সোমবার, ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

মুরাদনগরে ৫৪টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে রেজিস্ট্রেশনের নামে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের অভিযোগ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ৭, ২০১৭
news-image

 

মাহবুব আলম আরিফ, মুরাদনগর ঃ
কুমিল্লা মুরাদনগর উপজেলার ৫৪টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ৯ম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে রেজিস্ট্রেশনের জন্য অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের অভিযোগ তুলেছে স্কুলের অভিভাবক ও শিক্ষার্থীরা।
জানা যায়, কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডের আওতায় মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ২০১৭-২০১৮ শিক্ষা বর্ষের ৯ম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের অনলাইন রেজিস্ট্রেশনের জন্য নির্ধারিত ফি ১৭৫ টাকা। কিন্তু উপজেলার ৫৪টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় সেই নির্ধারিত ফি তোয়াক্কা না করে অতিরিক্ত অর্থ আদায় করছে। এতে করে নি¤œ মধ্যবিত্ত পরিবারের শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা বহু কষ্ট করে অর্থ জোগাড় করে রেজিস্ট্রেশন করছে।
রামচন্দ্রপুর রামকান্ত উচ্চ বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণীর এক ছাত্রের অভিভাবক রিক্সাচালক হাবিল মিয়া বলেন, ‘হাওলাত (ধার) কইরা ৪শ টাকা আনছি আমার মাইয়ার ল্যাইগা। আমার জন্য এত টাকা দেওন কষ্ট হইছে ভাই।’
কমপক্ষে ১৫টি স্কুলের অভিভাকদের সাথে কথা হলে তারা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘ আমাদের ছেলে মেয়েরা তাদের কাছে পড়ে তাই আমরা বাধ্য হয়েই কষ্ট করে শিক্ষকদের চাহিদা পূরণ করছি। বিদ্যালয়ের কমিটির লোকদের কাছে বলেও কোন কাজ হয়না বরং তাদেরকে সাথে নিয়েই স্কুলের প্রধান শিক্ষকরা বেশি টাকা নিচ্ছে।
সরেজমিনে দেখা যায়, নূরুন্নাহার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রতি ছাত্রের কাছ থেকে ৫শ টাকা, রামচন্দ্রপুর আকব্বরের নেছা উচ্চ বিদ্যালয়ে ৫শ টাকা, রামচন্দ্রপুর রামকান্ত উচ্চ বিদ্যালয় ৪শ , কোরবানপুর জিএম উচ্চ বিদ্যালয় ৪শ, মোচাগড়া আর্দশ উচ্চ বিদ্যালয় ৩৫০, দারোরা ডিনেশ উচ্চ বিদ্যালয়য় ৩৫০, বাইড়া স্কুল এন্ড কলেজ ৩শ, শ্রীকাইল কে কে উচ্চ বিদ্যালয় ৩৫০, শ্রীকাইল নজম উদ্দিন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ৩৫০টাকা করে প্রতি শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে রেজিস্ট্রেশন ফি আদায় করছে বিদ্যালয় কতৃপক্ষ।
নূরুন্নাহার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সৈয়দা হাসিনা আক্তার বলেন, রেজিস্ট্রেশন ও উন্নয়ন ফি বাবদ ৫শ টাকা নেয়া হয়েছে।
রামচন্দ্রপুর রামকান্ত উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক তাজুল ইসলাম বলেন, অফিসিয়াল খরচসহ রেজিস্ট্রেশন বাবদ ৪শ টাকা নেয়া হয়েছে।
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সফিউল আলম তালুকদার জানান, অতিরিক্ত টাকা যদি কোন বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ নেয়, প্রমান পেলে ব্যবস্থা নিব।
কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডের বিদ্যালয় পরিদর্শক মোহাম্মদ ইলিয়াছ উদ্দিন বলেন, অতিরিক্ত ফি আদায়ের বিষয়টি আমার জানা নেই, এ নিয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার সাথে কথা বলবো।