শুক্রবার, ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

মুরাদনগরে আওয়ামীলীগের সদস্য সংগ্রহ অনুষ্ঠানের ঢোল-বাজনায় ব্যাঘাত ঘটল জেএসসি পরীক্ষার্থীদের।। জুতা পায়ে স্মৃতিসৌধ অবমাননার অভিযোগ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
নভেম্বর ৩, ২০১৭
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টার ঃ
জেএসসি পরীক্ষার টানা এক ঘন্টার ব্যাঘাত ঘটিয়ে ও উপজেলায় স্থাপিত স্মৃতিসৌধে জুতা পায়ে অনেকের প্রবেশে অবমাননার মধ্য দিয়ে শেষ হলো কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার আওয়ামীলীগের সদস্য পদ নবায়ন ও প্রাথমিক সদস্য সংগ্রহ অনুষ্ঠান। ফলে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন উপজেলা আ’লীগের অনেক নেতৃবৃন্দ ও সাধারণ মানুষেরা।
বৃহস্পতিবার (২ নভেম্বর) সকালে উপজেলা মাঠ প্রঙ্গনে এ অনুষ্ঠানটি অনুষ্ঠিত হয়।
জানা যায়, কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম সরকারের উদ্যোগে মুরাদনগর উপজেলার আওয়ামীলীগের সদস্য পদ নবায়ন ও প্রাথমিক সদস্য সংগ্রহ করার জন্য উপজেলা মাঠ প্রঙ্গনে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এ আয়োজনকে ঘিরে বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে আওয়ামীলীগের নেতা কর্মীরা বাদ্য যন্ত্র ও সাউন্ড বক্সে মিউজিক বাজিয়ে মুরাদগনর স্কুল খেলার মাঠে উপস্থিত হন। অপর দিকে একই সময় মাঠের পাশের দুইটি পরীক্ষাকেন্দ্রে মোট ৪১৭ জন পরিক্ষার্থীর বাংলা ২য় পত্র পরীক্ষা চলছিলো। সকাল ১০টা থেকে শুরু করে পুরো এক ঘন্টা বাইরের বাদ্যযন্ত্রের শব্দ দূষণের কারনে পরিক্ষার্থীদের লিখতে সমস্যা হয়। তারা পরীক্ষা দিতে পারছে না বলে শিক্ষকদের জানান। শিক্ষকরা তাদের অনেক বুঝিয়ে পরিক্ষা শেষ করতে বলেন।

এদিকে বাইরে থাকা অভিভাবকরা এই বিষয়টি নিয়ে অনেক ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তারা বলেন, অনুষ্ঠান উপজেলা মাঠে কিন্তু কর্মীরা একসাথে যাওয়ার জন্য স্কুল মাঠে এসে জমাট হয়। তাদের মিউজিকের কারনে স্কুলের দরজা পর্যন্ত কেপে উঠে, আমরা অনেকেই তাদের মিউজিক বন্ধ করতে বলেছি। তারা জবাবে বলেন, আমরা জাহাঙ্গীর আলমের লোক, মিউজিক বাজবে। এদিকে পুরো অনুষ্ঠান চলাকালীন সময় উপজেলায় স্থাপিত স্মৃতিসৌধের উপরে কয়েকশো কর্মী জুতা পায়ে দিয়ে শোডাউন করে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান।

এ বিষয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান সৈয়দ আবদুল কাইয়ুম খসরু জানান, প্রথম থেকেই স্মৃতিসৌধে উঠার জন্য আমাদের নিষেধ ছিলো। কিন্তু অনুষ্ঠানে নেতা কর্মীদের উপস্থিতি বেশি হওয়ায় এই ঘটনাটি ঘটেছে। অপর দিকে পরিক্ষা চলাকালিন সময়ে স্কুল মাঠে নেতা কর্মীদের মিউজিক বাজানোর ঘটনাটি আমার জানা নাই। যদি এই ধরনের ঘটনা ঘটে থাকে তাহলে থানার ওসির উচিত ছিলো আমাকে জানানো এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা। যেহেতু স্কুল মাঠ থানার সামনে অবস্থিত।

মুরাদনগর উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক বাবু পার্থ সারথী দত্ত জানান, এটা সম্পূর্ণ অনৈতিক। যে উপলক্ষকে সামনে রেখে তারা এ অনুষ্ঠানটি করেছে, এমন অনুষ্ঠান আমরা সাধারণত অতীতে উপজেলা বর্ধিত সভা ডেকে ঘরোয়াভাবে আমরা করতাম । কোমলমতি ছাত্র-ছাত্রীদের পরীক্ষা কেন্দ্রের সামনে উপজেলাবাসীকে ডেকে ব্যান্ড-বাদ্য বাজনা করে শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার ব্যাঘাত ঘটিয়ে এমন অনুষ্ঠান করা অনৈতিক। পরীক্ষাচলাকালীন সময়ে এমন ঘটনা কাম্য নয়। জুতা পায়ে শহীদ মিনারে উঠা , এটাও অনৈতিক। পাশাপাশি ৩ নভেম্বর জেলহত্যা দিবস। ওইদিন আমরা জাতীয় চার নেতাকে হারিয়েছি। এমন শোকাবহ দিনের আগের দিন এমন আনন্দঘন অনুষ্ঠান করা চার নেতার প্রতি অবমাননারও শামিল।

এ বিষয়ে মুরাদনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম বদিউজ্জামান জানান, সকালে যখন আমি জানতে পারি কর্মীরা স্কুল মাঠে জোরে মিউজিক বাজাচ্ছে, তখন আমি তাদের স্থান ত্যাগ করতে বলি। কিছুক্ষন পর তারা উপজেলার দিকে চলে যায়।

আর পড়তে পারেন