শনিবার, ৮ আগস্ট, ২০২০

লাকসামে রেলওয়ে কলোনিতে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ডিসেম্বর ১২, ২০১৯
news-image

স্টাফ রিপোর্টারঃ

লাকসামে রেলওয়ের জায়গা উদ্ধারে (১১ ডিসেম্বার) বুধবার দখলকারীদের বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়ে অনেকগুলো অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করেছেন রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। ওইদিন সকালে রেলওয়ের পূর্বাঞ্চাল চট্টগ্রাম বিভাগীয় কর্মকর্তাবৃন্দ লাকসাম উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিট্রেট উজালা রাণী চাকমার নেতৃত্বে এই উচ্ছেদ অভিযান চালানো হয়।

দেশের বিভিন্ন স্থানে রেলওয়ের জায়গা উদ্ধারে অভিযান চালালেও লাকসামে রেলওয়ের জায়গা উদ্ধারে অবৈধ স্থাপনা এবং বিভিন্ন কলোনীর বাসা-বাড়িতে অবৈধ দখলদারদের বিরুদ্ধে রেলওয়ের ভূ-সম্পত্তি বিভাগ গত ১৭ নভেম্বর উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনার কথা থাকলেও অদৃশ্য কারনে তা এতদিন বন্ধ ছিল।

এদিকে লাকসাম রেলওয়ে জংশন সংলগ্ন আশ-পাশ এলাকায় রেলওয়ের মালিকানাধীন ভূমিতে ও অবৈধ স্থাপনা, অবকাঠামো ও দোকানপাট উচ্ছেদের কথা থাকলেও কেবলমাত্র রেলওয়ে হরিজন পল্লীতে (সুইপার কলোনী) এই উচ্ছেদ অভিযান পরিচালিত হয়। কিন্তু রেলওয়ে জংশন বাজারে শত শত অবৈধ দোকানপাট, স্থাপনা ও অবকাঠামো থাকলে সেখানে কোনো ধরণে অভিযান পরিচালিত হয়নি। ফলে এখন জনমনে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে রেলওয়ে জংশন এলাকার একাধিক লোজনের অভিযোগ, একটি প্রভাবশালী মহলের হস্তক্ষেপে লাকসাম রেলওয়ে জংশন বাজারে শত শত অবৈধ স্থাপনা থাকলেও ওইগুলো উচ্ছেদ করা হয়নি।

কিছু জায়গা বাদ দিয়ে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনার বিষয়ে জানতে চাইলে চট্টগ্রাম বিভাগীয় রেলওয়ে ব্যবস্থাপক (ডিআরএম) মো. বোরহান উদ্দিন বলেন, রেলওয়ের জায়গায় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান অব্যাহত থাকবে। এটি চলমান প্রক্রিয়া। পর্যায়ক্রমে সকল অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হবে। এটি সময়ের ব্যাপার মাত্র।

অপরদিকে রেলওয়ের হরিজন পল্লীতে (সুইপার কলোনী) অভিযান পরিচালনা করায় ওই সম্প্রদায়ের লোকজন চরম বিপাকে পড়েছেন। পরিবার পরিজন নিয়ে তাঁদের এখন খোলা আকাশের নিচে দিনাতিপাত কাটাতে হবে।

লাকসাম রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, এখানে বিভিন্ন কলোনীতে ৪৩২টি বাসা রয়েছে। তার মধ্যে ২৭৫টি বাসায় অবৈধভাবে বসবাস করছেন কতিপয় রেলওয়ের কর্মচারি। আবার ওইসব কর্মচারিরা ওইগুলো ভাড়া দিয়ে রেখেছে। এ ছাড়া, অবৈধ ভাবে বিদ্যুৎ, গ্যাস, পানির লাইন সংযোগ দিয়েছে। মূলত; এখানে রেলওয়ের কতিপয় অসাধু কর্মচারি-কর্মকর্তা এবং গুটি কয়েক প্রভাবশালী লোকজন রেলওয়ের জায়গা দখল করে জায়গা ভাড়া দিত।

একটি সূত্র জানায়, লাকসাম রেলওয়ে জংশনের বিভিন্ন কলোনী ছাড়াও জংশন বাজার, দৌলতগঞ্জ বাজারে রেলওয়ের জায়গায় প্রায় দেড় হাজারের বেশী অবৈধ দখলদার রয়েছে। সাধারণ নাগরিকের দাবি উচ্ছেদ অভিযান চালিয়ে রেলওয়ের জায়গা দখলমুক্ত করা হোক। এছাড়া, উদ্ধার করা জায়গায় দরিদ্র পরিবার বা প্রতিষ্ঠানকে বৈধ ভাবে ইজারা প্রদানের জন্য তাঁরা দাবি জানান।
অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযানে চট্টগ্রাম বিভাগীয় রেলওয়ে ব্যবস্থাপক (ডিআরএম) মো. বোরহান উদ্দিনের সঙ্গে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, রেলওয়ের চট্টগ্রাম বিভাগীয় ভূ-সম্পত্তি কর্মকর্তা (ডিইও) মাহবুবুর রহমান, বিভাগীয় সংকেত প্রকৌশলী (ডিইএসটি) মো. জাহেদ আবেদীন পাটোয়ারী, বিভাগীয় প্রকৌশলী (ডিইএন-১) মো. হামিদুর রহমান, বিভাগীয় বিদ্যূৎ প্রকৌশলী (ডিইই) শাকের আহমেদ।

আর পড়তে পারেন