সোমবার, ২০শে জানুয়ারি, ২০২০ ইং

২০১৯ সালে কেমন ছিল কুমিল্লার রাজনীতি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জানুয়ারি ৫, ২০২০
news-image

০ কুমিল্লা পেয়েছে দুই মন্ত্রী ০ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে দলীয় কোন্দলে পরাজিত সীমা হলেন এমপি ০ মন্ত্রীত্ব পাননি সাবেক রেলপথমন্ত্রী মুজিব ০ হাজী ইয়াছিন ও মেয়র সাক্কুর মধ্যে দ্বন্দ্ব বেড়েই চলেছে ০ অর্থমন্ত্রীসহ ৩ ভাই আ’লীগের ৩ ইউনিটের সভাপতি ০ বরুড়ায় এমপি-উপজেলা চেয়ারম্যান গ্রুপে দ্বন্দ্ব চরমে ০ জাহাঙ্গীর আলম সরকারের স্বপ্ন ভঙ্গ ।

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতুঃ
রাজনৈতিক সফলতা-ব্যর্থতায় ২০১৯ সালটি কুমিল্লার জন্য গুরুত্বপূর্ণ ছিল। আ’লীগের ক্ষমতা দিন দিন বৃদ্ধি পেলেও অর্ন্তকোন্দল আর হাইব্রীডের উপস্থিতি ছিল লক্ষ্যণীয় অপরদিকে বিএনপি ছিল ফটোসেশনে ব্যস্ত।

বছরের শুরুতে ৬ জানুয়ারি কুমিল্লাবাসি পেয়েছে দুই প্রভাবশালী মন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ সরকারের নতুন মন্ত্রিসভায় অর্থমন্ত্রীর দায়িত্ব পান বর্তমান পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল। তিনি কুমিল্লা-১০ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী নৌকা প্রতীকে ৪ লাখ ৫ হাজার ২৯৯ ভোট পেয়ে চতুর্থবারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। কুমিল্লা-৯ (লাকসাম-মনোহরগঞ্জ) আসনে আওয়ামী লীগ থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য মোঃ তাজুল ইসলাম নতুন মন্ত্রিসভায় স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় (এলজিআরডি) মন্ত্রীর দায়িত্ব পান।
পরপর দুইবার রেলপথের মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করলেও এবার কোন মন্ত্রীত্ব পেলেন না চৌদ্দগ্রাম আসনের সাংসদ মুজিবুল হক মুজিব। এ নিয়ে নেতাকর্মীদের মাঝে হতাশা বিরাজ করে। মন্ত্রীত্ব না পেলেও তিনি প্রতি সপ্তাহেই এলাকায় এসেছেন নেতাকর্মীদের সাথে দেখা করেছেন। সভা-সমাবেশ করেছেন।

পরপর দুইবার কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে দলীয় অর্ন্তকোন্দলের জন্য প্রবীণ রাজনীতিবিদ অধ্যক্ষ আফজল খান ও আনজুম সুলতানা সীমা পরাজিত হন বলে অভিযোগ রয়েছে। অনেকে ভাবতে শুরু করেন এ পরিবারের রাজনীতি হয়তো শেষের পথে। বর্তমান সরকার পুনরায় ক্ষমতায় আসার পর প্রধানমন্ত্রী সংরক্ষিত নারী আসনের সাংসদ হিসেবে আনজুম সুলতানা সীমার নাম ঘোষণা করেন। ফলে আবার চাঙ্গা হয়ে উঠে এ পরিবার।

কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হাজী আমিন উর রশীদ ইয়াছিন ও কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মনিরুল হক সাক্কু সমর্থিত বিএনপি গ্রুপের মধ্যে অর্ন্তকোন্দল দিন দিন আরো চাঙ্গা হচ্ছে। যার ফলে জেলা বিএনপির কার্যক্রম মূলত ফটোসেশনেই সীমাবদ্ধ ছিল। হাজী ইয়াছিন সমর্থিত মহানগর ও জেলা বিএনপি রাজপথে তেমন কোন দলীয় সাংগাঠনিক কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারেনি। তাদের বেশিরভাগ কার্যক্রম, মিটিং-সমাবেশ বাদুরতলার হাজী ইয়াছিনের অফিসের সামনের উঠোনেই হয়েছে। তাদের দাবি, প্রশাসনের অনুমতি না পাওয়ায় তারা এখানে করেছে তাদের সাংগাঠনিক কার্যক্রম। অপরদিকে কুসিক মেয়র কুমিল্লা টাউনহলের অডিটোরিয়ামে কয়েকটি প্রোগ্রাম করেছে। ফলে কুমিল্লা বিএনপি এখন দুভাগে বিভক্ত। ৪ ফেব্রুয়ারি কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হাজী আমিন উর রশীদ ইয়াছিনকে ছেড়ে কুসিক মেয়র মহানগর বিএনপি নেতা মনিরুল হক সাক্কুর গ্রুপে যোগদান করেন প্রায় পাঁচ শতাধিক মহানগর ছাত্রদল, যুবদল ও স্বেচ্ছাসেবকদলের নেতাকর্মী। নগরীর কান্দিরপাড়ের বিএনপি দলীয় কার্যালয়ে মেয়র সাক্কুর হাতে ফুলের তোড়া দিয়ে যোগদান করেন নেতাকর্মীরা। এ সময় মেয়র সাক্কুর ভাই এড.কাইমুল হক রিংকু, মহানগর বিএনপি নেতা আব্দুর রউফ চৌধুরী ফারুক, মহানগর বিএনপি নেতা আবুল হোসেন, মহানগর যুবদলের সাধারণ সম্পাদক ইউসুফ মোল্লা টিপু প্রমুখ।

বরুড়ায় এমপি নজরুল ও উপজেলা চেয়ারম্যান মঈনুল গ্রুপ বছরজুড়ে অর্ন্তকোন্দল ও সংঘর্ষে লিপ্ত ছিলঃ
বরুড়াতে সাংসদ নাছিমুল আলম চৌধুরী নজরুল এমপি হওয়ার পর বরুড়ার সাবেক সাংসদ মরহুম আব্দুল হাকিমের ছেলে মঈনুল ইসলাম উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। এরপরই ক্ষমতার আধিপত্য নিয়ে অর্ন্তকোন্দলে জড়িয়ে পড়েন এমপি নজরুল ও উপজেলা চেয়ারম্যান মইনুল ইসলাম গ্রুপ। বছরজুড়েই তারা অর্ন্তকোন্দল আর সংঘর্ষে জড়িত ছিল। যেমন- ২৩ মার্চ সন্ধ্যায় বরুড়া উপজেলা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে ৮ জন আহত হন। এসময় একটি মার্কেট ও ৫টি মোটরসাইকেলে অগ্নিসংযোগ করে হামলাকারীরা। সংঘর্ষকালে উভয় গ্রুপ অর্ধশতাধিক রাউন্ড গুলিবর্ষণ করে। এসময় গোটা উপজেলা সদরে সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে এবং আতংকে সকল দোকানপাট বন্ধ হয়ে যায়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ লাঠিচার্জ করে। ৩১ জুলাই বরুড়ায় টেন্ডার জমা দেওয়াকে কেন্দ্র করে আওয়ামীলীগের অফিসে এক গ্রুপের (নজরুল গ্রুপ)উপর উপজেলা চেয়ারম্যান সমর্থকেরা হামলা চালিয়ে জানালা ভাংচুর করে। ২১ জুলাই ‘অস্থায়ী গবাদি পশুর হাট বরুড়া উপজেলা” শিরোনামে দরপত্রের আহ্বান করা হয়। উক্ত দরপত্র থানা, উপজেলা, সোনালী ব্যাংক ও কুমিল্লা ডিসি অফিসে বিক্রি করা হয়। ৩০ জুলাই বিক্রি শেষ হয়। ৩১ জুলাই বেলা ১ টার দিকে টেন্ডার জমার দেওয়ার শেষ সময় নির্ধারিত করা হয়। এরই সূত্র ধরে সকাল ৯ টার দিকে বরুড়া উপজেলা চেয়ারম্যান মঈনুল ইসলামের সমর্থকরা উপজেলার ভেতর ও গেইটে অবস্থান নেয়। এসময় এমপি নজরুল গ্রুপের নেতাকর্মীদের কাউকে উপজেলা পরিষদে প্রবেশ করতে দেয়নি। সকাল ৯ টা থেকে বেলা ২ টা পর্যন্ত চেয়ারম্যান মইনুল গ্রুপের সমর্থকেরা দেশী অস্ত্র ও লাঠি সোটা নিয়ে উপজেলা গেইটে অবস্থান নেয়। এসময় তারা প্রায় ৩০ টিরও অধিক ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে জনমনে আতঙ্ক সৃষ্টি করে। বছরের শেষের দিকে ৭ ডিসেম্বর বরুড়ায় একই স্থানে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের সম্মেলন ডাকা নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে। এতে এক পুলিশ সদস্যসহ দুই গ্রুপের অন্তত ১০ জন নেতাকর্মী আহত হন। বরুড়া পৌরসভার কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠ এলাকায় এসব ঘটনা ঘটে। এদিকে, দুই গ্রুপের পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি ঘোষণায় সম্মেলনস্থলে ১৪৪ ধারা জারি করে উপজেলা প্রশাসন। পরে পাল্টাপাল্টি কমিটি ঘোষণা করে।

অর্থমন্ত্রীসহ ৩ ভাই আ’লীগের ৩ ইউনিটের সভাপতি, কমিটি নিয়ে ক্ষোভ ঃ
কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা, জেলার সদর দক্ষিণ উপজেলা ও সদ্য গঠিত লালমাই উপজেলা এই তিন ইউনিটের আওয়ামীলীগের সভাপতি হলেন অর্থ মন্ত্রী লোটাস কামালসহ তারা আপন তিন ভাই। এর মধ্যে আবার বড় ভাই জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও ছোট ভাই জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি হিসেবেও আছেন।

আবার সদর দক্ষিণ উপজেলার চেয়ারম্যানও ছোট ভাই গোলাম সারওয়ার। আর লালমাই উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন অর্থ মন্ত্রীর ব্যক্তিগত কর্মকর্তা রতন সিং। এছাড়া এই দুই উপজেলার কমিটিতে আরো ৬ পরিবারের সদস্য আছেন দুই জন করে। একই পরিবারের দখলে দলের সর্বোচ্চ এতগুলো পদ হওয়ায় দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

তবে সরকারের প্রভাবশালী মন্ত্রী ও জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি হওয়ায় এহেন সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে মুখ খুলছে না কেউ। কেন্দ্রীয় নেতাদের অনুপস্থিতিতে এমন কি জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের অনুপস্থিতিতে হঠাৎ করে ডেকে সম্মেলন নাম দিয়ে অর্থ মন্ত্রীর দুই ভাই তার নির্বাচনী এলাকা সদর দক্ষিণ ও লালমাই উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি হন।
যদিও মন্ত্রীর দুই ভাই লালমাই উপজেলা আওয়ামীলীগের প্রথম সভাপতি আবদুল হামিদ ও সদর দক্ষিণ উপজেলার সভাপতি গোলাম সারওয়ার বলেছেন, আমরা দুই ভাই আওয়ামীলীগের সভাপতি হতে চাইনি। মন্ত্রী মহোদয়ও এতে রাজি ছিলেন না। এলাকার নেতাকর্মীদের চাপে আমরা দলীয় পদ নিতে বাধ্য হয়েছি। তাছাড়া যোগ্যতা থাকলে তো আর কোন সমস্যা থাকার কথা না।
জানা যায়, গত ৭ সেপ্টেম্বর সম্মেলন করে লালমাই উপজেলা আর ১৬ সেপ্টেম্বর একই ভাবে সম্মেলন করে সদর দক্ষিণ উপজেলা। সেই সম্মেলনে লালমাই উপজেলার আওয়ামীলীগের সভাপতি হন অর্থ মন্ত্রী ও জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আহম মোস্তাফা কামাল ওরফে লোটাস কামালের বড় ভাই আবদুল হামিদ আর সাধারণ সম্পাদক হন মন্ত্রীর এপিএস রতন কুমার সিং। আর ১৬ সেপ্টেম্বর কতিথ সম্মেলনে সদর দক্ষিণ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি হন উপজেলা চেয়ারম্যান ও মন্ত্রীর আপন ছোট ভাই গোলাম সারওয়ার।

সম্মেলনে কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের কোন কেন্দ্রীয় নেতা উপস্থিত ছিলেন না। এমন কি ছিলেন না কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও অর্থ মন্ত্রী লোটাস কামাল এমপি ও সাধারণ সম্পাদক মজিবুল হক মুজিব এমপি।

লালমাই উপজেলা ও সদর দক্ষিণ উপজেলা আওয়ামীলীগের এই সম্মেলনে প্রধান অতিথি ছিলেন কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবদুল মমিন মজুমদার।
এ বিষয়ে লালমাই উপজেলা আওয়ামীলীগের প্রথম সভাপতি আবদুল হামিদ বলেছেন, আমরা দুই ভাই আওয়ামীলীগের সভাপতি হতে চাইনি। মন্ত্রী মহোদয়ও এতে রাজি ছিলেন না। এলাকার নেতাকর্মীদের চাপে আমরা দলীয় পদ নিতে বাধ্য হয়েছি। তাছাড়া যোগ্যতা থাকলে তো আর কোন সমস্যা থাকার কথা না।

কুমিল্লা উত্তর জেলা আ’লীগের দায়িত্ব পেলেন রুহুল আমিন ও রোশন আলীঃ
১০ ডিসেম্বর কেন্দ্র থেকে কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের কমিটির সভাপতি পদে ম. রুহুল আমিন ও সাধারণ সম্পাদক পদে রোশন আলী মাস্টারের নাম ঘোষিত হয়। সোমবার (৯ ডিসেম্বর) দুপুরে চান্দিনা মহিলা বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ মাঠে অনুষ্ঠিত কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। ওই সম্মেলনে কমিটি ঘোষনা না করেই ঢাকা ফিরে যান কেন্দ্রীয় নেতারা। বেলা সাড়ে ১১টায় জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে সম্মেলনের উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি শেখ সেলিম এমপি। প্রথম অধিবেশন শেষে দুপুরের খাবারের বিরতির পর দ্বিতীয় অধিবেশন আর হয় নি। কোন কমিটি ঘোষণা ছাড়াই সম্মেলন স্থল ত্যাগ করেন কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ।

সকাল ৯ টার দিকে দেবিদ্বার আসনের সাংসদ রাজী ফখরুল মুন্সি ও কুমিল্লা উত্তর জেলা আ’লীগের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম সরকারের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। বেশ ঘন্টাব্যাপি চলে এ সংঘর্ষ। এদিকে কমিটি ঘোষিত হয়ে যাওয়ায় এবার উত্তর জেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক হওয়ার স্বপ্ন পূরণ হলো না প্রবীণ আ’লীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলম সরকারের। যদিও তাঁর সন্তান আহসানুল আলম সরকার কিশোর মুরাদনগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।

সদর সাংসদ হাজী আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহারের মেয়ে ও সাবেক নৌ পরিবহনমন্ত্রী শাহজাহান খান এমপির ছেলের বিবাহোত্তর সংবর্ধনায় কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র বিএনপির প্রভাবশালী নেতা মনিরুল হক সাক্কু ফুলের তোড়া দিয়ে সেতুমন্ত্রী ও আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এমপি শুভেচ্ছা জানান। আর সেই ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় বেশ সাড়া ফেলে।

আর পড়তে পারেন