মঙ্গলবার, ২২শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং

লাকসামে হিন্দু তরুণীর ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে বিয়ে, স্বামীর পরিবারকে হুমকি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ২১, ২০১৯
news-image

লাকসাম প্রতিনিধিঃ
প্রেম মানে না ধর্মের দোহাই, সর্ম্পকের টানে সনাতন হিন্দু ধর্ম ত্যাগ করে মুসলিম এক যুবকের হাত ধরে ধর্মান্তরিত হয়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন এক হিন্দু তরুণী। পিতা-মাতা ও হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজনের অব্যাহত হুমকিতে বিপাকে পড়েছে ওই তরুণীর স্বামীর পরিবার।

সে কুমিল্লার মনোহরগঞ্জ উপজেলার মৈশাতুয়া ইউপির ইসলামপুর গ্রামের নারায়ন চন্দ্র দাসের মেয়ে শ্রী প্রীতিরানী দাস (২১)। বর্তমানে ইসলাম ধর্ম গ্রহণের পর তার নাম রাখা হয়েছে জান্নাতুল ফেরদাউস।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়,লাকসাম পৌরসভার দক্ষিণ সাহাপাড়ার ভাড়া বাসায় থেকে পরিবার নিয়ে বসবাস করতেন পাশ্ববর্তী মনোহরগঞ্জ উপজেলার মৈশাতুয়া ইউপির ইসলামপুর গ্রামের নারায়ন চন্দ্র দাস। তার মেয়ে শ্রী প্রীতি রানী দাসের সাথে প্রেমের সর্ম্পক গড়ে উঠে লাকসাম পৌরসভার ভোজপাড়া গ্রামের আবদুল জলিলের ছেলে ইব্রাহীম (৩১) এর সাথে। প্রেমের টান এবং ইসলাম ধর্মের প্রতি অনুপ্রাণিত হয়ে পিতা-মাতার পরিবার ছেড়ে প্রেমিকের হাত ধরে পাড়ি জমায় অজানার উদ্দেশ্যে। গত ২৪ মার্চ নিজের পিতা-মাতার সনাতন হিন্দু ধর্ম পরিত্যাগ করে জনৈক মাওলানার মাধ্যমে পাঁচ কালিমা পাঠ করে সে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে। বর্তমানে সে তার নাম দিয়েছে মোসাঃ জান্নাতুল ফেরদাউস। ইসলাম ধমর্ গ্রহণের পর গত ২৭ মার্চ প্রেমিক ইব্রাহীমের সাথে ৫ লাখ টাকা দেনমোহরে আদালতের মাধ্যমের বিবাহবন্ধনের আবদ্ধ হয়। বিয়ের পর থেকে ওই তরুণীর পিতা-মাতা তার মুসলিম স্বামী ও শশুর-শাশুড়িকে হয়রানি করতে থাকে। স্বামীর পরিবারকে হয়রানি করা অজুহাতে কুমিল্লার আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। এ ঘটনায় গত সোমবার লাকসাম থানা পুলিশ ওই তরুনীকে জিজ্ঞাসাবাদের পর তার সম্মতিতে পিতার পরিবারের উপস্থিতিতে স্বামী পরিবারের নিকট হস্তান্তর করেন।

লাকসাম থানার ওসি (তদন্ত) নজরুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, তরুনীর মায়ের অভিযোগের প্রেক্ষিতে তাকে জিজ্ঞাবাদের পর তার সম্মতিতে স্বামীর পরিবারের নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে।

আর পড়তে পারেন