মঙ্গলবার, ১৯শে নভেম্বর, ২০১৯ ইং

রোনালদোর ৪ গোল, লিথুয়ানিয়াকে ৫-১ গোলে হারিয়েছে পর্তুগাল

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৯
news-image

 

স্পোর্টস ডেস্কঃ

গতকাল ইউরো বাছাইপর্বের ম্যাচে লিথুয়ানিয়াকে ৫-১ গোলে হারিয়েছে পর্তুগাল। ৪ গোল করেছেন দলের সবচেয়ে বড় তারকা ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো একাই!

নিজের দেশের হয়ে ৪০ গোল করতে পারলে বিশ্বের যেকোনো ফুটবল তারকাই বর্তে যাবেন। কিন্তু ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো তো আর সাধারণ তারকা নন! তিনি অনন্য! সব মিলিয়ে দেশের হয়ে ৪০ গোল নয়, রোনালদো গোল করেছেন ৪০ আলাদা আলাদা দেশের বিপক্ষে। যার সর্বশেষ সংযোজন লিথুয়ানিয়া। এর মাধ্যমে ৪০ দেশের বিপক্ষে ন্যূনতম একটি করে গোল করা হয়ে গেল তাঁর। শুধু একটা নয়, লিথুয়ানিয়ার বিপক্ষে তিনি গোল করেছেন চার-চারটি। ভাবা যায়!

রিয়াল বেতিস তারকা উইলিয়াম কারভালহোর গোল একটি। তবে ইউরো বাছাইপর্বে লিথুয়ানিয়াকে ৫-১ গোলে হারানোর ম্যাচটি রোনালদোময়ই হয়ে থাকল। ম্যাচের ৭ মিনিটে পেনাল্টি থেকে গোল করে দলকে এগিয়ে দেন রোনালদো। তারপর অবশ্য লিথুয়ানিয়া গোলটি শোধ করে দিয়েছিল। সেটি দেখেই কি না, দ্বিতীয়ার্ধে একদম অগ্নিস্ফুলিঙ্গের মতো জ্বলে উঠলেন পর্তুগিজ রাজপুত্র। ৬২, ৬৫ আর ৭৬ মিনিটে বাকি তিন গোল করলেন। হ্যাটট্রিক তো হলোই। এই চার গোল নিয়ে ক্যারিয়ারে পর্তুগালের হয়ে ১৬১ ম্যাচ খেলে ৯৩ গোল করা হয়ে গেল তাঁর।

জাতীয় দলের হয়ে এত গোল আর কোনো ইউরোপীয় বা দক্ষিণ আমেরিকান তারকার নেই। জাতীয় দলের হয়ে সর্বকালের সর্বোচ্চ গোল দেওয়ার তালিকায় দুইয়ে উঠে আসলেন রোনালদো। শীর্ষে আছেন ইরানের কিংবদন্তি স্ট্রাইকার আলী দাইয়ি, যার গোল ১০৯টি। দাইয়িকে ছুঁতে আর মাত্র ১৬টি গোল করতে হবে রোনালদোকে। বয়সকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে যে গতিতে ছুটছেন, সে রেকর্ডটা করা সময়ের ব্যাপার মাত্র!

তবে একটা রেকর্ড ঠিকই ভেঙেছেন রোনালদো। ইউরো বাছাইপর্বে এই নিয়ে ২৫টা গোল হয়ে গেল তাঁর। বাছাইপর্বে এত গোল আর কারও নেই। আয়ারল্যান্ডের স্ট্রাইকার রবি কিন ২৩ গোল নিয়ে এত দিন ছিলেন এই তালিকার শীর্ষে। গত রাতে রোনালদো তাকেও টপকে গেলেন, ক্যারিয়ারের ৫৪তম হ্যাটট্রিক করে।

হ্যাঁ, ভুল কিছু দেখেননি, ৫৪টিই! জাতীয় দল ও ক্লাব মিলিয়ে ৫৪টি হ্যাটট্রিক হয়ে গেছে এই তারকার। জাতীয় দলের হয়ে হ্যাটট্রিক আটটি। রিয়াল মাদ্রিদ, জুভেন্টাস, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও স্পোর্টিংয়ের হয়ে বাকি ৪৬টা। প্রশ্ন উঠতেও পারে, রোনালদো কি মানুষ, না মেশিন!

আর পড়তে পারেন