বৃহস্পতিবার, ২৯শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

১০ দফা দাবিতে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের আন্দোলন

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ২৮, ২০১৯
news-image

ডেস্ক রিপোর্ট :

১০ দফা দাবিতে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্দোলন চলছে। আন্দোলনের তৃতীয় দিনে ভিসিকে অবাঞ্চিত ঘোষণা করেছে শিক্ষার্থীরা। তারা সকাল থেকে ক্যাম্পাসে জড়ো হয়ে ভিসির পদত্যাগসহ নানা দাবিতে শ্লোগান দিয়ে আন্দোলন চালিয়ে যায়।

এর আগে বুধবার গভীর রাতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন শিক্ষার্থীদের লাগাতার আন্দোলনের ফলে সকল কার্যক্রম অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করে। বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল হলের আবাসিক ছাত্র-ছাত্রীদের বৃহস্পতিবার বিকাল ৫টার মধ্যে হল ত্যাগের নির্দেশ দেয়। এর প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে ভিসির পক্ষ থেকে বিজ্ঞপ্তি প্রদানকারীদের ‘দালাল’ উল্লেখ করে শ্লোগান দিতে থাকে শিক্ষার্থীরা। দুপুর ১২টার দিকে সংবাদ সম্মেলনে কোনো হল ছেড়ে একজন ছাত্র-ছাত্রী যাবে না বলে ঘোষণা দেয় শিক্ষার্থীরা।

এর প্রেক্ষিতে কোনো অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটলে তার সম্পূর্ণ দায়ভার বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে নিতে হবে বলে জানায় আন্দোলনরতরা।

তারা বলে,‘দ্বিধাহীন চিত্ত ও স্পষ্ট ভাষণে বলতে চাই- এই স্বাধীনতাবিরোধী উপাচার্যকে অবশ্যই তার বক্তব্যের জন্য প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইতে হবে। তার বক্তব্য প্রত্যাহার করতে হবে। তাকে পদত্যাগ করতে হবে। অন্যথায় ছাত্র আন্দোলনের তীব্রতায় তিনি পালানোর পথ পাবেন না।’

শিক্ষার্থীরা বলে, ‘গত ২৬ মার্চ ভিসি ডিবেট সোসাইটির একটি অনুষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের ‘রাজাকারের বাচ্চা’ বলে গালি দেন।’

শিক্ষার্থীদের ক্ষোভ, গত তিন বছর স্বাধীনতা বিরোধী এই ভিসি জাতীয় দিবসগুলোতে শিক্ষার্থীদের সংযুক্ত করে কোনো অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন নি। ভিসি সামিয়ানা ঘেরা প্যান্ডেলে বসে চা চক্র করেন। সেখানে শিক্ষার্থীদের প্রবেশ নিষিদ্ধ থাকে। শিক্ষার্থীদের দাবি ছিলো তাদের অংশগ্রহনে জাতীয় দিবসগুলোতে আলোচনা সভা ও সাংষ্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা। যাতে শিক্ষার্থীদের মধ্যে স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিকশিত হয়।’

ভিসির এই অন্যায় আচরণের প্রতিবাদ কলে তিনি শিক্ষার্থীদের ‘রাজাকারের বাচ্চা’ বলে গালি দেন এমনটি অভিযোগ শিক্ষার্থীদের।

বুধবার বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ অফিসের চলতি দায়িত্বে থাকা উপ-পরিচালক ফয়সল মাহমুদ বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সাম্প্রতিক কর্মসূচি নিয়ে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করেন, ‘মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসে ‘বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় ডিবেটিং সোসাইটি’ আয়োজিত এক পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ভিসি বলেছেন, ‘স্বাধীনতা দিবসের এই দিনে দুঃখ ভারাক্রান্ত মন নিয়ে আমি তোমাদের মাঝে উপস্থিত হয়েছি।

আজকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন মহান স্বাধীনতা দিবস উদ্যাপনের অংশ হিসেবে সকল সম্মানীত শিক্ষক, কর্মকর্তা, বরিশালের রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ, বীর মুক্তিযোদ্ধা, স্থানীয় প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, সুধীজন এবং সাংবাদিকদের সম্মানে একটি বৈকালিক চা-চক্রের আয়োজন করেছে। কিন্তু কিছু স্বার্থান্বেষী মহল স্বাধীনতা দিবসের এমন একটি অনুষ্ঠানকে বাধাগ্রস্থ করার চেষ্টা করছে। যারা চেষ্টা করছে তারা স্বাধীনতার চেতনায় বিশ্বাসী নয় বলেই আমার কাছে প্রতিয়মান হচ্ছে। তাদের কার্যক্রম রাজাকার সাদৃশ্য।’ ভিসি তার বক্তব্যে কোথাও ঢালাওভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের রাজাকার বলেননি। বরং শিক্ষার্থীদের মধ্যে মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, নাতী-নাতনী এবং মুক্তিযুদ্ধের স্ব-পক্ষের শক্তির বিভিন্ন শিক্ষার্থীরাও রয়েছে উল্লেখ করে বলেছেন, তারা কোনভাবেই স্বাধীনতা দিবসের এই অনুষ্ঠানকে বাধাগ্রস্ত করতে পারে না।’

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, ‘কাজেই ভিসির যে বক্তব্যকে কেন্দ্র করে বিশ্ব বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মধ্যে পারষ্পরিক ভূল বোঝাবুঝি সৃষ্টি করার অপপ্রয়াস চলছে তা কোনভাবেই কাম্য নয়।’

বিজ্ঞপ্তিতে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের চলমান একাডেমিক কার্যক্রমের গতিশীলতা অব্যাহত রাখার স্বার্থে বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থীদের তাদের একাডেমিক কার্যক্রমে ফিরে যাওয়ার জন্য অনুরোধ জানানো হয়।

বুধবার গভীর রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার স্বাক্ষরিত এক নোটিশে স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপন উপলক্ষে উদ্ভুত অনভিপ্রেত ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে সাধারণ শিক্ষার্থী, শিক্ষক এবং কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের নিরাপত্তার ও বিশ্ববিদ্যালয়ের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি সার্বিক পরিস্থিতি সমুন্নত রাখার স্বার্থে উপাচার্যের ক্ষমতা বলে বৃহস্পতিবার থেকে বরিশাল বিশ্বাবদ্যালয়ের সকল ক্লাস, পরীক্ষা সহ যাবতীয় একাডেমিক কার্যক্রম অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়। একই সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল হলের আবাসিক ছাত্র-ছাত্রীদের আজ বৃহস্পতিবার বিকাল ৫টার মধ্যে হল ত্যাগের নির্দেশ দেওয়া হয়।

আর পড়তে পারেন