সোমবার, ১৮ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

ভুল সবই ভুল, বাদুড় চোখে দেখে না

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ফেব্রুয়ারি ২০, ২০১৬

b3সবাই সত্যি জানে—এমন অনেক কথা পরে যাচাই করে দেখা গেছে, সেগুলো মিথ্যা। অবসরে সেগুলো আনতে যাচ্ছে পাঠকের গোচরে। লিখেছেন গাউস রহমান পিয়াস
সবাই বলে, বাদুড় পুরোই দৃষ্টিহীন, শব্দতরঙ্গ অনুসরণ করেই তার সব ওড়াউড়ি। বাদুড়ের শ্রবণশক্তি প্রচণ্ড প্রখর, সত্যি। তবে এ কথাটা একদম ঠিক নয় যে বাদুড় চোখে দেখে না।

মেরু দেশ ও কয়েকটি বিচ্ছিন্ন দ্বীপ ছাড়া সারা বিশ্বে বাদুড় দেখা যায়। পৃথিবীতে তালিকাভুক্ত স্তন্যপায়ী প্রাণী-প্রজাতির ২০ শতাংশ বাদুড়। বিজ্ঞানভিত্তিক সর্বশেষ তথ্য হচ্ছে—১১০০ প্রজাতির বাদুড়ের সবাই দেখতে পায় আর তা ভালোভাবেই; নিশাচর অনেক প্রাণীর মতো দৃষ্টিশক্তিটা তাদের ততো প্রখর না, এই যা। প্রধানত দুটি গোষ্ঠী বাদুড়ের—মেগাকিরোপেটরা ও মাইক্রোকিরোপেটরা। প্রথমটি আকারে মাঝারি থেকে বড়। দৃষ্টিকেন্দ্র শক্তিশালী, চোখ বড়সড়। শিকারের সময় গন্ধ ও দৃষ্টিশক্তি দুটিই এরা ব্যবহার করে। ফ্লাইং ফক্স জাতের বাদুড়ের কথাই যদি ধরি, ওরা দিনের আলোয় শুধু ভালো দেখতেই পায় না, পৃথক পৃথক রঙেই সব দেখে। সত্যি বলতে, দিনের আলোই ওদের প্রধান প্রাণশক্তি।চাঁদহীন ঘুটঘুটে রাতে মেগাকিরোপেটরা উড়তেই পারে না। ‘বাদুড় বলে, ওরে ও ভাই সজারু/আজকে রাতে দেখবে একটা মজারু। আজকে হেথায় চামচিকে আর পেঁচারা/ আসবে সবাই, মরবে ইঁদুর বেচারা।’ সুকুমার রায়ের ছড়ার এই চামচিকেই আমাদের দ্বিতীয় গোষ্ঠীর বাদুড়—মাইক্রোকিরোপটেরা।b1

এরা মূলত পতঙ্গভোজী, ক্ষুদ্রাকায়। স্তন্যপায়ী চোখের রেটিনায় দুই ধরনের আলোকগ্রাহী কোষ থাকে—দিনে ও রং দেখার জন্য কোণ, নৈশ দর্শনের জন্য রড। এই সেদিনতক ধারণা ছিল নিশাচর মাইক্রো বাদুড়ের শুধুই রড থাকে, কোণ নেই। সম্প্রতি বিজ্ঞানীরা প্রমাণ করেছেন, নাজুক, ছোট্ট চোখ দিয়েও এই বাদুড় দিনে দেখতে পায়। অন্ধকার নামলেই শিকারে বেরোতে হবে। তাই আলো-আঁধারির হিসাবটাও এদের ভালোই জানা। কাছাকাছি ওড়ার বেলায় নিজেদের শব্দের প্রতিধ্বনি শুনলেই চলে তাদের। এই চলার সময় শব্দ করে ওড়ে বাদুড়, যাতে সামনে কোনো বাধা থাকলে কতখানি দূরত্বে আছে, কোন দিকে যেতে হবে—এসব বোঝা যায়। গাঢ় অন্ধকারে চুলের মতো সরু পদার্থকেও বুঝতে পারে বাদুড়। আবার তা শনাক্ত করে এড়িয়েও চলতে জানে। দূরের পাড়িতে চোখ অবশ্যই ব্যবহার করা লাগে।b5

রব মিয়েস। মিশিগানভিত্তিক প্রতিষ্ঠান অর্গানাইজেশন ফর ব্যাট কনজারভেশনের নির্বাহী পরিচালক। মিয়েস ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক সাময়িকীকে বলেন, ‘দে আর ব্লাইন্ড অ্যাজ এ ব্যাট’ বলার দিন শেষ। বড়সড় বাদুড় মানুষের চেয়েও তিন গুণ প্রখর দৃষ্টিশক্তি রাখে। সেই সঙ্গে শব্দ ধরে পথচলায়ও বাদুড়ের জুড়ি নেই।

মিয়েস আরো বলেন, ‘আপনি যখন বলেন, ব্যাটস আর ব্লাইন্ড—বাদুড়েরা কিছু্ই মনে করে না। কিন্তু মানুষ যখন ভাবে বাদুড় কোনোই কাজে লাগে না, সেটা অনেক বড় সমস্যা তৈরি করে। প্রকৃতির যেসব প্রাণী বীজ ছড়িয়ে রেইন ফরেস্ট নতুন করে গড়ে তোলে, তাদের অন্যতম এই বাদুড়। এতে শুধু তার নয়, মানুষেরও অনেক উপকার হয়। এটি প্রকৃতির অন্তর্নিহিত সৃজনখেলা।’ এভাবে সৃষ্টি বাঁচে। এর অন্যথা হলে প্রাকৃতিক বিপর্যয় শুরু হয়, বিপর্যয় এখন ধরিত্রীব্যাপী ছড়িয়ে পড়েছে।b4

শেষ কথা হচ্ছে, দিনের বেলা কিংবা যখন পর‌্যাপ্ত আলো থাকে দেখার কাজে বাদুড় তাদের চোখ যথার্থভাবেই ব্যবহার করতে পারে। বাদুড় দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী—কথাটি ডাহা মিথ্যা। জাতগতভাবেই অন্ধ এমন কোনো বাদুড় কোথাও নেই। পার্থক্যটা হচ্ছে, পরিবেশ-প্রকৃতির তারতম্যের ফারাকে কোনো কোনো বাদুড় চোখ বেশি ব্যবহার করে, কেউ করে একটু কম। এদেরও পৃথিবীতে রং আছে। এরা সে রঙে সব কিছু রঙিন দেখে। এদেরও ভুবন আলোয় ভরা।
সূএ: কালেরকন্ঠ