শনিবার, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

লালমাই পাহাড়ে জাপানি তোশিকোর স্কুলে নবীন বরণ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জানুয়ারি ১২, ২০১৯
news-image

স্টাফ রিপোর্টার:
শিশু শিক্ষার উন্নয়নের গুণগত শিক্ষার বিকল্প নেই- স্লোগানে শনিবার কুমিল্লা লালমাই পাহাড়ে‘মজুমদার ওয়ান ড্রপ প্রাইমারী স্কুলে’ নবীন বরণ অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে ‘মজুমদার ওয়ান ড্রপ প্রাইমারী স্কুলে লেন ডোনার কুমিল্লার বিশিষ্ট্য ব্যবসায়ী তারিক-উল ইসলাম মজুমদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন মজুমদার ওয়ান ড্রপ প্রাইমারী স্কুলের
চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপক জাপানের নাগরিক, বর্তমানে অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক তোশিকো অনিশি।

অনুষ্ঠানের শুরুতে বিদ্যালয়ে সকল ছাত্র-ছাত্রীদের ক্রীড়া প্রতিযোগীতা শেষ হওয়ার পর ২০১৯ সালের শিক্ষাবর্ষে প্রথম শ্রেণী ভর্তি হওয়া নবী শিক্ষার্থীদের চকলেটের মালা দিয়ে বরন করে নেন বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক নাহিদা আক্তার মজুমদার। স্কুলে প্রথম শ্রেণীতে থেকে ৪র্থ শ্রেণী পর্যন্ত সকল ছাত্র-ছাত্রীদের স্কুলে নতুন পোষাক বিতরনসহ পাশাপাশি শীত বস্ত্র বিতরন করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রীতিভোজের শেষে ক্রীড়া প্রতিযোগীদের পুরুস্কার বিতরন করেন মজুমদার ওয়ান ড্রপ প্রাইমারী স্কুলের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপক জাপানের নাগরিক, বর্তমানে অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক তোশিকো অনিশি ও তারিক উল ইসলাম মজুমদার,এরিসান,আসাদা সান, সাংবাদিক ইয়ামানা নাসা,কুমি সান প্রমুখ।

তোশিকোর স্কুলের লেনডোনার তারিক-উল ইসলাম মজুমদার বলেন, ‘মজুমদার ওয়ান ড্রপ প্রাইমারী স্কুল’ ৪র্থ বর্ষে পর্দাপণ করতে যাচ্ছে। জাপানিদের সহযোগীতায় কুমিল¬ার লালমাই পাহাড়ে মজুমদার ওয়ান ড্রপ প্রাইমারি স্কুলটি করতে পেরেছি । স্কুলে এলাকার তৃণমূল দরিদ্র শিশুরা লেখাপড়া করছে। তিনি বলেন, স্কুলটি দেখলে মনে হবে লালমাই পাহাড়ের মধ্যে যেন এক টুকরো জাপান। শিক্ষার্থীরা জাপানি ভাষায় গান গাইতে পারে। ইংরেজি ভাষাতেও টুকটাক কথা বলতে পারে।স্কুলের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপক তোশিকো অনিশি বলেন, তিনিসহ ৪৫ জন জাপানি নাগরিক ‘ওয়ান ড্রপ’ নামে একটি সংগঠন চালাচ্ছেন। এই সদস্যদের বাইরে বন্ধুবান্ধবরাও বিভিন্ন সহযোগিতায় এগিয়ে আসেন। ওয়ান ড্রপের সহায়তায় স্কুলটি যাত্রা শুরু করে। স্কুল তৈরিতে ওয়ান ড্রপ ৬০ শতাংশ অনুদান দেয়। স্কুলের পোশাক ও অন্যান্য আনুষঙ্গিক খরচ দিচ্ছেন তারিক-উল ইসলাম মজুমদার। তোশিকো জানান, আপাতত ষষ্ঠ শ্রেণি পর্যন্ত স্কুলটিকে নিয়ে যাওয়ার ইচ্ছা আছে। তারপরও কেউ পড়তে চাইলে তখন স্কুলের পরিধি বাড়ানোর চিন্তা করবেন। জাপানের শিক্ষা পদ্ধতিতে শিশুদের ওপর কিছু চাপিয়ে না দিয়ে তাদের চিন্তাশক্তির বিষয়ে বেশি প্রাধান্য দেওয়া হয়। বাংলাদেশ আর জাপানের শিক্ষা পদ্ধতির মিশেলে এই শিশুদের বড় করা হবে।

আর পড়তে পারেন