শনিবার, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

ভ্রমণ : গুলিয়াখালী সী-বিচ নৈস্বর্গিক সৌন্দর্যের হাতছানি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ৪, ২০১৮
news-image

মোঃ এমদাদ উল্যাহ

গুলিয়াখালী সী-বিচ। চট্টগ্রাম জেলার সীতাকুন্ড উপজেলায় অবস্থিত। সীতাকুন্ড বাজার থেকে সিএনজি অটোরিকশা করে সেখানে যাওয়া সহজ। প্রচলিত সী বিচ বলতে আমরা যা দেখি তার থেকে গুলিয়াখালী সী-বিচ অনেকটাই আলাদা। তবে প্রচারণা ও সরকারের পৃষ্ঠপোষকতার অভাবে সী-বিচটি জমে উঠছে না। পর্যটনের অপার সৌন্দর্যের হাতছানি এই গুলিয়াখালী সী-বিচ।

সীতাকুন্ড বাজার থেকে সিএনজি করে গুলিয়া বিচে যাওয়া যায় ভেড়ি বাঁধ পর্যন্ত। এক পাশে বিশাল সবুজ মাঠ আর সারি সারি খেজুর গাছ। অন্যপাশে ছড়ানো ছিটানো কেওড়া বন ও ও কিছু ম্যানগ্রোভ উদ্ভিধ। আসলে অযতেœ অবহেলায় বেড়ে উঠেছে এগুলো। সমুদ্রের ঢেউয়ের সাথে ভেসে আসা ডাল আর বীজ মাটিতে গেঁথে জন্ম হয়েছে এই বনের।

এই অপরিসর বনের ভেতর দিয়ে বয়ে চলেছে ছোট ছোট খাল। সমুদ্রের খুব কাছে হওয়ায় এগুলোতেও জোয়ারভাটা হয়। সাগরের সাথে যুক্ত ছোট খালগুলোতে সামুদ্রিক মাছ পাওয়া যায়। তবে বেশি মেলে কাঁকড়া। বর্তমানে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশে কলকারখানার হওয়ার কারণে খালগুলোতে বর্জ্য থাকে। এভাবে যেতে যেতেই এক আপনি বনপেরিয়ে তেপান্তরের মাঠ মানে সমুদ্রের সৈকতে চলে আসবেন। এটাই গুলিয়াাখালী সী-বিচ। আয়তনে অনেক বড় না হলেও একটা ওয়াইল্ড বিচে যা থাকা দরকার, সবই ওখানে আছে বলা যায়। বিশেষ করে শীতকালে গেলে খেজুরের রস পাওয়া যায়। আর সব সময় পাবেন সমুদ্রের মাছ।

গুলিয়াখালী নামটা শুনতে খারাপ লাগলেও একবার ভ্রমণ করলে আপনার সব ধারনা পাল্টে যাবে। সেখানে দেখতে পাবেন সবুজ খোপ খোপ পাড়। যা গুলিয়াখালীর ট্রেডমার্ক দৃশ্য হিসেবে খ্যাতি পেয়েছে। পাশাপাশি পাবেন ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট ও বালুকাতট। রয়েছে জেলেদের নৌকায় করে বীচ সংলগ্ন খাল দিয়ে সমুদ্রের খানিকটা ভিতরে ঘুরে আসার সুযোগ। যেনো অপার্থিব শান্তিময় এক নৈস্বর্গিক সৈকত। সবুজ সৈকতে বসে কাটানো বিকেল আপনাকে দেবে অন্যরকম মুগ্ধকর এক অভিজ্ঞতা। যা আপনাকে মুগ্ধতার আবেশে আটকে রাখবে অনেক দিন।

গত ১ জুলাই, রোববার। দুপুর দেড়টায় ভ্রমণ পিপাসুদের বৃহত্তম সংগঠন ‘দূরন্ত এডভেঞ্চার’ এর উদ্যোগে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চৌদ্দগ্রাম বাজার থেকে একটি হাইয়েস মাইক্রোবাস যোগে আমরা বার যুবক রওয়ানা হলাম। সীতাকুন্ড বাজার এলাকায় দুপুরের খাবার গ্রহণ শেষে বিকেলে পৌঁছি গুলিয়াখালী সী-বিচে। বেরিবাঁধ পর্যন্ত মাইক্রোবাস নেয়া সম্ভব হয়েছে। বেরিবাঁধের পাশে থাকা দোকানে চা-নাস্তা শেষে হেঁটে সী-বিচের উদ্দেশ্যে যাত্রা। হাঁটতে হাঁটতে দৃশ্যমান সবই সুন্দর অবলোকন করেছি।

এরআগে যতগুলো সী-বিচ দেখেছি, এটা ব্যতিক্রম ও সুন্দর। দূরন্ত এডভেঞ্চার এর আহবায়ক মো. মোশারফ হোসেন ওপেলের পরিচালনায় ও যুগ্ম আহবায়ক সাংবাদিক এমরান হোসেন বাপ্পির সার্বিক তত্ত্বাবধানে সেখানে প্রাকৃতিক দৃশ্য অবলোকন, একক, গ্রুপ ছবি ও সেলফি তোলা পর্ব, ফুটবল প্রীতি ম্যাচসহ নানা আয়োজন হয়। সমুদ্রের পাশ ঘেষে গড়ে উঠা গাছ-গাছালী, সমুদ্রের নৈস্বর্গিক বাতাস, ঢেউয়ের তর্জন-গর্জন ও পানির ব্যতিক্রমী এক কোলাহলপূর্ণ খেলা এ যেন এক অন্য রকম আবহের সৃষ্টি করেছে। উপভোগ্য এই মনোরম দৃশ্য যেন ভুলার মত নয়। এমন নৈস্বর্গিক দৃশ্যগুলো ভ্রমণ পিয়াসুদের প্রতিটি হৃদয়ে গেঁথে যাবে অনায়াশেই। আহ! যেন অন্য রকম অনুভুতি।

দূরন্ত এডভেঞ্চার এর যুগ্ম আহবায়ক সাংবাদিক মোঃ এমদাদ উল্যাহ, মোঃ ইমাম হোসাইন ও সদস্য আবু ইউসুফ প্রকাশ গরীবুল্লাহ অভিনয়শৈলীর নানা আয়োজনে মাতিয়ে রেখেছিলেন ভ্রমণকালীন সময়টুকু।
গুলিয়াখালী সী-বিচ সিএনজি চালক সংগঠনের সভাপতি দেলোয়ার হোসেন জানান, বৃহস্পতি-শনিবার এই তিন দিন পর্যটক বেশি থাকে। পর্যটকরা নির্ভয়ে ঘুরতে পারে। তবে বিচটির উন্নয়নে সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন তিনি।

দেলোয়ার হোসেন আরও বলেন, পর্যটকরা আসলে আমাদের ভালো লাগে। তাদের থেকে আমরা অনেক কিছুই শিখি। তাদেরকে আমরা যথেষ্ট সম্মান করি।
কিভাবে যাবেন?

ঢাকা বা চট্টগ্রাম ছাড়াও দেশের যে কোন স্থান থেকে বাসে উঠে নেমে যাবেন ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সীতকুন্ড বাজার। সেখান থেকে জনপ্রিিত ভাড়ার অথবা রিজার্ভ সিএনজি অটোরিকশা করে চলে যাবেন গুলিয়াখালী সী-বিচ। সীতকুন্ড বাজার থেকে গুলিয়াখালী সী-বিচ সিএনজিতে জনপ্রতি ৩০ টাকা আর রিজার্ভ নিলে ৩০০-৩৫০ টাকা পড়বে।