মঙ্গলবার, ২০শে আগস্ট, ২০১৯ ইং

একটি সুন্দর, স্নিগ্ধ-শান্তির শহরের জন্য প্রার্থনা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ১৩, ২০১৭
news-image

ফারুক মেহেদী ঃ

তখন সম্ভবত অষ্টম শ্রেণিতে পড়ি। দুরন্তপনা, ক্লাস ফাঁকি, স্কুল কামাই করার অভ্যাস কাটতে শুরু করেছে আর কিছুটা মনোযোগ ফিরে এসেছে পড়াশোনায়। আর এসব প্রক্রিয়ার এক পর্যায়ে বুঝতে শুরু করলাম-আমি নিজে কিছু কিছু বানিয়ে লিখতে পারি! সবুজ প্রকৃতি, নিসর্গ ভালো লাগতে শুরু করে। এসব নিয়ে নিজের মত করে লেখার চেষ্টা চলতে থাকে! সবাইকে দেখাই। সামান্য বাহাবা পাই তবে সবাই চায়, যেন মন দিয়ে পড়াশোনাটা করি! ধীরে ধীরে পড়াশোনায় কিছুটা মনোযোগ ফিরে আসে। পেছনের বেঞ্চ থেকে আমার জায়গা হয় সামনে। এক সময় ক্লাসের সেরা ছাত্র। তবে বইয়ের পড়ার চেয়ে আমার মনোযোগ বাড়তে থাকে পত্রিকা, ম্যাগাজিন ও পাঠ্যবই বর্হিভূত লেখায়। বাড়িতে তখন নিয়মিত পত্রিকা আসতো চাচা-জেঠাদের কল্যাণে। আমার সময় কাটতে থাকে পত্রিকার পাতায় চোখ বুলিয়ে। কুমিল্লা থেকে প্রকাশিত সাপ্তাহিক পত্রিকা ফলক নিয়মিত আমাদের বাড়িতে আসতো পোস্ট অফিসের মাধ্যমে। নিউজপ্রিন্টে সেকেলে মুদ্রণযন্ত্রে মুদ্রিত লেখা। কখনও কখনও এসব কাগজে নিজের লেখা কখন ছাপা হবে ইত্যাদি ভাবতে থাকি।
এরপর পত্রিকাই হয়ে উঠে আমার ভালোবাসার নিত্যসঙ্গী। দেশ-বিদেশ, রাজনীতি, অর্থনীতি, শিল্প, সাহিত্য, সংস্কৃতির আদ্যপ্রান্ত চষে বেড়াচ্ছি আমি। এভাবেই প্রবেশ করি কলেজ জীবনে। ভিক্টোরিয়া কলেজের উচ্চ মাধ্যমিক শাখায় রানীর দিঘীর পাড় ঘেষে কমার্স ও আর্টসের ক্লাসরুম। বৃটিশ আমলের পুরনো ভবন। দেখলেই শত বছরের ইতিহাস ঐতিহ্যের রোমাঞ্চকর অনুভূতির শিহরন উঠে মনে! বান্ধবী নূরে আফরোজ জামান চঞ্চুসহ আরও কয়েকজন বন্ধুকে দেখি ওরা কবিতা লিখে! আমিও যে লিখতে পারি তা কাউকে বুঝতে দেই না! দেখি ওরা নিয়মিত তাদের লেখা কবিতা ছাপার অক্ষরে নিয়ে আসে ক্লাসে আর দেখায়। স্থানীয় বিভিন্ন পত্রিকায় ছাপা হওয়া কপি। এক সময় আমিও আমার কবিতা, গল্প বা নিবন্ধ কীভাবে ছাপানো যায় ভাবতে থাকি।
একদিন সাহস করে কলেজের পাশেই একটি পত্রিকা অফিসে যাই। পত্রিকাটির নাম সম্ভবত বাংলাদেশ সংবাদ। কেউ তেমন গুরুত্ব দিলেন না। শুধু ইশারা করে একটি বাক্স দেখিয়ে সেখানে লেখাটি রেখে চলে যেতে বললেন। আমি একটি কবিতা রেখে আসি। রাতে আর ঘুম হয় না! ইস যদি কবিতার পাশে নিজের নামটি ছাপা অক্ষরে দেখতাম! একদিন পর সকাল সকাল পত্রিকাটি সংগ্রহ করি। দেখি আমার লেখাটি সত্যিই ছাপা হয়েছে! আহা…আমার লেখা! এরপর নিয়মিতই লেখা দিয়েছি এবং ছাপাও হয়েছে। এভাবে কুমিল্লার বিভিন্ন স্থানীয় পত্রিকায় আমার লেখা ছাপা হতে শুরু করে। এর কিছুদিন পর চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রকাশিত মাসিক একটি ক্যাম্পাস পত্রিকায় লেখার সুযোগ পাই। সেখানে মূলত কলেজের বিভিন্ন ঘটনার ফিচার লিখতাম। পোস্ট অফিসের মাধ্যমে কপি আসতো। মাসভর অপেক্ষায় থাকতাম কবে আসবে পত্রিকাটি। এভাবেই পত্রিকায় জড়িয়ে পড়ার ঘটনা আমার। এরপরতো ঠিকই করে ফেললাম, সংবাদপত্রের সাথেই থাকবো। বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে একাডেমিক পড়াশোনার চেয়ে বেশি ব্যস্ত ছিলাম শিল্প, সাহিত্য, সংস্কৃতিচর্চা ও সংবাদপত্র নিয়েই। বিভিন্ন জাতীয় সংবাদপত্রে জড়িয়ে পড়লাম। তখন ভোরের কাগজ থেকে প্রথম আলোই হলো বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে আমার স্থায়ী গন্তব্য! সেই থেকে সাংবাদিকতাই আমার পেশা, নেশা ও ভালোবাসা।
কুমিল্লায় অনেক পত্রিকার ভিড়ে আরও একটি পত্রিকার অভিযাত্রা শুরু হচ্ছে। এমন সময়ে ভাবছি সংবাদপত্র নিয়েই লিখবো। আর তাই এসব ঘটনার অবতারনা। কুমিল্লার কথা শুনলেই মনটা যেন কেমন করে! আমার ছেলেবেলার কুমিল্লা। স্নিগ্ধ, সুন্দর ছিমছাম শহর। চারদিকে গাছগাছালি। বহু দেশে, বহু শহরে ঘুরেছি। লন্ডন, নিউইয়র্কসহ বহু আধুনিক নগর! কেন যেন আমার কাছে এই শহরই সেরা! হয়তো উন্নত দেশের শহরের মত চাকচিক্য নেই, তারপরও এখানে আছে মায়ার টান! এটা আবেগের কথা নয়; মন থেকেই বলছি, যতো শহরেই ঘুরেছি, ওইসব জায়গা ঘুমিয়েছি, তখনও মনে পড়েছে আমার কান্দিরপাড়, ঠাকুরপাড়া, ধর্মসাগরপাড়, রানীর দিঘী, পার্ক রোডের কথা। কলেজে পড়ার সময় নানুয়ার দিঘী, ধর্মসাগরে কত গোসল করেছি। সাইকেল নিয়ে পুরো শহর চষে বেড়িয়েছি। বিকেলে টাউনহলে হয় কবিতার আসর, না হয় নাটক-সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করতাম! অনেক শিল্প সাহিত্যের সংগঠন ছিলো। তখন রিক্সাই ছিল প্রধান বাহন। এখনকার মত অটো নামের লোহার জঞ্জাল ছিলনা। এখন যখন এই শহরে যাই তখন অটোর অত্যাচার, জ্যামের যন্ত্রণা সংকীর্ণ রাস্তা বেশ বিরক্তি উৎপাদন করে। তখনও ভাবি, এই শহর পুরো জৌলুস হারায়নি। একে আমরা নিজেরাই নষ্ট করছি! আমরা যারা বিভিন্ন স্তরে, বিভিন্ন দায়িত্বে আছি তারাই কুমিল্লাকে নষ্টের জন্য দায়ী! আমরা সাংবাদিক, রাজনীতিবিদ, চিকিৎসক, শিক্ষক, সংস্কৃতিকর্মী, ব্যবসায়ি-শিল্পপতি, আইন-শৃংখলারক্ষাকারী বাহিনী, সাধারন নাগরিক কেউই আমরা আমাদের দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করিনি বলেই ক্রমেই কুমিল্লা তার গৌরব হারাচ্ছে!
এরই মধ্যে কুমিল্লা শহর সিটি করপোরেশনে উন্নীত হয়েছে। কুমিল্লায় বিশ্ববিদ্যালয় হয়েছে। শহরের মুখে ফ্লাইওভার হচ্ছে। ভবনের পর ভবন হচ্ছে। গলির মুখে মুখে স্কুল-কলেজ বসছে। আধুনিক সুযোগ সুবিধার বিশাল বিশাল শপিংমল, হাসপাতাল-ক্লিনিক, সুপারশপ, ব্র্যান্ডের আউটলেট কত কিছু যে হচ্ছে! সব কিছুতেই পোষাকি পরিবর্তন। এই যেমন সিটি করপোরেশনের তকমা পেয়েও নাগরিক সেবার প্রসার ঘটেনি এখানে। রাস্তা প্রশস্ত হয়নি, অথচ অপরিকল্পিতভাবে রাস্তায় নামানো হয়েছে হাজার হাজার অটোরিক্সা! আবার এ রাস্তাকে কিভাবে ব্যবহার করবে তারও কোনো নির্দেশনা বা নজরদারি নেই। এখানে সিটি করপোরেশন বা আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর ভূমিকাও প্রশ্নবিদ্ধ। একটু বৃষ্টি হলেই শহরজুড়ে জলাবদ্ধতা। সুন্দর সুন্দর শপিংমল; অথচ গাড়ি পার্কিংয়ের পর্যাপ্ত স্পেস নেই। সংকীর্ণ রাস্তার উপরে গাড়ি পার্কিং এর ফলে দিনভর যানজট। স্কুল-কলেজের ছড়াছড়ি; অথচ এসব প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার গুণগত মান নেই আগের মত! মানোন্নয়নের বিষয়টি যারা তদারকি করবেন-তারাও কি ঠিকমত দায়িত্ব পালন করছেন? হাসপাতাল-ক্লিনিক আছে অসংখ্য। গরিব দরিদ্র মানুষ কাংখিত সেবা পাচ্ছেন না। অথচ তাদের পকেট কাটা হচ্ছে। অনেক ক্ষেত্রে বেশি টাকা দিয়ে ট্রিটমেন্ট পাচ্ছেন না উল্টো রোগি মারা যাওয়ার ঘটনাও ঘটছে। এসব দেখার জন্য সিভিল সার্জন অফিস থাকলেও তারা কতটা উপযুক্ত দায়িত্ব পালন করছেন? আমরা যারা শহর ছেড়ে দুরে থাকি, তাদের মনে এই প্রশ্ন অবিরাম।
এবার আসি সংবাদপত্রের দিকে। কুমিল্লায় সংবাদপত্রের সংখ্যাও কম নয়। আগে যেমন হাতেগোনা পত্রিকা ছিল; এখন তার কয়েকগুণ। অনেকে বলেন ব্যাঙের ছাতার মত এখন পত্রিকা হচ্ছে কুমিল্লায়। আগের পত্রিকাগুলো আমাদের আবেগের জায়গা দখল করে আছে! তখন হয়ত ছাপা ভালো ছিলনা, সনাতন প্রেসে বাজে মুদ্রণ ব্যবস্থায় বের হতো ওইসব পত্রিকা। ছিল সবচেয়ে কম দামি নিউজপ্রিন্ট। তারপরও লেখায় ও মেকআপে একটা মান ছিল। শিল্প, সাহিত্য, সংস্কৃতিচর্চার সাথে জড়িতরাই পত্রিকা করতেন। মানুষের অধিকার নিয়ে যারা সোচ্চার থাকতেন, দেশ বিদেশ নিয়ে ভাবতেন, পড়াশোনা করতেন তারা লিখতেন। আজ অনেক পত্রিকা হয়েছে, আধুনিক মুদ্রণযন্ত্রে ছাপা হচ্ছে সবচেয়ে দামী ও উন্নত কাগজে! অথচ বেশিরভাগ পত্রিকাই মানোত্তীর্ন হতে পারছে না। অনেকে পত্রিকা বের করছেন রাজনৈতিক হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করার জন্য। এর বিরুদ্ধে তার বিরুদ্ধে লেখার জন্য। বেশিরভাগ পত্রিকা প্রতিদিন রাজনৈতিক নেতাকর্মীরা কে কোথায় বক্তৃতা দিলেন, কে কোন নেতার পাশে বা সামনে-পিছনে দাড়িয়ে ছিলেন এসব ছবি ছাপার জন্য ব্যবহার হচ্ছে। কেউ আবার ওমুক ভাই তমুক ভাইকে শুভেচ্ছা-ভালোবাসা জানানোর জন্য ছবি ছাপেন ওই সব পত্রিকায়। নিউজের বদলে ব্যক্তির প্রচার! সংবাদ খুঁজে পেতে মাইক্রোস্কোপ প্রয়োজন হবে-এমন অবস্থা!
কেন আজকে কুমিল্লার বেশিরভাগ পত্রিকার এই হাল? আমি বহুবার নিজে নিজে এ প্রশ্নের উত্তর খোঁজার চেষ্টা করেছি। উত্তরটা কঠিন নয়। তারপরও এক ধরনের হতাশা কাজ করে আমার। এত সুন্দর, স্নিগ্ধ একটি শহর; যা ইতিহাস, ঐতিহ্য, শিক্ষা-সংস্কৃতিতে এত সমৃদ্ধ, অথচ এখানের পত্রিকাগুলো ঠিকমত মান বজায় রেখে বের হচ্ছে না। যা তা ছাপা হচ্ছে। কোনো বাছ বিচার নেই। কোনো অনুসন্ধানী প্রতিবেদন নেই।
কেন সিটি করপোরেশন ঠিকমত দায়িত্ব পালন করছে না, সেবার মান বাড়ছে না, বরাদ্দের টাকা কোথায় খরচ হয়, কত টাকা কোন কোন খাতে খরচ হলো, এর সুফল নাগরিকরা পাচ্ছে কিনা-কুমিল্লার বেশিরভাগ পত্রিকায় এসব প্রশ্নের জবাব নেই। কুমিল্লার মানুষের আয় বেড়েছে, সুন্দর সুন্দর ফ্ল্যাট হচ্ছে, শপিংমল হচ্ছে অথচ রাস্তা প্রশস্ত হচ্ছে না কেন, পাকিংয়ের পর্যাপ্ত স্পেস নেই কেন, অসংখ্য স্কুল-কলেজ হচ্ছে অথচ শিক্ষার মান বাড়ছে না কেন, এসব প্রতিষ্ঠানে শিল্প-সংস্কৃতি চর্চা হচ্ছে না; ছাত্ররা কিশোর অপরাধে জড়াচ্ছে অথচ পত্রিকাগুলোতে এ বিষয়ে সচেতনতামূলক প্রতিবেদন দেখছি না।
খাবারে ভেজাল, পণ্যের অস্বাভাবিক দাম, ভুল চিকিৎসা, অনিয়ম, দুর্নীতির উল্লেখ করার মত প্রতিবেদন নেই কুমিল্লার বেশিরভাগ সংবাদপত্রে। অথচ মানুষ এসবই চায়। তারা চায়, প্রতিদিন তারা যে ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন, এসব খবর ছাপা হোক পত্রিকায়। এ চাওয়া আমারও। একটি পত্রিকা যদি অন্তত সত্যিকার অর্থে মানুষের ইচ্ছের প্রতিফলন ঘটায়-আমার বিশ্বাস ওই পত্রিকাকে ভালোবেসে আপন করে নেবেন পাঠকরা।
কুমিল্লায় এমন একটি পত্রিকা হয়ে উঠার সুযোগ আসছে সামনে। আজকের কুমিল্লা নামের যে পত্রিকাটি আসছে আমার বিশ্বাস তা মানুষের কথা বলবে। অনিয়ম দুর্নীতির বিরুদ্ধে সোচ্চার হবে। ওমুক নেতা তমুক নেতার প্রচারপত্র হবে না। জনপ্রিয়তাই হবে পত্রিকাটির আসল শক্তি। জনপ্রিয়তাই পত্রিকাটির বাণিজ্যিক মূল্য এনে দেবে। একটি ভালো সংবাদই হবে পত্রিকাটির শিরোনাম। কুমিল্লা সত্যিকার অর্থে হারানো গৌরব ফিরে পাবে, পরিকল্পিত নগরে পরিনত হবে এমন সব খবরে ভরে থাকবে নতুন সংবাদপত্রটি এমনই আশা আমাদের। যদি তাই হয় তবে দুরে থাকলেও প্রিয় কুমিল্লার কথা ভেবে আরও বেশি উজ্জিবিত হবো আমরা। শৈশবে যে সংবাদপত্র দেখে আবেগি হতাম, অনুপ্রেরনা পেতাম; কামনা করি নতুন পত্রিকা এমনই অনুরাগ জাগাবে মনে। একটি সুন্দর, স্নিগ্ধ-শান্তির শহরের জন্য প্রার্থনা একটি পত্রিকার কাছে! সত্যিকারের একটি পত্রিকাই হতে পারে একটি শহর বদলে দেয়ার হাতিয়ার! আজকের কুমিল্লার কাছে এই চাওয়া এবং শুভ কামনা।

ফারুক মেহেদী:
লেখক-সাংবাদিক
বিজনেস এডিটর
চ্যানেল টোয়েন্টিফোর