বৃহস্পতিবার, ২৯শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

সংস্কার বিহীন পড়ে আছে চাঁদপুরের সেই আলোচিত ৫শ’ বছরের মসজিদ!

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
সেপ্টেম্বর ২১, ২০২০
news-image

মাসুদ হোসেন, চাঁদপুরঃ

চাঁদপুর সদর উপজেলার ৫নং রামপুর ইউনিয়নের ছোট সুন্দর গ্রামে জঙ্গল পরিষ্কার করে পাওয়া ৫শ’ বছরের সুলতানি আমলের মসজিদটি প্রত্নতত্ত অধিদপ্তরের চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের ৭৩ তম সংরক্ষিত পুরাকীর্তি হিসেবে গত বছরের ৪ এপ্রিল গেজেট ভুক্ত হয়।গেজেটের পরবর্তী সময়ে এ বছরের ফেব্রুয়ারি মাসের প্রথম সপ্তাহে মসজিদটি সংস্কারের কাজ শুরু করলেও বিভিন্ন অভিযোগে করোনা মহামারির প্রাদুর্ভাব শুরুর আগে গত ২৮ ফেব্রুয়ারি অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অতিরিক্ত সচিব মোঃহান্নান মিয়া মসজিদটির অপরিকল্পিত সংস্কার কাজ দেখে ক্ষোভ ও বিস্ময় প্রকাশ করেন এবং কাজটি তাৎক্ষণিক বন্ধ রাখার নির্দেশ দেন। অধিদপ্তরের সংশ্লিষ্ট প্রকৌশলী ও শ্রমিকরা মসজিদটির কাজ সম্পূর্ণ নকশা বহির্ভূতভাবে করছিলেন।

সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, পাঁচ’শ বছরের সুলতানি আমলের সেই মসজিদটি সম্পূর্ণ অযত্ন অবহেলায় পড়ে আছে। মসজিদটির গম্ভুজের উপরের খোলা অংশ দিয়ে ভারি বৃষ্টিতে মসজিদের ভিতরে ছোট একটি পুকুরে পরিণত হয়। মসজিদের ভিতরে নেই কোন প্রবেশে বাঁধা। যেকোন সময় কুকুর বিড়ালসহ অন্যান্য প্রাণী ঢুকা অসাধ্যের কিছুই নেই।গরু ছাগলের পদচারনায় পরিণত হয়েছে উক্ত স্থানটি। কিন্তু এর আগে কয়েকবার স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের উদ্যোগে গম্ভুজের উপরের খোলা অংশে পলিথিন স্থাপন, পথচারীদের যত্রতত্র প্রবেশ নিষেধের জন্য বাঁশের বেড়া ও একটি স্ট্রিটলাইট স্থাপন করলেও কিছুদিন পর সবই যেন তছনছ হয়ে যায়।

এদিকে প্রত্নতত্ব অধিদপ্তরের পরিচালক ও শ্রমিকদের অবহেলায় সংস্কার শুরুর প্রথম পর্যায়ে হাতুড়ি আর কুড়ালের আঘাতে হারিয়ে যেতে বসেছিল ৫শ’ বছরের ঐতিহ্য। এ নিয়ে চড়ম ক্ষোভ প্রকাশ করেন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অতিরিক্ত সচিব মোঃ হান্নান মিয়া। কিন্তু মসজিদের পূর্ব পার্শ্বে সাটানো প্রত্নতত্ব অধিদপ্তরের একটি সাইনবোর্ডে এক বিজ্ঞপ্তিতে লেখা রয়েছে “ কোন ব্যক্তি এই পুরাকীর্তির কোন রকম ধ্বংস বা অনিষ্ট সাধন করলে বা এর কোন বিকৃতি বা অংগচ্ছেদ ঘটালে বা এর কোন অংশের উপর কিছু লিখলে বা খোদাই করলে বা কোন চিহ্ন বা দাগ কাটলে, ১৯৬৮ সালের ১৪নং পুরাকীর্তি আইনের ১৯ ধারার অধীনে তিনি সর্বধিক এক বৎসর পর্যন্ত জেল বা জরিমানা অথবা উভয় প্রকার দন্ডে দন্ডনীয় হবেন”। কিন্তু অধিদপ্তরের ব্যক্তিরাই এর আইন না মেনে পুরাকীর্তির চেহারাই পাল্টে দিতে চেয়েছিল।মহাপরিচালক হান্নান মিয়া মসজিদটি পরিদর্শনকালে এমন অবস্থা দেখে কাজ বন্ধ রাখার ঘোষণা দেন। এর কিছুদিন পরেই বাংলাদেশে মহামারী আকারে ধারন করতে শুরু করেছে করোনাভাইরাস। অথচ প্রত্নতত্ব অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী মূল নকশা ঠিক রেখে এই মসজিদকে সংস্কারের মাধ্যমে আগের রুপে ফিরিয়ে এনে উক্ত স্থানটিকে একটি পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তোলার কথা রয়েছিল। কিন্তু অনিয়ম, অবহেলা আর করোনার প্রভাব- এই তিনের জাঁতাকলে পড়ে আটকে আছে মসজিদটির পূণ:সংস্কার কাজ।

এ বিষয়ে রামপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আল মামুন পাটওয়ারী বলেন, চাঁদপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য ও মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী আলহাজ্ব ডা: দিপু মনি আপার নির্দেশে আমি জঙ্গলটি পরিষ্কার করে পুরনো এই মসজিদটি দৃশ্যমান করার উদ্যোগ নিই। পরবর্তীতে বিষয়টি জেলা প্রশাসনের সহযোগীতায় প্রত্নতত্ব অধিদপ্তরের নজর কাড়ে এবং সংস্কারের উদ্যোগ নেন। কিন্তু অধিদপ্তরের পরিচালকসহ শ্রমিকদের নিজস্ব চিন্তায় পুরো মসজিদের চিত্র পাল্টেদিতে চেয়েছিল। কাজ চলাকালীন এক পর্যায়ে অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মসজিদটি পরিদর্শনকালে কাজের ভিন্নতা দেখে অসন্তুষ্টি প্রকাশ করেন এবং কাজ বন্ধকরে দেন।

আরেক প্রশ্নের জবাবে আল মামুন পাটওয়ারী বলেন, আমরা ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে মসজিদের ঐ স্থানটিতে কয়েকবার বিভিন্নভাবে সুরক্ষা করার চেষ্টা করেছি। তবে ২-১ দিনের মধ্যেই আবার ব্যবস্থা নেয়া হবে।

খোদ প্রত্নতাত্বিক অধিদপ্তরের চট্টগ্রাম ও সিলেট অঞ্চলের পরিচালক ড. আতাউর রহমান সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) বিকেলে ফোনে এ প্রতিবেদককে বলেন, এই মসজিদটির সংস্কার কাজ শুরু হয়েছিল।

কাজে কিছু ত্রুটি থাকার কারনে সংস্কার বন্ধ হয়ে পড়ে।বরাদ্দের কিছু অংশ টাকা গত অর্থ বছরে ফেরত পাঠানো হয়েছে। আবার ২০২০-২০২১ অর্থ বছরে ঐ টাকা ফেরত নিয়ে আসা হয়। এবং আগামী মাসের প্রথম সপ্তাহে কাজ শুরু করা হবে।

আর পড়তে পারেন