বৃহস্পতিবার, ২৪শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং

স্মৃতিপটে গ্রাম ও শৈশব

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ৭, ২০১৯
news-image

সাইদুল হাছান:

আসছি আমি গ্রাম থেকে
গড়তে জীবন আমার,
সকাল হলেই মা আর বলেনা
যেতে হবে বাজার।

পাখির ডাকে উঠতাম জেগে
মোরগ দিত হাক,
গাছের ঢালে ঝগড়া করত
২ টা দোড়া কাক।

কোকিল গাইত মধুর সুরে
দাদি খাইত পান,
বৃক্ষ তো আমায় আর শুনায় না
সার্থকতার গান।

খেলতে গিয়ে যখন আমার
আঘাত পেত পা,
আঘাতের কথা শুনে
দৌড়ানি যে দিত আমার মা।

স্কুল যেদিন ছুটি থাকত
খেলতাম সবে মিলে,
শাপলা তুলতে চলে যেতাম,
গ্রামের পাশে ঝিলে।

বর্ষায় যখন পানি উঠত
চাষ করা ক্ষেতে,
কত মানুষ চলত সেথায়
ছোট-বড় মাছ পেতে।

কালবৈশাখী ঝড়ে যখন
পড়ত গাছের আম,
ঝড়ের মাঝেই চলতাম সবাই,
পাকা আম কুড়াইতাম।

মা বলত ওরে বাজান
কোথায় যাস তুই?
তর বাবা যে বাজার থেকে
এনেছে মিষ্টি দই।

আকাশ যেন রাগ্বানিত
ঘুরুম ঘুরুম শব্দ,
টিনের মধ্যে পরছে শিল
সবাই যে নিঃস্তব্ধ।

বিকেল হলে পাড়ার ছেলেরা
খেলতে যেতাম মাঠে,
গোসলের সময় ঝাঁপাঝাঁপি
হইত পুকুর-ঘাটে।

মা-চাচিরা দিত আড্ডা
বাড়ির উঠানেতে,
ছোট ছোট পিচ্চিগুলা
থাকত খেলায় মেতে।

শীতের প্রাতে ভাঁপা পিঠার
জমত আড্ডা বেশ,
সামনে পিঠা রেখে মা
একটু পর এসে দেখত শেষ।

দাদি আমার গল্প শুনাত
এক দেশে ছিল রাজা,
মেয়েকে তার প্রেমের প্রস্তাব দেযাতে
দিয়েছিল যে তার সাঁজা।

সময়ের আবর্তনে ডুবে গেছে
শৈশব স্মৃতি,
কত যে ছিল খেলার সাথি
জড়িয়েছিল ভালবাসা আর প্রীতি।

হারিয়ে গিয়েছে পুরনো স্মৃতি
গ্রামের চলা দিন,
শহুরে জীবন জ্যামে আটকানো
আর আছে শত পিন।

আর পড়তে পারেন