শুক্রবার, ২২শে নভেম্বর, ২০১৯ ইং

মুরাদনগরে ডায়রিয়ায় মৃত্যুকে হত্যা মামলা দেয়ার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ১৩, ২০১৯
news-image

 

মাহবুব আলম আরিফ, মুরাদনগর প্রতিনিধি ঃ
কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলায় জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুকে হত্যার ঘটনা সাজিয়ে পালাসুতা গ্রামের আব্দুল মালেক সরকারের পরিবারের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের ও বাদীর অব্যাহত হুমকি এবং বাড়ী-ঘরে লুটপাটের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছে ভুক্তভোগী পরিবার ও এলাকাবাসী। শনিবার সকালে মুরাদনগর প্রেসক্লাবে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

সম্মেলনে ভুক্তভোগী পরিবারের আব্দুল মালেক সরকারের ছেলে মামলার প্রধান আসামী নাজমুল হাসান ছাইম লিখিত বক্তব্য পড়েন। ওই বক্তব্যে তিনি জানান, আমার চাচা বারেক সরকার ও তার ছেলে মনিরের সাথে জমি সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে দীর্ঘদিন যাবত বিরোধ চলে আসছিল। গত ১২ মার্চ (মঙ্গলবার) আব্দুল বারেক সরকারের ২য় স্ত্রী শারমিন আক্তার(৩৫) ডায়রিয়া রোগে আক্রান্ত হয়ে জেলার দেবিদ্বার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হন। পর দিন ১৩ মার্চ (বুধবার) দুপুর ২ টা ৪৫ মিনিটে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হলে শারমিনের সৎ ছেলে মনির তাকে কুমিল্লা হাসপাতালে না নিয়ে পরিকল্পিত ভাবে একই গ্রামের মনু মিয়ার ছেলে আসাদ মিয়ার মাধ্যমে গ্রামের বাড়িতে নিয়ে আসে। কিন্তু রহস্যজনক কারনে ঐদিনই সন্ধ্যা ৭ টায় আসাদ মিয়ার বাড়িতে তার মৃত্যু হয়। পরে শারমিনের সৎ ছেলে মনিরুল ইসলাম বাদী হয়ে ১৪ মার্চ মুরাদনগর থানায় আমাকে প্রধান আসামীসহ তিনটি পরিবারের ৮ জনের নাম উল্লেখ্যসহ অজ্ঞাত আরো ৩ জনের নামে একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। লাশের সুরতহাল রির্পোটে মুরাদনগর থানা পুলিশ আঘাত ও ক্ষত না পেলেও এ ঘটনায় হত্যা মামলা হওয়ায়। আমার চাচাত ভাই মনির একই গ্রামের আবুবক্কর সালাফীর সহযোগীতায় তার দলবল নিয়ে আমাদের তিনটি পরিবারকে গ্রাম ছাড়া করে ৪টি বসত ঘরের সকল মালামাল লুট করে গোয়াল ঘরে থাকা ৪টি উন্নত প্রজাতির গরু নিয়ে যায় এবং বাড়ীর পাশের প্রায় ৭০টি বিভিন্ন প্রকারের গাছ কেটে নিয়ে যায়। এখন আমার একটাই আবেদন এই মিথ্যা মামলার তদন্ত করে যেন সুষ্ঠু বিচার করা হয়।

নিজ বাড়িতে শারমিনের মৃত্যুর বিষয়টি স্বীকার করে আসাদ মিয়া বলেন, শারমিনের বিয়ের প্রথম সাক্ষী আমি। তারপর থেকেই শারমিনের সাথে আমাদের পারিবারিক সর্ম্পক হয়। শারমিনের অসুস্থতার খবর শুনে আমি ও আমার স্ত্রী দেবিদ্বার হাসপাতালে দেখতে যাই। তার অবস্থা আশঙ্কাযনক হওয়ায় তাকে হাসপাতাল থেকে আমার বাড়িতে নিয়ে আসি এবং সন্ধ্যা ৭ টায় তার মৃত্যু হয়।
এ বিষয়ে দেবিদ্বার উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আহাম্মদ কবীর সত্যতা স্বীকার করে বলেন, শারমিন আক্তার গত ১২ মার্চ মাথা ব্যাথা, বমি ও হেডেক উইথ বুমিটিং (ডায়রিয়া) সমস্যায় এখানে ভর্তি হয়েছিল। ১৩ মার্চ দুপুর ২ টা ৪৫ মিনিটে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়।

বাদী মনিরুল ইসলাম বলেন, অভিযোক্তদের সাথে পূর্বের মারধরের ঘটনায় অসুস্থ হয়ে পরলে আমার ছোট মা শারমিন আক্তারকে দেবিদ্বার হাসপাতালে ভর্তি করি। চিকিৎসক তার উন্নত চিকিৎসার জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করে এবং সেখানে নেওয়ার সময় মায়ের মৃত্যু হয়।

এ বিষয়ে মুরাদনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কেএম মনজুর আলম বলেন, মামলাটি তদন্ত চলছে। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে। বাড়ী-ঘরে লুটপাটের বিষয়টি আমার জানা নেই, অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে।

আর পড়তে পারেন