বৃহস্পতিবার, ১৩ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

সাকিবকে বিপদে ফেলা কে এই জুয়াড়ি ?

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ৩১, ২০১৯
news-image

 

স্পোর্টস ডেস্কঃ

জুয়াড়ির প্রস্তাব গোপন রাখায় সাকিব আল হাসানের নিষিদ্ধের খবর সবার জানা। সাকিবকে ফাঁসানোর নেপথ্যে থাকা দীপক আগারওয়াল একজন ভারতীয় জুয়াড়ি। তাঁর আসল নাম বিক্রম আগারওয়াল।

মূলত বিক্রম ছিলেন একজন হোটেল ব্যবসায়ী। ভারতের চেন্নাইয়ে পাঁচ তারকা মানের তার দুটি হোটেল আছে। ১২৯ কক্ষের ব্যবসায়িক হোটেল ফরচুন সিলেক্ট পামস ও পাঁচতারকা হোটেল র‌্যাডিসন ব্লুয়ের মালিক তিনি। হোটেল ব্যবসা ছাড়াও বিভিন্ন সংঠনের সঙ্গে জড়িত তিনি। যদিও হোটেল ব্যবসা দিয়ে রাতারাতি কোটিপতি হয়ে যান। জড়িয়ে যান ক্রিকেটীয় জুয়াতে।

স্পট ফিক্সিংয়ের সঙ্গে অনেক আগেই জড়িয়েছে আগারওয়ালের নাম। আইসিসির দুর্নীতিবিরোধী ইউনিটের কালো তালিকাভুক্ত তিনি। ২০১৩ সালে আইপিএলে ম্যাচ পাতানোর অপরাধে গ্রেপ্তার হয়েছিলেন ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিসিআই) সাবেক সভাপতি এন শ্রীনিবাসনের জামাতা গুরুনাথ মায়াপ্পান। তাঁর সঙ্গে আটক হন বলিউড অভিনেতা বিন্দু দারা সিং। তাঁরা আটক হওয়ার পর প্রকাশ করেন আগারওয়ালের নাম। জানান, ম্যাচ পাতানোর সঙ্গে যুক্ত ছিলেন আগারওয়ালও।

এরপর ২০১৭ সালে আগারওয়াল ও তাঁর দুই সঙ্গীকে আটক করে ভারতের পুলিশ। জেল থেকে বের হয়ে স্পট ফিক্সিংয়ে পুরোপুরি জড়িয়ে যান আগারওয়াল। জেল থেকে বের হয়েই সে বছর টার্গেট করেন বাংলাদেশ অধিনায়ক সাকিব আল হাসানকে।

২০১৭ সালে বিপিএলের পঞ্চম আসর চলাকালীন সাকিবের মোবাইল নম্বর পান ভারতীয় জুয়াড়ি আগরওয়াল। নভেম্বরের দিকে হোয়াটসঅ্যাপে দুজনের মধ্যে প্রথম আলাপ হয়। প্রথম আলাপেই সাকিবের সঙ্গে দেখা করতে চেয়েছিলেন আগরওয়াল। কিন্তু বিষয়টি আকসুকে জানাননি সাকিব।

দ্বিতীয় আলাপ হয় ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে। সে সময় ঘরের মাঠে শ্রীলঙ্কা-জিম্বাবুয়েকে নিয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজ খেলছে বাংলাদেশ। ১৯ জানুয়ারি শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচসেরা হন সাকিব। ম্যাচের পর পরই সাকিবকে অভিনন্দন জানিয়ে বার্তা পাঠান আগরওয়াল। পরক্ষণে আরেকটি বার্তা আসে আগরওয়ালের পক্ষ থেকে। সেটি ছিল, ‘কাজটা কি এখনই হবে, নাকি আমি আইপিএল পর্যন্ত অপেক্ষা করব?’ (কাজ বলতে দলের ভেতরকার তথ্য ফাঁস করাকে বোঝানো হয়) এবারও আইসিসির দুর্নীতি দমন ইউনিটকে বিষয়টি জানাননি সাকিব।

ওই সিরিজ চলাকালীনই আগরওয়ালের কাছ থেকে আরেকটি বার্তা পান সাকিব। সেটি ছিল ২৩ জানুয়ারি। সেই বার্তাতে জুয়াড়ি লিখেছিলেন, ‘এই সিরিজের (ত্রিদেশীয় সিরিজ) বিষয়ে কোনো তথ্য জানতে পারি?’ এবারও বিষয়টি কাউকে জানাননি বাংলাদেশ অধিনায়ক।

সিরিজটির ফাইনাল ম্যাচে চোটের কারণে মাঠের বাইরে ছিটকে যান সাকিব। চোট কাটিয়ে ফেরেন আইপিএলে। ভারতে টুর্নামেন্টটি খেলতে গিয়ে আরেক দফা আগরওয়ালের বার্তা পান সাকিব। ঘটনাটি ঘটে ২৬ এপ্রিল ২০১৮। কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের বিপক্ষে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের হয়ে খেলেন সাকিব। ম্যাচটিকে কেন্দ্র সাকিবকে আরেকটি বার্তা পাঠান আগরওয়াল। বার্তায় সাকিবের কাছে একজন নির্দিষ্ট খেলোয়াড় খেলবেন কি না, সে ব্যাপারে জানতে চান। এ ছাড়া দলের ভেতরকার তথ্য জানতে চান জুয়াড়ি। সাকিবের কাছে আগরওয়াল ডলার অ্যাকাউন্টের বিস্তারিত জানতে চান। কিন্তু উত্তরে সাকিব জানান, ‘আগে’ আগরওয়ালের সঙ্গে দেখা করতে চান তিনি।

২৬ এপ্রিল আগরওয়ালের সঙ্গে বেশ কিছুক্ষণ কথা হয় বাংলাদেশ অধিনায়কের। দুজনের মধ্যকার আলাপের কিছু অংশ ডিলিট করে দেন সাকিব। মূলত দলের ভেতরের খবর জানতে চাওয়ার যে প্রশ্ন করা হয়েছিল, সেগুলোই ডিলিট করেন সাকিব। পরে বিষয়টি আইসিসির দুর্নীতি দমন ইউনিটের কাছে স্বীকার করেন তিনি। সাকিব জানান, সেদিনের আলাপের পরই আগরওয়ালকে নিয়ে সন্দেহ হয় তাঁর। আগরওয়াল যে জুয়াড়ি, সেদিনই বুঝতে পারেন বলে জানান সাকিব। এত কিছুর মধ্যেও অবাক করার বিষয় হলো এবারও আইসিসির দুর্নীতি দমন ইউনিটকে কিছু জানাননি সাকিব।

দুজনের বার্তা আদান-প্রদানের পর জুয়াড়ির সঙ্গে সাকিবের দেখা করতে চাওয়ার বিষয়টি স্বাভাবিকভাবে অন্য কিছুর ইঙ্গিত দিচ্ছে। কিন্তু তদন্ত চলাকালে সাকিব বলেছেন, আগরওয়ালের কোনো প্রস্তাবেই তিনি রাজি হননি। দলের ভেতরকার কোনো তথ্যও তিনি আগরওয়ালকে দেননি। এমনকি আগরওয়ালের কাছ থেকে কোনো অর্থও নেননি তিনি। তাঁর ভুল ছিল, বিষয়টি তিনি আইসিসিকে জানাননি।

চলতি বছরের ২৩ জানুয়ারি ও ২৭ আগস্ট বাংলাদেশে এসে সাকিবের সাক্ষাৎকার নেয় আইসিসির দুর্নীতিবিরোধী ইউনিট। সব তদন্তের পর গতকাল অবশেষে শাস্তির ঘোষণা আসে ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা থেকে।

আইসিসির দুর্নীতিবিরোধী ইউনিট আকসুর রায় অনুযায়ী আগামী ১২ মাস সব ধরনের ক্রিকেট-সংশ্লিষ্ট কার্যক্রম থেকে বিরত থাকবেন সাকিব আল হাসান। এই এক বছরে আকসুকে সন্তুষ্ট করতে পারলে ২০২০ সালের ২৯ অক্টোবর থেকে আবারও খেলায় ফিরতে পারবেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার।

আর পড়তে পারেন