মঙ্গলবার, ২১শে জানুয়ারি, ২০২০ ইং

শুভ জন্মদিন ভারতবর্ষের অগ্নিস্ফুলিঙ্গ ক্ষুদিরাম বসু

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ডিসেম্বর ৩, ২০১৯
news-image

ডেস্ক রিপোর্টঃ

আজ ৩ ডিসেম্বর ভারতবর্ষের এক অগ্নিস্ফুলিঙ্গ, সূর্য সন্তান ক্ষুদিরাম বসুর  জন্মদিন। যিনি তরুণ বয়সে মাতৃভূমির জন্য নিজের জীবন বির্সজন দিয়েছিলেন। ভারতবর্ষের জন্য তাঁর অবদান পাঠকদের সামনে তুলে ধরা হল।

ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের সবথেকে গুরুত্ববহ সময়টা ছিলো বিংশ শতাব্দী। কেননা আন্দোলনের এই পর্যায়ে এসেই ভারতীয়দের একাংশ আস্থা হারিয়েছিলেন অহিংস আন্দোলনের উপর। আফ্রিকায় অ্যাংলো-বুয়র যুদ্ধে বুয়রদের কাছে ইংরেজ সাম্রাজ্যের আসন্ন পতন দেখেই যেন অনেকটা সাহস এসে বুকে ধাক্কা দিয়েছিলো ভারতীয়দের। যে আশার প্রদীপ তিলে তিলে নিভে যাচ্ছিলো তাই যেন হুট করে জ্বলে উঠেছিলো আবার। বুয়রদের থেকেই অনুপ্রাণিত হয়ে ভারতীয়রা গড়ে তোলতে থাকেন ‘সিক্রেট সোসাইটি’। যাকে গুপ্ত সংঘও বলা হতো। ।

বলা হয়ে থাকে এসব গুপ্ত সংঘ বা সিক্রেট সোসাইটির সদস্যরা স্বদেশের জন্য নিজের জীবন দিতে প্রস্তুত থাকতেন। তাঁরা তাদের ধর্মগ্রন্থ হাতে নিয়ে শপথ করতেন যে, তারা দেশের স্বাধীনতার জন্য সংঘের যেকোনো আদেশ মানতে বাধ্য থাকবেন। আবার এ সংঘের বিরুদ্ধে গেলে একমাত্র শাস্তি ছিল মৃত্যুদণ্ড। তবে পশ্চিমবঙ্গে বঙ্গভঙ্গের আগে এসব সংঘের সদস্যদের তেমন কোনো কর্মসূচী চোখে পড়ার মতো ছিলো না। মূলত প্রথম দিকে তাঁরা ইংরেজদের বিরুদ্ধে জনমত গঠনের প্রচেষ্টা চালিয়ে গেছেন। পাশাপাশি অস্ত্রচালনা, শারিরীক কসরত এসব করতেন।

১৯০৩ সালের ডিসেম্বরের দিকে বড়লাট লর্ড কার্জন বঙ্গভঙ্গের প্রস্তাব পেশ করেন। প্রস্তাব অনুযায়ী কলকাতাকে কেন্দ্র করে ‘পশ্চিম বাংলা’ ও ঢাকাকে কেন্দ্র করে ‘পূর্ব বাংলা ও আসাম’ নামে দুটি প্রদেশ গঠনের প্রস্তাব দেওয়া হয়। তবে এর পূর্বে সমগ্র বেঙ্গল প্রেসিডেন্সি কলকাতাকে কেন্দ্র করে থাকায় ব্যবসা-বাণিজ্য, কল-কারখানা ও উন্নয়নের অধিকাংশই সেখানে হত। ফলে পূর্ব বাংলা পুরোপুরিই বঞ্চিত থেকে যেত। তাই বঙ্গভঙ্গ রদের কারণে পূর্ব বাংলাও বেশকিছু সুবিধা ভোগ করতে পারবে এই আশায় সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিম সম্প্রদায় এর সমর্থন করে। অন্যদিকে পশ্চিম বাংলার হিন্দুরা এটিকে বঙ্গমাতার খণ্ডনের চক্রান্ত হিসেবে দেখেন। তাঁরা এর বিরোধীতা শুরু করেন।

তবু একাংশের বিরোধ থাকা সত্ত্বেও ১৯০৫ সালের ১৬ অক্টোবর বঙ্গভঙ্গ কার্যকর হয়। এতে সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিমরা খুশি হলেও পশ্চিম বাংলার হিন্দুরা এর প্রতিবাদে তীব্র আন্দলোন গড়ে তোলেন।

কিন্তু নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলনের মধ্য দিয়ে বঙ্গভঙ্গ রদ করা সম্ভব হচ্ছিলো না। ফলে তাঁরা ডাক দেন স্বদেশী আন্দোলনের। এ আন্দোলনের অংশ হিসেবে তাঁরা সকল ধরনের বিলেতি পণ্য বর্জন করতে থাকেন। সাধারণ মানুষকে দেশীয় পণ্য ক্রয়ের জন্য আহ্বান জানান তাঁরা। বিভিন্ন অঞ্চলে প্রকাশ্যে বিলেতি পণ্য পুড়িয়ে দেওয়া শুরু হয়। সাহিত্য, শিক্ষা ইত্যাদি ক্ষেত্রেও স্বদেশী আন্দোলনের প্রভাব তখন ছিলো লক্ষ্যণীয়।

আর এই সময়ে আসা সুযোগটিকে কাজে লাগান তৎকালীন সময়ে বিপ্লবি আন্দোলনের সাথে যুক্ত থাকা সদস্যরা। পশ্চিম বাংলার জনতার মনের মধ্যে ইংরেজ বিরোধী যে বিষ জমেছিলো এতোদিনে সেই বিষকে কাজে লাগান তাঁরা। ইংরেজদেরকে হঠাতে বিপ্লবী চেতনার পক্ষে মানুষকে যুক্ত করার জন্য চালিয়ে যান নিজেদের প্রচার কাজ। আর এ সময়ে মেদিনীপুর থেকে বিপ্লবী দল যুগান্তরে কর্মী হিসেবে যোগ দেন ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের অন্যতম নায়ক ক্ষুদিরাম বসু।

ক্ষুদিরাম বসু ১৮৮৯ খ্রিস্টাব্দের ৩ ডিসেম্বর তৎকালীন ব্রিটিশ ভারতের বেঙ্গল প্রেসিডেন্সির অন্তর্গত মেদিনীপুর শহরের কাছাকাছি কেশপুর থানার অন্তর্গত মৌবনী গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা ত্রৈলোক্যনাথ বসু ছিলেন নাড়াজোলের তহসিলদার। তাঁর মায়ের নাম লক্ষিপ্রিয় দেবী। তিন কন্যার পর তিনি তাঁর মায়ের চতুর্থ সন্তান। তাঁদের দুই পুত্র অকালে মৃত্যুবরণ করেন। অপর পুত্রের মৃত্যুর আশঙ্কায় তিনি তখনকার সমাজের নিয়ম অনুযায়ী তাঁর পুত্রকে তার বড়ো দিদির কাছে তিন মুঠো চালের খুদের বিনিময়ে বিক্রি করে দেন। খুদের বিনিময়ে কেনা হয়েছিল বলে শিশুটির নাম পরবর্তীকালে ক্ষুদিরাম রাখা হয়। ক্ষুদিরামের বয়স যখন মাত্র ছয় বছর তখন তিনি তাঁর মাকে হারান। এক বছর পর তাঁর পিতার মৃত্যু হয়। তখন তাঁর বড়ো দিদি অপরূপা তাঁকে দাসপুর থানার এক গ্রামে নিজের বাড়িতে নিয়ে যান। অপরূপার স্বামী অমৃতলাল রায় ক্ষুদিরামকে তমলুকের হ্যামিল্টন হাই স্কুলে ভর্তি করে দেন।

ক্ষুদিরাম বসু শৈশবকাল থেকেই দুরন্ত ও বেপরোয়া প্রকৃতির ছিলেন। আর পরবর্তীতে এই দুরন্তপনা প্রকৃতির সাথে বিপ্লবী চেতনার মিশ্রণে ক্ষুদিরাম হয়ে ওঠেন ইংরেজ সাম্রাজ্য কাঁপানো এক অগ্নিস্ফুলিঙ্গ। বাংলায় গুপ্ত সংঘের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য হেমচন্দ্র কানুনগোর সাথে যখন ক্ষুদিরাম বসুর প্রথম দেখা হয় তখনি সেই অগ্নিস্ফুলিঙ্গ ফোটে ওঠেছিলো ক্ষুদিরামের চলনে-বলনে।

হেমচন্দ্র কানুনগোর সাথে যখন ক্ষুদিরাম বসুর দেখা হয় তখন তাঁর বয়স ছিলো মাত্র তের কি চৌদ্দ বছর। হেমচন্দ্র একদিন মেদিনীপুরের রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিলেন। ক্ষুদিরাম তাকে দেখে দৌড়ে এসে তার সাইকেল আটকিয়ে বললেন, ‘আমাকে একটা রিভলবার দিতে হবে।’ হেমচন্দ্র ক্ষুদিরামের এমন আচরণে অবাক হওয়ার চাইতে বিরক্ত হলেন বেশি। তাই মুখে বিরক্তির ভাব নিয়েই তিনি ক্ষুদিরামকে জিজ্ঞেস করেছিলেন, ‘তুই রিভলবার দিয়ে কী করবি?’ ক্ষুদিরাম অত্যন্ত স্বাভাবিকভাবেই জবাব দিয়েছিলেন, ‘সাহেব মারবো’। ক্ষুদিরামের মুখে এরকম কথা শোনে অবাক হন নি হেমচন্দ্র। কারণ চারদিকে তখন সাহেব হঠানোর কথার ছড়াছড়ি। এসবের থেকেই হয়তো এই ছোকরা সাহেব মারার কথা শোনেছে। এমনটা ভাবলেন হেমচন্দ্র। কিন্তু ক্ষুদিরাম শুধু ‘সাহেব মারবো’ বলেই থেমে থাকেন নি। সেদিন ক্ষুদিরাম ইংরেজদের অত্যাচার-নির্যাতনের কাহিনী বলে কেন সাহেব মারবেন সেসব যুক্তি দিতে শুরু করলেন। তখন হেমচন্দ্র ঠিকই অবাক হলেন। তবে তা নিজের কাছে লুকায়িত রেখে ধমক দিয়ে ক্ষুদিরামকে ফিরিয়ে দেন। তবে ভেতরের দিক থেকে ক্ষুদিরামের প্রেরণা দেখে অভিভূত হয়েছিলেন তিনি।

শৈশবের দুরন্তপরনার ইতিহাস ক্ষুদিরামের জীবনেই থেকে গেলেও ভারত বর্ষের ইতিহাসের খাতায় ক্ষুদিরাম বসুর নাম প্রথম আসে ব্রিটিশ বিরোধী ‘সোনার বাংলা’ লিফলেট বিলি করতে গিয়ে। সালটা ১৯০৬ ছিলো। ফেব্রুয়ারি মাসে মেদিনীপুরে আয়োজন করা হয় এক কৃষি-শিল্প প্রদর্শনীর। ক্ষুদিরাম লোকারন্যের মাঝেও সেদিন মেলার প্রবেশদ্বারে দাঁড়িয়ে ‘সোনার বাংলা’ লিফলেট বিতরণ করছিলেন খোলামেলাভাবে। প্রকাশ্যে ব্রিটিশ বিরোধী লিফিলেট বিতরণের ফলস্বরূপ তাঁকে ধরাও পড়তে হয় এক কন্সটেবলের হাতে। কিন্তু শৈশবের দুরন্তপনা আর ব্রিটিশ বিরোধী চেতনা ততোদিনে মিলেমিশে একাকার হয়ে গেছে। সেদিন বক্সিং এর কেরামতিতে সেদিন কনস্টেবলের নাক ভেঙে দিয়েছিলেন ক্ষুদিরাম। তবে কন্সটেবলের নাক ভাঙলেও নিজেকে ছাড়াতে পারেন নি ক্ষুদিরাম। সে যাত্রায় ক্ষুদিরাম বসুর ভাগ্য ভালো ছিলো বলতে হয়। কারণ সেসময় আরেক বিপ্লবী সত্যেন্দ্রনাথ কালেক্টরিতে এক ডেপুটির অফিসে কাজ করতেন। সেই প্রদর্শনীর সহকারি সম্পাদকও ছিলেন তিনি। পুলিশের কাছ থেকে ক্ষুদিরাম ধরা পড়লে তিনি কৌশলে ছাড়িয়ে নেন। অবশ্য পরে এই কৌশলের কথা পুলিশরা টের পেয়ে যায় এবং সত্যেন্দ্রনাথ চাকরি থেকে বরখাস্ত হন। অন্যদিকে ক্ষুদিরামের নামে দেওয়া হয় ‘রাজদ্রোহী মামলা’। বলা হয়ে থাকে এটিই সম্ভবত বিপ্লবীদের বিরুদ্ধে এটিই সর্বপ্রথম রাজদ্রোহী মামলা ছিল।

এই মামলা কিছুদিন কাঁধে বয়ে শেষে ক্ষুদিরাম সিদ্ধান্ত নিলেন পুলিশের কাছে আত্মসমর্পন করবেন। অন্যদিকে ততোদিনে ক্ষুদিরাম ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে পড়েছেন। বিপ্লবীদের অনেক কিছুই তিনি জানেন। তাই অন্যান্য বিপ্লবীরা ভয় পেতে থাকেন পুলিশের কাছে গিয়ে অত্যাচার, নির্যাতনের ভয়ে যদি ক্ষুদিরাম সবকিছু পুলিশকে বলে দেয়? কিন্তু ক্ষুদিরাম তখনো আত্মসমর্পনের ব্যাপারে অটল। তিনি আশ্বাস দিলেন পুলিশের হাজার নির্যাতনেও তিনি মুখ খোলবেন না। হলোও তাই, পুলিশ অনেক চেষ্টার পরেও ষোল বছরের কিশোরটির মুখ থেকে কিছুই বের করতে পারেনি।

অন্যদিকে যেই বঙ্গভঙ্গ রদের জন্য বিপ্লবীদের এই স্বদেশী আন্দোলন সেই স্বদেশী আন্দোলনেও বঙ্গভঙ্গ রদ করা সম্ভব হচ্ছিলো না। অবশেষে বিপ্লবীরা সবাই মিলে সিদ্ধান্ত নিলেন অ্যাকশনে যাবার। অর্থাৎ, ইংরেজদের খুন ও বিপ্লবের অর্থ সংগ্রহের জন্য সরকারি কোষাগার বা কোনো ইংরেজের বাড়িতে ডাকাতি। এই সিদ্ধান্তের অন্যতম উদ্দেশ্য এসব হামলার মাধ্যমে সারাদেশে বিপ্লবীদের অস্তিত্বের জানান দেওয়া। কারণ ইংরেজদের হত্যা, সরকারি কোষাগার ডাকাতি করলে এসব মুখেমুখে আলোচনা হয়ে সারাদেশে ছড়িয়ে পড়বে খুব তাড়াতাড়ি। অন্যদিকে সারাদেশেও তখন ইংরেজ বিরোধী মনোভাব সবার মাঝেই বিরাজ করছিলো। তাই মানুষও তাদেরকে এ কাজে সমর্থন করবে।

পরিকল্পনা অনুযায়ী দেশব্যপী বিপ্লবীদের সশস্ত্র হামলা শুরু হলো। বিভিন্ন চোরাগোপ্তা হামলা ও পুলিশের সাথে সংঘর্ষ অতি সাধারণ ব্যাপার হয়ে উঠে। তবে এ সময়ের সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য পরিকল্পনার মধ্যে ছিল গভর্নর ফুলার ও ম্যাজিস্ট্রেট কিংসফোর্ড হত্যাচেষ্টা। কিংসফোর্ডকে হত্যার কারণ ছিলো কিংসফোর্ড ছিলেন তখনকার ফৌজদারী আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট। মামলায় বিপ্লবীদের বিরুদ্ধে কঠিনতর সাজা দেওয়ায় তার উপর ক্ষিপ্ত ছিলেন সকল বিপ্লবীরা। তাই এই মহাদায়িত্বভার দেওয়া হয় ক্ষুদিরাম বসুর কাঁধে। অবশ্য এই মিশনে ক্ষুদিরামের সাথে আরেক বিপ্লবীকে দেওয়া হয়েছিলো। তাঁর নাম প্রফুল্ল চাকী। এর আগে প্রফুল্লের সাথে পরিচিত ছিলেন না ক্ষুদিরাম। একে অনের কাছে তাঁরা দুজনই অপরিচিত ছিলেন। সিনিয়র বিপ্লবীরা ইচ্ছা করেই এরকম করেছিলেন। কারণ কিংসফোর্ডকে হত্যার জন্য এর আগেও একবার চেষ্টা করা হয়েছিল। কিন্তু সেই চেষ্টা বিফল হয়েছিলো। তাই এবার একদম দুই দল থেকে নতুন দুইজনকে কিংসফোর্ড হত্যার দায়িত্ব দেওয়া হয়। এদিকে ক্ষুদিরাম এবং প্রফুল্ল চাকীও এ হত্যার দায়িত্ব পেয়ে অনেক খুশি হয়েছিলেন।
ক্ষুদিরাম বসু।

সাল ১৯০৮, কিংসফোর্ড তখন মোজাফফরপুরের জজ। এপ্রিল মাসের শেষের দিকে ক্ষুদিরাম ও প্রফুল্লকে ভালোভাবে সবকিছু বুঝিয়ে শুনিয়ে পাঠানো হয় কিংসফোর্ড হত্যার মিশনে। একদিন সন্ধ্যায় পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে ক্ষুদিরাম এবং প্রফুল্ল চলে এলেন মোজাফফরপুরে। শুরু হয় কিংসফোর্ডের উপর নজরদারি। কখন কোথায় কিভাবে যাচ্ছেন কিংসফোর্ড সবই যেন মাথায় গেঁথে নিলেন ক্ষুদিরাম-প্রফুল্ল। কিংসফোর্ড প্রতিদিন সন্ধ্যায় একটি সাদা ঘোড়ার গাড়িতে করে বাংলোয় ফেরত আসতেন। তাই কিংসফোর্ডকে হত্যা করার জন্য এটিকেই সবচেয়ে ভালো সময় এবং সুযোগ মনে হলো ক্ষুদিরাম ও প্রফুল্লের কাছে।

অবশেষে ১৯০৮ সালের ৩০শে এপ্রিল সন্ধ্যা ৮টার দিকে প্ল্যানের বাস্তবিক রুপ দিতে পরিকল্পনা মতো বোমা ছুঁড়ে মারলেন কিংসফোর্ডের গাড়ির দিকে। প্রচণ্ড বিস্ফোরণে কেঁপে উঠলো চারপাশ। চোখের সামনেই ভেঙে দুমড়ে মুচড়ে গেলো কিংসফোর্ডের গাড়িটি। ক্ষুদিরাম-প্রফুল্লের চোখে তখন সাহেব মারার আনন্দ। তারচেয়েও বড় কথা বিপ্লবীদের দেওয়া দায়িত্ব তাঁরা পালন করতে পেরেছেন। কিন্তু সত্যিই কি পেরেছিলেন? এই উত্তরটাই কাল হয়ে দাঁড়িয়েছিলো ক্ষুদিরাম বসুর জীবনে। কেননা সেদিন সন্ধ্যায় কিংসফোর্ডের ঘোড়ার গাড়িতে কিংসফোর্ড ছিলেন না। তাহলে কে ছিলেন? মিসেস এবং মিস কেনেডি নান্মী দুই ইংরেজ নারী ছিলেন সেদিন গাড়িতে। যারা মারা গিয়েছিলেন ক্ষুদিরাম-প্রফুল্লের ছোঁড়া বোমে।

১৯০৮ সালের ৩০শে এপ্রিলের সেই সন্ধ্যায় ক্ষুদিরাম এবং প্রফুল্ল চাকী ত্যাগের সাথে তাঁদের উপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করলেও কিছু ভুলও করেছিলেন। যা তাঁদের উপসংহার টানতে সাহায্য করেছিলো। বিপ্লবীদের তরফ থেকে তাদের ওপর নির্দেশ ছিল যে, তারা যেন মিশনের সময় অন্য কোনো প্রদেশের লোকের অনুকরণে পোশাক পরিধান করে, এরপর মিশন শেষে আবার বাঙালি পোশাক পড়ে। কিন্তু তারা তা করেননি সেসময়। শুধু এটুকুই নয়। রিভলবারের প্রতি ক্ষুদিরামের দুর্বলতা ছিলো সেই ছোটবেলা থেকেই। একারণেই সেদিন হেমচন্দ্রের কাছে সাহেব মারার জন্য রিভলবার চেয়েছিলেন। রিভলবারের অপব্যবহারের ভয়ে এর আগে এটি ক্ষুদিরামের হাতে দেওয়া হয়নি। কিন্তু কিংসফোর্ড হত্যার মিশনে ক্ষুদিরাম এবং প্রফুল্ল দুজনের কাছেই একটি করে রিভলভার দেওয়া হয়েছিল। এছাড়া ক্ষুদিরাম অস্ত্রাগার থেকে লুকিয়ে আরেকটি রিভলবার নিয়েছিলেন। বোমা বিস্ফোরণ হওয়ার পর রিভলবার ফেলে দেওয়ার জন্য তাদেরকে নির্দেশনা দেওয়া হলেও রিভলবারের প্রতি দুর্বলতার কারণেই হয়তো ক্ষুদিরাম তা ফেলে দেন নি। কারণ পরদিন তাকে যখন ধরা হয়, তখন তিনি দু’হাতে খাবার খাচ্ছেন আর পাতলা জামার দুই পকেটে ঝুলছে দুইটি রিভলবার ।

ক্ষুদিরাম বসু ধরা পড়ার পর ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। জবানবন্দীতে তিনি তার আর প্রফুল্য ছাড়া অন্য সবার কথা গোপন রেখেছিলেন। এভাবে তিনি গুপ্ত সংঘকে সন্দেহের বাইরে রাখার চেষ্টা করেন। কিন্তু প্রফুল্ল হয়তো নিজেকে নিয়ে ততোটা আত্মবিশ্বাসী ছিলেন না। প্রফুল্ল মনে করেছিলেন পুলিশের হাতে ধরা পড়লে তিনি হয়তো নির্যাতনের ভয়ে সব গোপন কথা বলে ফেলবেন। সেই ভয়ে প্রফুল্ল আত্মহত্যা করে ফেলেন।

তবে ক্ষুদিরামের ভাগ্যও বোধয় ততোটা সহায় ছিলো না তাঁর পক্ষে। কেননা ক্ষুদিরামের বিচারের সময় পশ্চিম বাংলা অর্থাৎ কলকাতা, মেদিনীপুর এসব অঞ্চলের কোনো উকিল তার পক্ষে দাঁড়াতে রাজি হননি! অবশ্য পরে পূর্ববঙ্গের রংপুর থেকে যাওয়া কয়েকজন উকিল ক্ষুদিরামের পক্ষে লড়েছিলেন। ক্ষুদিরামের আগের জবানবন্দী পরিবর্তন করে কোর্টে নতুন জবানবন্দী দেওয়ার জন্য জোরাজুরি করতে থাকেন তাঁরা। কারণ প্রফুল্ল চাকী যেহেতু আত্মহত্যা করেছেন তাই ক্ষুদিরামের উকিলরা চাচ্ছিলেন মৃত প্রফুল্লের ঘাড়ে সব দোষ চাপিয়ে দিয়ে ক্ষুদিরামেকে বাঁচিয়ে দিতে। কারণ ক্ষুদিরামের মতো বিপ্লবীদের তখনো খুব দরকার ছিলো ভারতবর্ষে। আর এ বিষয়টি হয়তো ইংরেজরাও বুঝতে পেরেছিলো। তাই তো ক্ষুদিরামক কোনো ধরনের ছাড় না দিয়ে দিয়ে সোজা ফাঁসির দণ্ডাদেশ দিয়ে দেওয়া হয়।

১৯০৮ সালের এগারো আগস্ট ক্ষুদিরামের ফাঁসির দিন ঠিক করা হয়। সেদিন যারা সেখানে প্রত্যক্ষদর্শী ছিলেন তাঁদের কাছে পরবর্তীতে জানা যায়- ক্ষুদিরাম সেদিন হাসতে হাসতে ফাঁসির দড়িকে বরণ করে নিয়েছিলেন। হাসতে হাসতে নিভে গিয়েছিলো একটি জলন্ত মশাল। তবে শুধু শুধুই কী নিভে গিয়েছিলো এই মশাল? না শুধু শুধু নিভে যায়নি, বরং ক্ষুদিরাম সেদিন দৃষ্টান্ত তৈরি করে গিয়েছিলেন কিভাবে দেশ মাতৃকার জন্য লড়ে যেতে হয়। মুক্তির মশাল আজও আমাদের বুকে অদৃশ্যে থেকেও যেন জ্বালিয়ে দিয়ে যায় ক্ষুদিরাম বসু।

(সংগৃহিত)

আর পড়তে পারেন