শুক্রবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং

মুরাদনগরে প্রচার প্রচারণায় সরব প্রার্থীরা, স্বস্তিতে সাধারণ ভোটার

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ২৩, ২০১৯
news-image

মাহবুব আলম আরিফঃ
প্রথমবারের মতো এবার দলীয় প্রতীকে আনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে উপজেলা নির্বাচন। ফলে এবার ভোট নিয়ে ক্ষমতাসীন দলে আছে বাড়তি আগ্রহ। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে হেরে যাওয়া বিএনপির নেতাকর্মীদের মধ্যে আগ্রহে ভাটা পড়েছে উপজেলা নির্বাচন নিয়ে। আসন্ন (৩১শে মার্চ) উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে কুমিল্লা-৩ মুরাদনগর আসনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রতিক (নৌকা) পেয়েছে, আহসানুল আলম কিশোর, জাতীয় পার্টি থেকে দলীয় প্রতিক (লাঙ্গল) পেয়েছে নাজমা বেগম, সতন্ত্র প্রার্থী হয়ে (কাপ-পিরিচ) প্রতিক পেয়েছে গোলাম কিবরিয়া ও (আনারস) প্রতিক পেয়েছে মোঃ তসলিম মিয়া।

উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হয়েছে ৭ জন তার মধ্যে (চশমা) প্রতিকে রয়েছে আবুল কালাম আজাদ, (উড়োজাহাজ) প্রতিকে রয়েছে হাবিবুর রহমান, (তালা) প্রতিকে রয়েছে আতিকুর রহমান হেলাল, (বই) প্রতিকে রয়েছে আলী ইমাম কাউছার, (টিয়া পাখি) প্রতিকে রয়েছে রাজিব, (টিউবওয়েল) প্রতিকে রয়েছে আবদুল্লাহ নজরুল ও (মাইক) প্রতিকে রয়েছে মোহাম্মদ আলম।
উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হয়েছে ৩জন, (হাঁস) প্রতিকে রয়েছে সানোয়ারা বেগম লূনা, (কলস) প্রতিকে রয়েছে কুলসুম আক্তার মিতু ও পদ্মফুল প্রতিকে রয়েছে আছমা বেগম রত্না।

২২টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত এ উপজেলা। সময় খুব কম হওয়া সকল ভোটারদের দোরগোড়ায় পৌঁছানোর জন্য মনোনয়ন দাখিলের পর থেকেই গণসংযোগে নেমেছেন প্রার্থীরা। ভোটারদের মন জয় করতে উপজেলা সদর থেকে প্রত্যন্ত অঞ্চলেও ছুটে বেড়াচ্ছেন তারা। এরই মধ্যে সকল প্রার্থীদের ব্যানার পোস্টারে ছেয়ে গেছে পুরো উপজেলা সদর। ভোটের মাঠে সকল প্রার্থীদের উপস্থিতি দেখে ভোটাররাও যেন এখন স্বস্তিতে নিঃশ্বাস ফেলছে। তাদের ধারণা প্রার্থীরা যেহেতু প্রচার প্রচারণায় কোন প্রকার বাধার সম্মুখীন হচ্ছে না। সে ক্ষেত্রে নির্বাচন সুষ্ঠু হওয়াটাই স্বাভাবিক।
উপজেলা সদরের ইউপি সদস্য আক্তার হোসেন বলেন, উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের মনোনয়ন দাখিলের পর থেকে প্রার্থীদের প্রচার-প্রচারণা চোখে পরার মতো। এখন পর্যন্ত কোন প্রার্থী বাধার সম্মুখীন হয়েছে দুরের কথা কোন প্রকার পোস্টারে কেউ হাত দিয়েছে এ ধরণের কথাও কানে আসেনি।

উপজেলা নির্বাচন অফিসার ও সহকারী রিটার্নিং অফিসার মাসুদ আহমদ সিকদার বলেন, উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে প্রার্থীদের কাছ থেকে আমার কার্যালয়ে এখন পর্যন্ত কোন প্রকারের লিখিত বা মৌখিক অভিযোগ পাইনি। এখন পর্যন্ত যেহেতু কোন প্রার্থী লিখিত বা মৌখিক অভিযোগ করেনি। সে ক্ষেত্রে আমাদের ধারণা নির্বাচনি মাঠে প্রার্থীরা প্রচার-প্রাচরণায় কোন প্রকার বাধার সম্মুখীন হচ্ছেনা।

এ বিষয়ে মুরাদনগর থানার অফিসার ইনচার্জ একেএম মনজুর আলম বলেন, এখন পর্যন্ত মুরাদনগর থানা এলাকায় নির্বাচনি পরিবেশ সুষ্ঠু স্বাভাবিক আছে। সকল প্রার্থীরা বিনা বাধায় সুষ্ঠু এবং সুন্দর ভাবে নির্বাচনি প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে। নির্বাচনি প্রচারণায় বাধা বিঘœ কিংবা কোনো বিশৃঙ্খলা সংক্রান্তে কোন প্রার্থী লিখিত বা মৌখিক অভিযোগ করেনি। আমরা আসাকরি আগমী ৩১শে মার্চ একটি সুষ্ঠু ও সুন্দর নির্বাচন উপহার দিবো।

আর পড়তে পারেন