শনিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ইং

মুক্তিযুদ্ধের দুই যোদ্ধা এখনও পায়নি মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জানুয়ারি ৭, ২০২০
news-image

নাছরিন আক্তার হীরাঃ
লাখো লাখো মানুষের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত হয়েছে বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা। মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিল কিশোর থেকে বৃদ্ধ বয়সী সকল শ্রেণি পেশার মানুষ। উদ্দেশ্য একটাই, প্রিয় মাতৃভূমিকে পাক হানাদার বাহিনীর হাত থেকে মুক্ত করা। ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ সেই কালো রাত্রিতে এদেশের নিরীহ জনগণের উপর ঝাপিয়ে পড়েছিল পাক হানাদার বাহিনী। ঘরে বাহিরে পথে-ঘাটে নিরীহ বাঙ্গালির মরদেহ পড়েছিল। ওই সময় পাক দোসরদের বিরুদ্ধে সংগ্রামে নেমেছিল নিরস্ত্র, প্রশিক্ষণহীন এদেশের লাখো তরুণ সমাজ। তাদের মতই কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার দুলালপুর ইউনিয়নের বেজুরা গ্রামের কিশোর মোহাম্মদ শাহ আলম (১৯) ও দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী মোঃ মিজানুল আলম ভূইয়া ওরফে মিজান মাষ্টার (১৭) এপ্রিলের শেষের দিকে বাড়ি থেকে বের হয়ে যান দেশকে স্বাধীনতা উপহার দেওয়ার সংকল্পে। ভারতের বক্সনগর যুব শিবিরে প্রশিক্ষণ নিয়ে একাধিক জায়গায় যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। দেশ স্বাধীনতার পর তারা বাড়িতে ফিরে এসে বিভিন্ন কর্মে জড়িয়ে পড়েন। পরবর্তীতে বিভিন্ন কারণে তাদের মুক্তিযোদ্ধার সেই পদবী পাওয়া আর হয় নি। ফলে প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা হয়েও সম্মান আর সরকারি সকল সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত হন তারা। বর্তমানে আর্থিক অনটনে পরিবার নিয়ে বেশ করুণ জীবনযাপন করছেন এই রণাঙ্গণের দুই যোদ্ধা । এই দুই মুক্তিযোদ্ধার যুদ্ধ-পরবর্তীতে পদবী না পাওয়ার কারণ পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হল।

বেজুরা গ্রামের মৃত. আলী আকবর ভূইয়ার ছেলে মোঃ মিজানুল আলম ভূইয়া ওরফে মিজান মাষ্টার জানান, ২৬ শে মার্চ রাতে পাক হানাদার বাহিনী দেশজুড়ে ধ্বংসলীলা চালায়। চারদিকে ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে থাকতে দেখা গেল হাজার হাজার শিশু, নারী-পুরুষের রক্তাক্ত মরদেহ। এসব দেখে আর সহ্য করতে পারলাম না। সিদ্ধান্ত নিলাম যুদ্ধে যাবো। নিজের প্রাণের বিনিময়ে দেশকে শত্রুর হাত থেকে রক্ষা করবো। এর আগে ৭ মার্চ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ঘোষণা দিয়েছিলেন- “এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম। যার যা কিছু আছে তা নিয়ে প্রস্তুত থাকো—-” সেই ভাষণের ধ্বনি কানে ভেসে আসতো বার বার। সেই ভাষণে অণুপ্রাণিত হয়ে আমি আর আমার প্রতিবেশি ভাই মোহাম্মদ শাহ আলমসহ ৬/৭ জন এপ্রিলের শেষের দিকে বাড়ি থেকে বের হই। লক্ষ্য ছিল ভারতের বক্সনগরে গিয়ে প্রশিক্ষণ নিয়ে যুদ্ধে অংশগ্রহণ করা। যেই ভাবা সেই কাজ। রাতের আধারে কন্টকাকীর্ণ পথ অতিক্রম করে বক্সনগরে গেলাম। সেই ক্যাম্পের প্রধান ছিলেন আব্দুর রউফ সাহেব। আমার আর শাহ আলমের উচ্চতা বেশি না হওয়ায় প্রথমে ক্যাম্পের কর্তৃপক্ষ আমাদের নিতে চায় নি। মনটা খারাপ হয়ে গেল। ক্যাম্পের বাইরে দাঁড়িয়ে থাকলাম। এমন সময় মোঃ ইউনুছ ( পরবর্তীতে একাধিকবার সাংসদ নির্বাচিত হয়েছিলেন) এবং আব্দুল মতিন খসরু ভাইয়ের ( একাধিকবারসহ বর্তমান সাংসদ) সাথে দেখা হয়। তাদেরকে বললাম-আমরা যুদ্ধ করবো। কিন্তু উচ্চতা কম হওয়ায় আমাদের নিচ্ছে না। পরে ইউনুস ভাই ও খসরু ভাই আমাদের ক্যাম্পে নিয়ে গেল এবং আমাদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করে দিল। শুরু করলাম প্রশিক্ষণ। মাস খানেক পর আমাদের নিয়ে যাওয়া হল বেলুনিয়া সেক্টরে । সেখানে একটা বড় ধরণের যুদ্ধ হয়েছিল। সেই যুদ্ধে বেশ কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধা নিহত হয়েছে। তবে পাক হানাদার বাহিনীও অনেক মারা গেছে। সেখানে ১০ দিন যুদ্ধ শেষে ক্যাম্পে ফিরে আসি। পরে বীর বিক্রম আব্দুল বারি আমাদের ক্যাম্পে এসে ৫/৬ জন সহযোদ্ধা চাইলো সালদানদী এলাকায় একটি যুদ্ধের জন্য। আমি ও শাহলমসহ ৫ জন এ যুদ্ধে অংশগ্রহণ করি। এখানে অ্যাম্বুশ করে যুদ্ধ করেছি। মানে জালপাতা কৌশলে যুদ্ধ করেছি। এখানে কোন মুক্তিযোদ্ধা মারা যায়নি। তবে বেশ কয়েকজন পাকসেনা মারা গেছে। যাহোক যুদ্ধ শেষে ক্যাম্পে ফিরে গেলাম। পরবর্তীতে বিভিন্ন জায়গায় যুদ্ধ করেছি। এক সময় দেশ স্বাধীন হল। আমরা দেশে ফিরে আসলাম। যুদ্ধের পরে রাজাকার, আলবদররা তাদের কাছে থাকা গোপন অস্ত্র দিয়ে বিভিন্ন অপকর্ম করতে শুরু করলো। আর দোষ পড়লো মুক্তিযোদ্ধাদের।

সাধারণ মানুষ ভুল বুঝতে শুরু করলো মুক্তিযোদ্ধাদের। আমরাও তাই আর সাহস করে মুক্তিযোদ্ধা পরিচয় দিতে চাইনি। পরবর্তীতে পড়ালেখা করে শিক্ষকতা পেশায় চলে গেলাম। পরে ৩০/৩৫ বছর যাবত সরকারিভাবে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে আমাদের আর নাম আসেনি। সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদের আমলে মুক্তিযোদ্ধার তালিকা করা হয়। কিন্তু আমি খবর পাইনি। ফলে মুক্তিযোদ্ধার তালিকায়ও নাম উঠেনি। বর্তমান মুক্তিযোদ্ধাবান্ধব সরকারের আমলে ২০১৭ সালে অনলাইনে মুক্তিযোদ্ধার আবেদন করতে বলা হয়েছিল। কিন্তু এবারও দুর্ভাগ্যবশত আমি খবর পাইনি। স্থানীয়ভাবে সাক্ষাৎকার নেওয়ার কথা থাকলেও আমাদের সাক্ষাৎকার আর নেওয়া হয়নি। যুদ্ধের পর যেসব সার্টিফিকেট পেয়েছি সেগুলো আমি হারিয়ে ফেলেছি। ২০১৭ সালে আমাদের কোম্পানি কমান্ডারের সাথে কসবায় দেখা করে বাড়িতে ফেরার পথে সিএনজিতে আমার কাগজপত্রগুলো হারিয়ে ফেলেছি। পরে থানায় জিডি করেছি। জীবনের অন্তিম সময়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কণ্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আকুতি জানাই, আপনি তো মুক্তিযোদ্ধা বান্ধব। আপনার সময়েই মুক্তিযোদ্ধারা সম্মানিত হয়েছে। বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা ভোগ করছে। আমাদের মত অনেক মুক্তিযোদ্ধা আছে, যারা প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা হয়েও এখনো খেতাব পায়নি। মুক্তিযোদ্ধার তালিকায় নাম উঠেনি। আপনিই পারেন জীবনের শেষ সময়ে আমাদের একটু সম্মানিত করতে। অন্তত মুক্তিযোদ্ধার খেতাব পেয়েই যাতে মরতে পারি। এটাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে শেষ চাওয়া।

বেজোড়া গ্রামের কালা মিয়ার ছেলে মোহাম্মদ শাহ আলম জানান, আমি আর মিজান মাষ্টার এক সাথেই যুদ্ধে গেছি। আমরা বেলুনিয়া সেক্টর, শালদানদী আর মাধবপুরসহ বেশ কয়েটি জায়গায় যুদ্ধ করেছি। আমরা বেশিরভাগ যুদ্ধ অ্যাম্বুশের মাধ্যমে করতাম। যার ফলে কম মুক্তিযোদ্ধাই মারা গেছে। বেশিরভাগ সময় তাদের লোকই মারা গেছে। বেলুনিয়াতে আমার হাতে ৫ জন আর শালদানদী এলাকায় ২ জন পাক সেনা মারা গেছে। দেশ স্বাধীনের পর দেশে আসি। এরপর মালেশিয়া শিবিরে আমাদের ডাকা হল। সেখানে আমাদের এক মাস রাখা হল। জেনারেল ওসমানির স্বাক্ষরিত সার্টিফিকেট দেওয়া হলো আমাদের। আমরা বাড়িতে চলে আসলাম। যুদ্ধের পর কিছু রাজাকার অপকর্ম করা শুরু করলো । অনেকে বলাবলি শুরু করলো যারা দেশ স্বাধীন করছে, তাদের মেরে ফেলা হবে। আমি ভয়ে আমার সার্টিফিকেট ঘরের ট্রাংকের নিচে রেখে দিলাম। সার্টিফিকেটের প্রায় অর্ধেকটা উলু খেয়ে ফেলছে। পরবর্তীতে ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার আশাবাড়ি এলাকার জলিল মিয়ার কাছে গেছি মুক্তিযোদ্ধার খাতায় নামটা লেখানোর জন্য। ওই লোক আমার আসল সার্টিফিকেটটা রেখে পরে আসতে বললো। আমি কয়েকদিন পর যোগাযোগ করলে তিনি জানান আমার সার্টিফিকেট হারিয়ে ফেলেছেন। ওই লোক আমার সাথে প্রতারণা করলো। এখন আমার কাছে শুধু ফটোকপি রয়েছে। পরে যখন অনলাইনে আবেদনের জন্য বলা হলো, তখন আমি আবেদন করেছি। কিন্তু সাক্ষাৎকারের সময়সূচী আমাকে জানানো হয়নি। ফলে সাক্ষাৎকার দিতে পারিনি। এখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাই একমাত্র ভরসা। তিনিই পারেন আমাদের প্রাপ্য সম্মান ফিরিয়ে দিতে। আমি দেশের জন্য যুদ্ধ করেছি। অথচ আমার পরিবার নিয়ে আজ অনেক কষ্টে জীবনযাপন করছি। আর্থিক অনটনে ভুগছি।

স্থানীয় ওমান প্রবাসী মৃত. আমির হোসেন ভূইয়ার ছেলে শামসুল হক ভূইয়া জানান, যুদ্ধ যখন শুরু হয় তখন মোহাম্মদ শাহ আলম ও মোঃ মিজানুল আলম ভূইয়া ওরফে মিজান মাষ্টার ভারতের বক্সনগর ক্যাম্পে যায়। তারা ৬/৭ জন ক্যাম্পে যায় । আমি তাদেরকে এগিয়ে দিয়ে আসি। তবে আমি যুদ্ধ করিনি। তারা যুদ্ধ করেছে।

স্থানীয় কৃষক মমিনুল ইসলাম (৬৯), আব্দুল মালেক ভূইয়া (৭৫) ও জয়দল হোসেন (৬৪), পুলিশের সাবেক উপ-পরিদর্শক কাজী এয়াকুব আলী ভূইয়া (৯৬) এবং ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা পরিষদের সাবেক কর্মকর্তা হাজী আব্দুল খালেক ভূইয়া (৭৪) জানান, তারা দুইজন প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা। তারা দেশের জন্য যুদ্ধ করেছে। তাদের প্রাপ্য সম্মান দেওয়া উচিত।

যুদ্ধের পর তারা যেসব কাগজপত্র পেয়েছেনঃ
মোহাম্মদ শাহ আলম মিয়ার কাছে স্বাধীনতা সংগ্রামের সনদপত্র রয়েছে। যেখানে ২ নম্বর সেক্টরের আঞ্চলিক অধিনায়কসহ অন্যান্যদের স্বাক্ষর রয়েছে। আর মোঃ মিজানুল আলম ভূইয়া ওরফে মিজান মাষ্টারের কাছে রয়েছে বেশ কয়েকটি কাগজপত্র। যেমন-ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার দুলালপুর ইউনিয়ন কমান্ডারের স্বাক্ষরিত প্রত্যয়নপত্র (১১/২/১৭ইং), সহযোদ্ধা মুক্তিযোদ্ধা গেজেটভুক্ত একই উপজেলার মোঃ হানিফের প্রত্যয়নপত্র,মুক্তিযোদ্ধা আবদুল বারিক বীর বিক্রমের প্রত্যয়নপত্র (যেখানে তিনি উল্লেখ করেছেন একটি যুদ্ধে মিজান উনার অধীনে যুদ্ধ করেছেন) এবং প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই এর জন্য নির্ধারিত ফরমে বর্তমান সাংসদ আবদুল মতিন খসরুর সুপারিশনামা।

এ বিষয়ে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধার ডেপুটি কমান্ডার আবুল বাশার জানান, সামনে আবার মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই হবে। যারা প্রকৃত মুক্তিযুদ্ধ করেছে তাদের মূল্যায়ণ করা হবে।

আর পড়তে পারেন