বৃহস্পতিবার, ২৪শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং

রাঘব বোয়ালদের না ধরলে সরকারের চলমান দূর্নীতিবিরোধী অভিযান তামাশায় পরিণত হবে’- ড. মোশাররফ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ৬, ২০১৯
news-image

স্টাফ রিপোর্টারঃ
‘দেশ ক্রমেই অকার্যকর রাষ্ট্রের দিকে ধাবিত হচ্ছে। রাঘব বোয়ালদের না ধরলে সরকারের চলমান দূর্নীতিবিরোধী অভিযান তামাশায় পরিণত হবে’। এইসব মন্তব্য করেছেন, দেশবরেণ্য রাজনীতিক, মুক্তিযুদ্ধের বীর সংগঠক, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সিনিয়র সদস্য এবং সাবেক মন্ত্রী ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। তিনি বলেন, গণতন্ত্র, আইনের শাসন ও জবাবদিহিতা না থাকায় সরকারের আপাদমস্তক দূর্নীতিতে নিমজ্জিত। দেশ ক্রমেই অকার্যকর রাষ্ট্রের দিকে ধাবিত হচ্ছে। যা দেশের মানুষের জন্য অশনি সংকেত। শুধুমাত্র চুনোপুঁটিদের ধরার নামে আইওয়াশ চলছে, ঘটনা ধামাচাপা দেওয়ার নাটক চলছে। আড়ালে থাকা ক্যাসিনো ও  টেন্ডার  নিয়ন্ত্রক গডফাদার রাঘব বোয়ালদের ধরতে হবে, নইলে সরকারের চলমান দূর্নীতিবিরোধী অভিযান তামাশার অভিযানে পরিণত হবে।

ড.মোশাররফ রোববার কুমিল্লার দাউদকান্দি সদরে তাঁর বাসভবনে দাউদকান্দি উপজেলা ও পৌর বিএনপি’র নবগঠিত কমিটির নেতাদের উদ্দেশে বক্তৃতাকালে এই সব কথা বলেন। দাউদকান্দি উপজেলা ও পৌর বিএনপি’র নবনির্বাচিত কমিটির নেতৃবৃন্দ ড. মোশাররফকে বিপুলভাবে ফুলেল শুভেচ্ছায় অভিষিক্ত করেন, তিনিও নতুন নেতৃত্বকে অভিনন্দন জানিয়ে বরণ করেন।

বিএনপির এই নীতিনির্ধারক নেতা বলেন, ক্যাসিনো অতিমাত্রায় বৃদ্ধি এবং টে-ারবাজি নিয়ন্ত্রণহীন হয়ে পড়ায় ধামাচাপা দেওয়ার জন্য সরকার চুনোপুঁটিদের ধরে আইওয়াশ করছে। আড়ালে থাকা টে-ার ও ক্যাসিনো নিয়ন্ত্রক গড ফাদার এবং রাগব-বোয়ালদের ধরা হচ্ছে না। সরকারী উচ্চ-মহলের সহযোগিতা ছাড়া এইভাবে দেশে ক্যাসিনো, লুটপাট, কমিশন, দূর্নীতি, চাঁদাবাজি চলতে পারে না।

ড. মোশাররফ বলেন, সরকারের দুঃশাসন, দূর্নীতি, লুটপাট ও কমিশনের কারণে দেশের অর্থনীতি পঙ্গু হয়ে গেছে। ব্যাংকগুলো খালি করে ফেলেছে। ব্যাংক নি:স্ব হয়ে গেছে। সরকার সমর্থক ব্যবসায়ীরা ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে ফেরত দিচ্ছে না। এই ঋণ-খেলাফিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিয়ে বরং আরও সুযোগ করে দেয়া হচ্ছে। এই আ,লীগ নেতারা শেয়ার মার্কেট ডাকাতি করছে। দূর্নীতি ও লুটপাটের হাজার হাজার কোটি টাকা আমেরিকাসহ বিভিন্ন দেশে পাচার করছে। সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশীদের অর্থ জমার পরিমাণ দিন দিন বাড়ছে। কানাডা ও মালয়েশিয়ায় সেকে- হোম করছে। তিনি বলেন, গণতন্ত্রের মাতা,বিএনপি চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে সরকার জোর করে কারাগারে আটক রেখেছে। কোন অন্যায়ের জন্য নয়, রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ, অলিখিত বাকশাল পাকাপোক্ত, লুটপাট ও চাঁদাবাজি করার জন্য। খালেদা জিয়া বাইরে থাকলে সরকার লুটপাট, দূর্নীতি,অনিয়ম করতে পারবে না বলেই তাঁকে জামিন দেয়া হচ্ছে না। সরকার বিচার বিভাগে সরাসরি হস্তক্ষেপ করছে। জামিনযোগ্য মামলা হওয়া সত্ত্বেও দেশনেত্রীকে জামিন দেয়া হচ্ছে না।

ড. মোশাররফ বেগম খালেদা জিয়াকে কারামুক্ত করে গণতন্ত্র, দেশ ও জনগণকে বাঁচাতে কঠোর আন্দোলনের প্রস্তুতি নিতে দলীয় নেতা-কর্মীদের প্রতি উদাত্ত আহবান জানান। অন্যদের মধ্যে বক্তৃতা করেন, দাউদকান্দি উপজেলা বিএনপির নবনির্বাচিত সভাপতি একেএম শামছুল হক, সিনিয়র সহ-সভাপতি হুমায়ুন কবীর, সাধারণ সম্পাদক মো.আবুল হাশেম, পৌর বিএনপির সভাপতি নূর মোহাম্মদ সেলিম সরকার, সিনিয়র সহ-সভাপতি মোঃ মোস্তাক সরকার, সাধারণ সম্পাদক নূরুল আমিন নাঈম সরকার, দাউদকান্দি উপজেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ভিপি জাহাঙ্গীর আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক আরিফ মাহামুদ, পৌর বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব হোসেন হিরণ, সাংগঠনিক সম্পাদক খন্দকার বিল্লাল হোসেন সুমন, কুমিল্লা জেলা যুবদল সভাপতি ভিপি শাহাবুদ্দিন ভুইয়া ও দাউদকান্দি স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি কামরুজ্জামান ফকির প্রমুখ।

আর পড়তে পারেন