মঙ্গলবার, ১১ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

হেমন্তেই শীতের পিঠার ধোঁয়া উড়ছে কুমিল্লা নগরীতে

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ২৩, ২০১৯
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ
বাংলা বর্ষপঞ্জিতে এখন কার্তিক মাস। শীত আসতে এখনো আরো মাসখানেক বাকি। তবে এর মাঝে এখনই সন্ধ্যা নামলে গ্রামের মেঠো পথে আর গভীর রাতে নগরীতে কুয়াশার আস্তরণ চোখে পড়ে। শীতের আগমনী বার্তাই বহন করছে শ্বেতশুভ্র কুয়াশাগুলো। শীত এখনো না আসলেও হেমন্তের মাঝামাঝি সময়েই এখন নগরীর সড়ক আর অলিগলিতে শুরু হয়ে গেছে মৌসুমী ব্যবসায়ীদের পিঠাপুলি বানানো। নিজেদের তৈরি পিঠাপুলির পসরা সাজিয়ে ভোজন রসিকদের সামনে পিঠা ও পিঠার সাথে হরেক পদের ভর্তা পরিবেশন করছেন। ক্রেতা সমাগমও বেশ ভালো। ধোঁয়া উঠা গরম ভাপা-চিতই পিঠার সাথে মুখরোচক সিদল ও সরিষার ভর্তায় পিঠা স্বাদ আস্বাদন করতে পিঠার দোকানে ভীড় করছেন ভোজন রসিকরা। কেউবা কাজ শেষে বাসায় ফেরার পথে পরিবার পরিজনের জন্য নিয়ে যাচ্ছেন পিঠাপুলি।

সরেজমিনে গত কয়েকদিন ধরে নগর কুমিল্লার প্রধান সড়ক,অলি-গলির পাশের খোলা স্থানে অর্ধশতাধিক মৌসুমি পিঠা বিক্রেতাদের ব্যস্ততা চোখে পড়ছে। বিকেল হলেই শুকনো কাঠ-বাঁশ মাটির চুলায় দিয়ে তপ্ত আগুনে মাটির তৈরি পাতিলে পিঠা বানানো শুরু করছেন। বিশেষ করে ভাপা ও চিতই (আঞ্চলিক ভাষায় খোলা পিঠা বলে পরিচিত) পিঠাই বেশী তৈরি ও বিক্রি করছেন পিঠা বিক্রেতারা।

নগরীর ডিসি সড়ক এলাকায় শীতের পিঠা বানানো ও বিক্রি শুরু করছেন মৌসুমি পিঠা বিক্রেতা মাসুদ। মৌসুমি ফেরীওয়ালা হিসেবে পরিচিত তিনি।

পিঠা বিক্রেতা মাসুদ জানান, বছরের বিভিন্ন সময় ফল-তরকারী বের হয় সেগুলো ফেরী করেন। তবে শীত আসলে শুধু পিঠা তৈরি-বিক্রির কাজ করেন। পিঠা বানানোর জন্য দিনের বেলায় চালের গুড়া, নারকেল-গুড় ও চিতই পিঠার সাথে ভর্তা পরিবেশন করতে সিদল ও সরিষার ভর্তা বানানোসহ কেরোসিন-শুকনো বাঁশ কাঠ সংগ্রহের কাজে ব্যস্ত সময় পার করেন। এ কাজে তার স্ত্রী ও কন্যা সহযোগিতা করেন।

মাসুদ জানান, পড়ন্ত বিকেলে শুরু করেন পিঠা বানানো ও বিক্রির কাজ। রাতের ১০ পর্যন্ত চলে। সাথে সিদ্ধ ডিমও বিক্রি করেন। ধোয়া উঠা গরম গরম পিঠা, সিদল ও কাঁচা মরিচের ভর্তা ছোট প্লাস্টিকের প্লেটে করে ক্রেতাদের সামনে পরিবেশন করেন। দৈনিক পিঠা বানানোর গড় খরচ এক হাজার টাকা। খরচ বাদ দিয়ে আরো ১ হাজার টাকার মত মুনাফা হয়। কোন দিন আবার তা অর্ধেকে নেমে আসে।

মাসুদের দোকানে পিঠা খেতে এসে তৈরি পোষাক ব্যবসায়ী আরিফ জানান, ব্যবসায়িক ব্যস্ততার কারণে ঘরে বসে পিঠা খাবো সে উপায় নেই। বাসায় পিঠা বানানোর অনুষঙ্গ নিতে পারি না বলেই মাসুদের দোকানে এসে পিঠা খাই। আর যাওয়ার সময় স্ত্রী সন্তানদের জন্য নিয়ে যাই।

রেইসকোর্স এলাকায় পিঠা বিক্রেতা পিয়ারা বেগমের চুলার পাশে বসে পিঠা খেতে দেখা যায় জনা পাঁচেক চাকুরীজীবীকে। হাতে একটি ভাপা পিঠা কাঁচা মরিচের ভর্তা দিয়ে মুখে পুরে তৃপ্তির সাথে খেতে গিয়ে শৈশবের স্মৃতিচারণ করেন বেসরকারি ব্যাংকের এক কর্মকর্তা সালেহ আহমেদ। স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে তিনি সহকর্মীদের জানান, শৈশবে আমরা নভেম্বর ডিসেম্বর মাসে বাংলা বর্ষপঞ্জির তখন পৌষ মাঘ মাসের কুয়াশা ঘেরা শীতের সকালে রান্না ঘরের চুলার পাশে বসে পিঠা খেতাম। আর বিয়টি ছিলো রীতিমতো উৎসবের ব্যাপার। এছাড়াও খেজুরের রস দিয়ে পায়েস সিন্নির তৈরি করা হতো। ওই পায়েস সিন্নির স্বাদ এখনো জিবে লেগে আছে। আফসোস নিয়ে বলেন, এখন সময়ের পরিবর্তন এসেছে। পিঠা এখন বাণিজ্যিকভাবে তৈরি ও বিক্রি হয়। তবে খেজুরের রসের পায়েস সিন্নি এখন আর চোখে পড়ে না।

আর পড়তে পারেন