ে। সেই উনিশ শতকে ভারতী,পরিচারিকা,রঙ্গবাসিনী,সোহাগিনী অন্ততপুর ইত্যাদি কাগজ নারীদের দ্বারা সম্পাদিত হয়ে বের হয়েছে। আর বিশ শতকে এসে পুরুষদের পাশাপাশি নারীদের প্রগতিশীলতার ব্যাপক ছোঁয়া লাগে নারী সাংবাদিক দ্বারা সম্পাদিত পত্রিকাগুলোর নামে। যেমন-সেকালে পত্রিকা বের হয়েছে-জাহৃবী, প্রেম ও জীবন ,বাঙালীর কথা,ভারত মহিলা,আলোক ইত্যাদি নামে।
বিশ-শতকের মধ্যভাগেই প্রকাশিত হয় বেগম পত্রিকা। এ অঞ্চলে মেয়েদের সাংবাদিকতায় উত্থান মূলত বেগম পত্রিকা সম্পাদনায় দায়িত্ব পালনের মধ্য দিয়ে এদেশের সাংবাদিকতায় মেয়েদের দক্ষতার প্রশ্নটিকে খানিকটা হলেও মীমাংসা করে দিয়েছেন। বেগম এর সমসাময়িক আরেকটি নারী বিষয়ক পত্রিকা ছিল “ললনা”। বিভিন্ন পর্যায়ে জিনিয়া হোসেন,ফৌজিয়া সাত্তার প্রমুখ এর সম্পাদনায় দায়িত্ব পালন করেছেন। বেগম-এর সনাতন ধ্যান-ধারনার বিপরীত ললনার অন্যতম বৈশিষ্ট্য ছিল তার র‌্যাডিক্যাল দৃষ্টিভঙ্গি। ললনাতেই প্রচ্ছদ কাহিনী ভিত্তিক সংবাদ তৈরীর প্রক্রিয়া শুরু।
বেগম ও ললনার অগ্রযাত্রার কালেই দৈনিক পত্রিকার চ্যালেঞ্জেও প্রবেশ করে মেয়েরা। সংবাদ-এ লায়লা সামাদ এবং মিল্লাত এর মাফরুহা চৌধুরী তাদের অগনিত পুরুষ কমরেডদের হতচকিত করে দিয়ে দিব্যি রিপোর্টিং ও সম্পাদনার কাজ চালিয়ে যেতে থাকেন। খুবই অল্প সময়ের ব্যবধানে এ ধারায় যুক্ত হন মিনা চৌধুরী,হাসি সিদ্দিকা,শামা মঈনুদ্দিন,কামরুন্নাহার লাইলী ও নুরুন্নাহার বেগম। কাজ করতে যেয়ে এদের যে বিবিধ সমস্যা হয়নি তা কিন্তু নয়। মাফরুহা চৌধুরী শুরুতে মিল্লাতে আলাদা কোন বসার জায়গাও পেতেন না। সভা-সমিতি কভার করতে যেয়ে লায়লা সামাদকে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়তে হয়েছে কখনো কখনো। তবে এদের কাউকেই প্রথম থেকে রাতের শিফটে কাজ করতে হয়নি এবং এরা কেউ সাংবাদিকতাকে মূল জীবিকা হিসাবেও নেন নি।
ষাটের দশকে এসে এ পরিস্থিতির পরিবর্তন ঘটে। হাসিনা আশরাফ,নিশাত সাদানী প্রমুখ সার্বক্ষণিকভাবে রিপোর্টারের পেশা বেছে নেন। ঠিক এ সময়ই বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে মেয়েরা সাংবাদিকতায় প্রাতিষ্ঠানিক পড়ালেখা শুরু করেন। ফলে সত্তর দশকে মেয়েদের গণমাধ্যমে কাজের হারও বাড়ে। রিপোর্টার হিসাবে তখন অনেকেই কাজ করেছেন। দৈনিক সংবাদে বেবী মওদুদ,পূর্বদেশ-এ-নার্গিস রফিকা বানু,দি পিপল এ শিরিন রহমান ও শাহিদা হোসেন প্রমুখ।
পেশাদারী মনোভাব নিয়ে সাংবাদিকতায় নারীরা আসতে গুরু করেন ষাটের দশকে। সাংবাদিক বেবী মওদুদের মতে,সাংবাদিকতায় নারীরা যে পেশাদারিত্ব অর্জন করতে সক্ষম হয়েছেন এ ক্ষেত্রে জিনিয়া হোসেন সম্পাদিত ‘ললনা‘র ভূমিকা অগ্রগণ্য। বেবী মওদুদের নিজের সাংবাদিকতা জীবনের শুরু ‘ললনা’ পত্রিকার মাধ্যমে। ললনায় তাঁর সহকর্মী ছিলেন পরবর্তীকালে প্রকাশিত “শিলালিপি;র সম্পাদক মুক্তিযুদ্ধে শহীদ সাংবাদিক কবি সেলিনা পারভীন।
বিভিন্ন সূত্র থেকে যতখানি জানা যায়,দৈনিক পত্রিকার সঙ্গে জড়িত প্রথম মুসলিম বাঙালি নারীর নাম হাজেরা মাহমুদ। তিনি কোলকাতা থেকে প্রকাশিত দৈনিক ইত্তেহাদে কাজ করতেন। লায়লা সামাদ ছিলেন পঞ্চাশের দশকে দৈনিক সংবাদ এর সাংবাদিক। তিনি একটি সাময়িকীর সম্পাদক ও প্রকাশক ছিলেন। বিভিন্ন পত্র-পত্রিকা ও বার্তা সংস্থায় যে নারীরা কাজ করেন তাঁদের মধ্যে সম্ভবত বয়োজ্যেষ্ঠ হচ্ছেন হাসিনা আশরাফ অধুনালুপ্ত ‘দৈনিক বাংলায় সিনিয়র ষ্টাফ রিপোর্টার হিসেবে কর্মরত ছিলেন তিনি। হাসিনা আশরাফ মধ্যঘাটে দৈনিক পাকিস্তান‘র মাধ্যমে তাঁর সাংবাদিকতা জীবনের শুরু করেন। পরে সাংবাদিকতায় জড়িত হয়েছিলেন লায়লা সামাদ,নার্গিস রফিকা বানু,মকবুলা মনজুর, মাফরুহা চৌধুরী আখতান্œবী নাহার বানু,বেবী মওদুদ,কনিকা মাহফুজ মালেকা বেগম প্রমুখ। তাঁদের সবই বর্তমানে আর সাংবাদিকতা পেশায় জড়িত না থাকলেও সাংবাদিকতায় নারীদের অংশগ্রহণের কঠিন দায় পালন করেছিলেন সর্ম্পূন বৈরী এক সময়ে। গণমাধ্যমে নারী মূলত চারটি ধারায় বিন্যাসিত-
 আদর্শ নারী- যেমন সুমাতা,সুগৃহিনী
সুন্দরী নারী-পুরুষের ভালবাসা ও প্রশংসা পাবার জন্যই যাদের জন্ম। কেবল সৌন্দর্য্যই এদের গুণাগুণ বলে বিবেচিত।
সতী নারী-যে তার শরীরকে পর পুরুষের দর্শন ও স্পর্শ থেকে রক্ষা করে চলবে।
নারী দেহজীবিনী- সকল দেহকেন্দ্রিক ব্যবসায় মধ্যমণি এ নারী। বিজ্ঞাপন থেকে পর্নোগ্রাফী সর্বত্রই তার পূজা চলে।
এখন অতিরিক্তও কিছু আছে যা ১৯৯১ এর ২৯ এপ্রিল উপকূলে শতাব্দির ভয়াবহতম ঘূর্ণিঝড় শেষে দেখা গেল পত্রিকার পাতায় বিকৃত লাশের ছবি ছাপার ধুম পড়ে গেছে এবং আরো দেখা গেছে সব ছবিই দুর্যোগে হতভাগ্য নারীদের। জীবিত অবস্থায় যারা কখনো সংবাদ হতে পারেনি মারা যাবার পর তারাই বিবস্ত্র অবস্থায় অবলীলায় উঠে এসেছে সংবাদপত্র পাঠকের খোরাক হিসাবে। ঢাকা এবং জেলা শহরের অধিকাংশ দৈনিক পত্রিকায় এখন সপ্তাহে একদিন মেয়েদের পাতা বেরোয়। ১টি সমগ্র পাতা জুড়ে গণমাধ্যমে নারীর এই আবির্ভাব একেবারেই সাম্প্রতিক। মেয়েদের আলাদা পাতা থাকা উচিত কিনা সাংবাদিক মহলে যদিও এ নিয়ে যথেষ্ট দ্বিধা আছে কিন্তু পাঠক মহলে তা যথেষ্ট আগ্রহ সঞ্চার করেছে বলেই মনে হয়। পুরুষ সাংবাদিকদের মধ্যে নারী পাতার বিরুদ্ধে সাধারণভাবে বক্তব্য হচ্ছে;
প্রথমত-এ যেন নারীর জন্য আলাদা ভূ-খন্ড করে দেয়া।
দ্বিতীয়ত-মহিলা পাতা প্রায়শই মহিলাদের সাহিত্য পাতা হয়ে যায়। যার গুণগত মান নিয়ে প্রশ্ন থাকে। এ সবের উল্টো যুক্তিও আছে। বিশেষতঃ নারী পাতায় এখন যে বিষয়গুলো আসছে সেগুলো নারী পাতায় না থাকলে কোন দিনই সংবাদপত্রের পাতায় আসতো না। কোন কোন ক্ষেত্রে নারী পাতাগুরো নারীর স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে জনমত সৃষ্টিতেও ভুমিকা রাখছে।
তবে অবস্থার পরিবর্তন হচ্ছে ধীরে ধীরে,সাংবাদিতায় নারীদের অংশগ্রহণ বেড়েছে অতীতের যে কোন সময়ের তুলণায়। সম্প্রতি কিছুদিন পূর্বে কয়েকটি প্রধান জাতীয় সংবাদ প্রতিষ্ঠানে অনুসন্ধান চালিয়ে দেখা গেছে ইত্তেফাকে নারী আছেন ১ জন,যিনি মহিলা পাতার দায়িত্বে নিয়োজিত, দৈনিক যুগান্তরে কাজ করছেন ৩ জন, বাসস-এ ২ জন ,ইউএনবিতে ৫জন। তবে ভোরের কাগজ, আজকের কাগজ-এ রিপোর্টিংও করছেন । অযোগ্যতার জন্য যে মেয়েরা কাগজে কিংবা রিপোর্টিং এ কম আসছেন নয়। সুযোগের অভাব ও সামাজিক পরিস্থিতিই এর জন্য দায়ী। একজন মেয়ে সাংবাদিকতা করবেন। সভা-সমিতির ভীড়ে দাঁড়িয়ে নোট নেবেন,পুরুষের পাশাপাশি বসে রাত-বিরাতে কাজ করবেন,আমাদের সমাজ এটা ধীরে ধীরে মেনে নিচ্ছে বটে তবে সহজ হতে পারছেনা।
সম্পাদকীয় বিভাগে বা সহ-সম্পাদক পদে মেয়েদের সুযোগ দিলেও রিপোটিং এ কিছুতেই নিতে চাননা কর্র্তৃপক্ষ। অথচ রিপোর্টিং এ কাজ করেছেন এমন মেয়েদের ভাষ্য হলো-এ কাজে না পারার কিছু নেই। আসলে মূল ইস্যূ সহযোগিতা। মেয়েদের সবসময়ই আন্ডারএষ্টিমেট করা হয়। কোন দায়িত্বপূর্ণ কাজ দেয়া হয়না। কারণ ধরেই নেয়া হয় যে তারা পারবেন না। অথচ এ ধারণার অসারতা মেয়েরা প্রমাণ করেছেন অজস্্রবার। নিশ্চিতভাবেই আগামীতেও করবেন।
কয়েক হাজার বছর ধরে যে শিল্প-সাহিত্য-নাটক তৈরি করেছে পুরুষেরা,তাতে শুধু তাদের দৃষ্টিকোনই প্রতিফলিত হয়েছে। নারীদের যে আরো কিছু বলার আছে,বিকল্প দৃষ্টিকোন আছে এবং তা দিয়ে সমৃদ্ধ করা যেতে পারে শিল্প-সাহিত্যকে,শিল্পের সর্ম্পূনতা অর্জন করা যেতে পারে,এটা সবচেয়ে বড় সংবাদ ও সৃজনশীল অভিজ্ঞতা। দীর্ঘদিন ধরে পুরুষের শিল্পকে বুঝতে নারীরা যে সময় ও মনোযোগ ব্যয় করেছে,প্রেরণার উৎস হয়ে উঠেছে যেভাবে,কখনো প্রতিহিংসা নারীদের দৃষ্টিকে বোঝার জন্য এখনো পুরুষেরা সেই নিষ্ঠা দেখাতে পারেনি। তাই ধর্ষনের দৃশ্যে অভিনেত্রী কখনো ধর্ষিত হয়েছেন কিনা, নারীবাদী কবি সংসারে মনোযোগী কিনা,নারী সাংবাদিক সংসারের রান্নাবান্না কখন করেন,এসব প্রশ্নই নারী শিল্প সৃষ্টি দিকে ধাবিত হয়ে আসে। সবকথা প্রশ্রয় দিলে শিল্প হয়ে ওঠা যায়? ঘরের বাঁধা তো আসেই এমনকি বাইরের জগত থেকেও বাঁধা আসে। বাংলাদেশ নারী সাংবাদিক কেন্দ্রের এক সমাবেশে একজন নারী কবি বলেছিলেন তাঁর আশ্চর্য্য অভিজ্ঞতার কথা। তিনি যখন বাইরে বের হন তাঁর রচিত তাবত পান্ডুলিপি সংরক্ষিত জায়গায় আবদ্ধ করে যেতে হয়। কারণ বাড়ির অন্যান্য সদস্যরা এমনকি তাঁর স্বামী তাঁর অনুপস্থিতি পান্ডুলিপি পড়ে খুজঁতে থাকেন কোন চরিত্রে বাড়ির কেউ আছেন কিনা। তাই এখন তৈরি করে নিতে হবে শিল্পে নতুন জোন্ডার সেনসিটিভ মানদন্ড। নারীকে কবি,শিল্পী,সৃষ্টিশীল হতে হলে শুধু কোথায় কোথায় পুরুষেরা বাদ দিলে বলে চিৎকার করলেই হবেনা,তৈরি করতে হবে নিজেদের নারীকেন্দ্রিক দৃষ্টিকোন ,নারী কেন্দ্রিক নান্দনিকতা। আর নিজেদের লিঙ্গ পরিচয়ের ঘোষণার পাশাপাশি অর্জন করতে হবে মেধা ও দক্ষতার নান্দনিক মুন্সিয়ানাও। ভার্জিনিয়া উলফ,মহাশ্বেতা দেবী,অরদ্বতী রায়কে বাদ দেয়ার সাহস কোন পুরুষের হয়না,নারীও না।
বাড়ি,সংসার,সন্তান,স্বামী,আতœীয় পরিজন থেকে তৈরি হওয়া সাংসারিক প্রত্যাশার চাপ নারীর সৃজন পথে একটি বাঁধা তৈরি করতে পারে। সেই চাপ জোর করে চাপিয়ে দেয়া হতে পারে। না-ও হতে পারে। বিশেষ করে পুরুষ শিল্পী যেভাবে সন্তান স্ত্রী পরিবার-পরিজনের পিছুটান ঝেড়ে ফেলে সৃষ্টিতে ডুবে যেতে পারেন,অধিকাংশ নারী তা পারেনা। সম্প্রতি এক সেমিনারে নবীন এক নারী সাংবাদকর্মী প্রশ্ন রাখলো সংসারে কাজ বা বাধ্যবাধকতা না থাকলে কি আরো অনেক বেশি লিখতে পারতেন? না- এটা আমার মনে হয়না। জীবনের এ-অভিজ্ঞতা,টানাপোড়েনের চ্যালেঞ্জ আরও সৃষ্টিশীল করেছে। হয়তো শ্বাশুড়ির জ্বর হলে আমার লেখায় মনোযোগ আসেনা,হয়তো বাড়িতে অতিথি থাকলে গুরুত্বপূর্ণ সম্মেলনে যাওয়া হয়না। কিন্তু ওই মুহুর্তেগুলো অভিজ্ঞতাও সৃষ্টিশীল রাখে। এভাবে পরিবারের সুখ, টেনশন, সমর্থন,পুরুষ সহকর্মী তাচ্ছিল্য,প্রতিদ্ধন্ধিতা,সহমর্মিতা সহযুদ্ধের সমঝোতা ও শিল্পের টানাপোড়েনের ঘাত-প্রতিঘাতে তৈরি হয় নারীর শিল্প,যা মানবিক হয়েও মানবিক, শিল্পের- অর্ধেক আকাশ।