রবিবার, ২৫শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

১ মাসের মধ্যে লালমাইয়ে চাঞ্চল্যকর শিশু শাহ পরান হত্যার রহস্য উন্মোচন, ঘাতক গ্রেফতার

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ১৫, ২০২০
news-image

স্টাফ রিপোর্টার:
কুমিল্লার লালমাই উপজেলার চাঞ্চল্যকর শিশু শাহ পরান হত্যার ক্লুলেস রহস্য উন্মোচন করে প্রধান ঘাতক নুর উদ্দিন ওরফে নুরুসহ (২১) অন্যান্য আসামিদের গ্রেফতার করেছে কুমিল্লা জেলা পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) সকালে জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে সংবাদ সম্মেলন করে এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন অতি: পুলিশ সুপার (অর্থ ও প্রশাসন) আজিম উল আহসান। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন অতি: পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) তানভীর সালেহিন ইমন।

গ্রেফতার হওয়া আসামিরা হলেন,কুমিল্লার লালমাই উপজেলার বাগমারা দক্ষিণ ইউনিয়ন পরিষদের জয়নগর গ্রামের দুধু মিয়ার ছেলে নুর উদ্দিন ওরফে নুরু(২১), একই উপজেলার নাগরীপাড়ার ছিদ্দিকুর রহমানের ছেলে মোঃ মহিদ উল্লাহ ওরফে শহিদ (৩৫), ভুলইন গ্রামের আবুল হাশেমের ছেলে গোলাপ হোসেন (৩০) ও লাকসাম উপজেলার উত্তর লাকসাম গ্রামের সামছুল হকের ছেলে নাছির উদ্দিন (৩২)।

সংবাদ সম্মেলনে অতি: পুলিশ সুপার (অর্থ ও প্রশাসন) আজিম উল আহসান জানান,লালমাই উপজেলার বড় চলুন্ডা ব্র্যাক স্কুলের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র বেতাগাঁও গ্রামের শাহ পরান (১৩) তার বড় ভাই শাহাদাতের ৪ ব্যাটারি চালিত মিশুক গাড়িটি চালাতো। চলতি বছরের ১১ সেপ্টেম্বর সকাল সাদে ১০ টায় মিশুক অটোরিক্সা গাড়িটি নিয়ে বাগমারা বাজারে যায়। এরপর আর বাড়িতে ফিরে আসেনি। তার পিতা-মাতা চারদিকে খোঁজ নেয়, মাইকিং করে। পরদিন বিকেল ৪ টায় লাইমাইয়ের বাগমারা দক্সিণ ইউনিয়নের জয়নগর পশ্চিম পাড়ার ডাকাতিয়া নদীর দক্ষিণ পাড়ের ঢালুতে ঝোঁপের মধ্যে হাত-পা ও গলায় দড়ি দিয়ে বাঁধা অবস্থায় শিশু শাহ পরানের মরদেহ পাওয়া যায়। এ ঘটনায় নিহতের পিতা আব্দুল মালেক বাদি হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামির বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করা হয়। এরপর পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম বিপিএম(বার) পিপিএম নিজেই সার্বক্ষনিক তদারকিসহ সার্বিক দিক নির্দেশনা প্রদান করে লালমাই থানার ওসি মোহাম্মদ আইয়ুব এর নেতৃতত্বে একটি টিম গঠন করে হত্যাকান্ডের রহস্য উন্মোচনে কাজ শুরু করে। বাগমারা থেকে লাকসাম পর্যন্ত ১৩ টি সিসি টিভির ক্যামেরার প্রতিটির ৩২ ঘন্টা করে ফুটেজ বিশ্লেষন করা হয়। লাকসামের ২টি সিসি টিভির ক্যামেরায় ৫ সেকেন্ডের ভিডিও ফুটেজে মুখে মাস্ক পড়া ২০/২২ বছরের এক যুবককে ছিনতাই হওয়া মিশুক অটোরিক্সা একটি শিশু বাচ্চাসহ চালাতে দেখা যায়। এরপর নিবিড় বিশ্লেষনের মাধ্যমে সন্দেহভাজন খুনি ও ছিনতাইকারির শরীরের গঠন,জামা, পায়ের স্যান্ডেল পর্যবেক্ষণ ও প্রযুক্তির সহায়তা নিয়ে ঘাতক নুরুকে ১৪ অক্টোবর গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার হওয়ার পর ঘাতক নুরু পুলিশকে জানায়, ১১ সেপ্টেম্বর বেলা ১১ টার দিকে নুরু তার সহযোগিসহ বাগমারা বাজার থেকে ৬০ টাকা ভাড়ায় ভিকটিমের মিশুকটি গাড়িটি নিয়ে জয়নগর যাওয়ার কথা বলে ভাবকপাড়ায় গিয়ে একটি দোকান থেকে ১০ টাকার দড়ি কিনে শিশু শাহ পরানকে নির্জন ডাকাতিয়া নদীর পাড়ের ঝোপের মধ্যে নিয়ে হাত-পা দড়ি দিয়ে বেধে ও গলায় দড়ি পেঁচিয়ে হত্যা করে লাশটি ঝোপের মধ্যে ফেলে গাড়ি নিয়ে লাকসাম চলে যায়। লাকসাম জংশনের মিস্ত্রি পাড়ার ভাঙ্গারী দোকানদার গোলাপ হোসেনের কাছে ১৫ হাজার টাকায় মিশুক গাড়িটি বিক্র করে। দোকানদার গোলাপ আবার সেই গাড়িটি লাকসামের নাছির উদ্দিনের কাছে বিক্রি করে। এই দোকানদারকেও পুলিশ গ্রেফতার করেছে। সেই সাথে মিশুক গাড়িটি চৌদ্দগ্রাম থেকে উদ্ধার করা হয়েছে।

আর পড়তে পারেন