শুক্রবার, ২২শে নভেম্বর, ২০১৯ ইং

শতবর্ষী ঘুম ও তাওরাত কিতাবের পূর্নজীবন

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ২৯, ২০১৮
news-image

কাজী নাসরুল্লাহ আলাউদ্দিন ঃ

ইতিহাস সাক্ষী দেয় যে, এই পৃথিবীতে এমন চারজন শাসক ছিলেন, যারা সমগ্র পৃথিবীটাকে নিজেদের করায়ত্তে আনতে পেরেছিলেন। তন্মধ্যে দুজন মুসলমান শাসক হযরত সোলায়মান (আঃ) ও হযরত জুলকারনাইন এবং দুজন কাফের শাসক পাপিষ্ঠ নমরূদ ও অত্যাচারী বখতে নসর নামে ব্যক্তি ছিলেন। আলোচ্য ঘটনাটি অত্যাচারী শাসক বখতে নসরের সময়কালের।

বখতে নসর বনী ইসরাঈলকে বশ করতে একের পর এক গ্রাম ও বায়তুল মুক্কাদাস জ্বালিয়ে দিয়ে অনেককে বন্দী করে নিয়ে যায়। হযরত উযায়ের (আঃ) ছিলেন তাদের মধ্যে অন্যতম বন্দী। যখন তিনি জেল থেকে মুক্তি পেয়ে বাড়ি ফিরছিলেন, তখন অত্যাচারী শাসক বখতে নসরের ধ্বংসযজ্ঞের সাক্ষী হিসাবে তিনি এমন একটি গ্রাম অতিক্রম করছিলেন, যার বিশাল বিশাল ইমারত ও অট্টালিকাগুলো ভূমিস্মাৎ হয়ে গিয়েছে, এ অবস্থায় তিনি মনে মনে ভাবতে লাগলেন, এখানকার সকল অধিবাসীরাই মারা গিয়েছে, তবে এদেরকে আল্লাহ তায়ালা কিভাবে পূনর্জীবিত করবেন ? মহান আল্লাহ তায়ালা নিজ শক্তিবলের পরিচয় দিতে গিয়ে নবী হযরত উযায়ের (আঃ) এর দুচোখে ঘুম ঢেলে দিলেন।পরিশ্রান্ত শরীর নিয়ে উযায়ের (আঃ) বিশ্রামগ্রহণের জন্য সওয়ারী গাধাকে গাছের সাথে বেঁধে ছায়াযুক্ত স্থানে শুয়ে পড়লেন। অল্প কিছুক্ষনের মধ্যে তিনি ঘুম নামক মৃত্যুর কোলে ঢলে পরলেন, সাথে গাধারও মৃত্যু হলো কিন্তু সাথে থাকা খাদ্য ও পানীয় নষ্ট হলো না। তিনি ঘুমোচ্ছেন তো ঘুমোচ্ছেন, জাগবার খবর নেই। এভাবে কেটে গেল একশত বৎসর। এবার মহান আল্লাহ তায়ালা উনার ঘুম ভাঙ্গালেন এবং প্রশ্ন করলেন, হে উযায়ের ! তুমি কতক্ষণ ঘুমালে ? হযরত উযায়ের (আঃ) চিন্তা করলেন ঘুমানোর সময় ছিলো সূর্য উদয়কালীন আর ঘুম ভাঙ্গার সময় হলো সূর্য ডুবো ডুবো অবস্থায়, তাই উত্তর দিলেন, একদিন বা তারচেয়েও কিছু কম সময়। মহান আল্লাহ তায়ালা বলেন, না ! বরং তুমি একশত বৎসর ঘুমিয়েছ। তাকাও তোমার গাধার দিকে ! দেখো তার অস্থিমজ্জাও বিলীন হবার পথে, এবং লক্ষ্য করো তোমার পানীয় ও খাবারের প্রতি কিভাবে তা অবিকৃত রয়েছে। অতপর তুমি এ বিষয়েও দেখো কিভাবে পঁচা হাড়গুলো জোড়া লাগে এবং গোশত ও আত্মার সঞ্চয় হয় ! অর্থাৎ আল্লাহ তায়ালা যখন কোন কিছু করার ইচ্ছা করেন তখন তিনি বলেন হয়ে যাও (কুন), আর সাথে সাথে তা হয়ে যায় (ফায়াকুন)। মহান আল্লাহ তায়ালা মৃতকে জীবিত করতে পারেন এ বিশ্বাস উযায়ের (আঃ) এর অন্তরে ছিলো তবে চাক্ষুষ অভিজ্ঞতার জন্য তিনি মনে মনে উপরোক্ত ধারনা পোষণ করেছিলেন আর আল্লাহ তায়ালাও উচিত জবাব দিয়ে দিলেন। এ বিস্ময়কর দৃশ্য দেখে উযায়ের (আঃ) হৃদয়ে প্রশান্তি অনুভব করে মহান আল্লাহ তায়ালার শুকরিয়া আদায় করলেন। উক্ত একশত বৎসরে দেশের মধ্যে অনেক পরিবর্তন ঘটে।

বাইতুল মুক্কাদাস বনী ইসরাঈলদের দখলে পূনরায় আবাদ হতে থাকে। যখন তিনি বাইতুল মুক্কাদাসে গেলেন এবং নিজে আল্লাহর দূত উযায়ের বলে পরিচয় দিলেন, তখন লোকেরা তাঁকে চিনতে পারলনা। কেননা উনার সমবয়সী কোন লোক তখন জীবিত ছিলনা। সেই সময়কার শিশুগুলো আজ বৃদ্ধাবস্থায় উপনীত, সমাজে আসল তাওরাত কিতাবের পরিবর্তে কতগুলো ইহুদী পন্ডিতের মনগড়া তাওরাত ছড়িয়ে পড়েছে। কিছু লোকেরা বলতে লাগল বখতে নসর উযায়েরকে বন্দী করে নিয়ে গেলে তিনি আর আমাদের মাঝে ফিরে আসেননি। তখন সেখানে এক অতিবৃদ্ধা মহিলা আসলেন যার অবিকৃত তাওরাত কিতাব মুখস্ত ছিলো এবং এ কথা জানতেন যে, হযরত উযায়ের (আঃ) এর তাওরাত কিতাবের হাফেজ ছিলেন। তাই তিনি বললেন, তুমি যদি সত্যিই উযায়ের নবী হয়ে থাক তবে আমাদেরকে মূসা (আঃ) এর আসল তাওরাত মুখস্ত পড়ে শুনাও ! উযায়ের (আঃ) তাওরাত কিতাবের প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত পড়ে শুনালেন। তখন সবাই তাঁকে আসল উযায়ের নবী বলে মেনে নিলেন। আর সমাজে উযায়ের (আঃ) এর কন্ঠ থেকে পূর্নজীবিত হয়ে পড়ল মূসা (আঃ) এর প্রকৃত তাওরাত কিতাব।

লেখক,
কাজী নাসরুল্লাহ আলাউদ্দিন
চেয়ারম্যান, হিউম্যান রাইটস ফাউন্ডেশন, হোসেনপুর, কিশোরগঞ্জ, মোবাইল-০১৭৩৩৪৪৪১৬৪।

আর পড়তে পারেন