বৃহস্পতিবার, ৫ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং

ভারত সফরে যেতে পারেন খালেদা জিয়া

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ফেব্রুয়ারি ২, ২০১৬

ঢাকা: বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া আগামী সপ্তাহে ভারত সফরে যেতে পারেন। ১২-১৩ ফেব্রুয়ারি নয়াদিল্লিতে অনুষ্ঠেয় ওয়ার্ল্ড কালচারাল ফেস্টিভ্যাল-২০১৬ এ অংশ নিতে তার ভারত যাওয়ার কথা রয়েছে। ওয়ার্ল্ড ফোরাম ইথিকস ইন বিজনেস ও দ্য আর্ট অব লিভিং ফাউন্ডেশন যৌথভাবে এ ফেস্টিভ্যালের আয়োজন করছে। ইতিমধ্যে আয়োজকদের পক্ষ থেকে আমন্ত্রণপত্র পেয়েছেন খালেদা জিয়া। এখনও ফেস্টিভ্যালে যোগদানের ব্যাপারে বিএনপির পক্ষ থেকে তাদের কিছুই জানানো হয়নি। তবে দলটির একটি সূত্র জানিয়েছে, ভারত সরকারের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা এবং ক্ষমতাসীন বিজেপির নীতিনির্ধারকদের সঙ্গে সাক্ষাতের সময়সূচি চূড়ান্ত করতে পারলেই আয়োজকদের ইতিবাচক সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেয়া হবে।abd (1)

জানা যায়, অতীতের সব ভুল-ভ্রান্তি দূরে ঠেলে ভারতের সঙ্গে দীর্ঘমেয়াদি আস্থার সম্পর্ক গড়ার উদ্যোগ নিয়েছে বিএনপি। এ লক্ষ্যে ভারতের ক্ষমতাসীন বিজেপির সঙ্গে ধীরে ধীরে সম্পর্কোন্নয়নের কার্যক্রম চলছে। দলটির নেতাদের মতে, জনসমর্থন যতই থাকুক কূটনৈতিক সফলতা ছাড়া ক্ষমতায় যাওয়া কঠিন। বিশেষ করে বৃহৎ প্রতিবেশী ভারতের সমর্থন খুবই জরুরি। দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর বিএনপির নীতিনির্ধারকদের মধ্যে এ ধারণা তীব্র হয়। কারণ শুধু ভারতের সমর্থনের কারণেই আওয়ামী লীগ যেনতেন একটি নির্বাচন করে ক্ষমতায় টিকে আছে। ভারতের ক্ষমতায় বিজেপির আগমনে বিএনপি খুশি হলেও বাস্তবে তা কোনো কাজে আসেনি। যদিও বিজেপি সরকারকে আস্থায় আনতে বিএনপি সব ধরনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। বিজেপির একাধিক নীতিনির্ধারকের সঙ্গে বিএনপির হাইকমান্ডের সরাসরি যোগাযোগ রয়েছে। সেই ভিত্তিতেই মোদি সরকারের সঙ্গে বিএনপির সম্পর্ক ঘনিষ্ঠ হচ্ছে বলে দাবি করেছেন দলটির একাধিক নীতিনির্ধারক।

২০১২ সালের শেষের দিকে বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া ভারত সফরে যান। সে সময় তিনি দেশটির রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি, তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং, কংগ্রেস ও বিজেপি নেতাদের সঙ্গে সৌহার্দপূর্ণ বৈঠক করেন। তবে ওই সফরে কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধীর সঙ্গে দেখা হয়নি। সফরকালে খালেদা জিয়া বিএনপির অবস্থান পরিষ্কার করে ভারতীয় কর্তাব্যক্তিদের প্রতিশ্র“তি দিয়েছিলেন বিএনপি সরকার গঠন করলে ভারতের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের মাটি কোনো সন্ত্রাসীদের ব্যবহার করতে দেবে না। কিন্তু ২০১৩ সালের ৪ মার্চ ভারতের রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি বাংলাদেশ সফরে এলে খালেদা জিয়া তার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেননি। ভারতীয় রাষ্ট্রপতির সঙ্গে পূর্বনির্ধারিত বৈঠক হরতাল ও নিরাপত্তাজনিত অজুহাতে বাতিল করেন তিনি। এটি ছিল বিএনপির একটি বড় ধরনের ভুল সিদ্ধান্ত। সেজন্য বিএনপির সঙ্গে দিল্লির সম্পর্কের টানাপোড়েন দেখা দেয়। ফলে দুঃসময়ে বিএনপি ভারত সরকারের কোনো সহানুভূতি পায়নি। এ ধরনের কোনো ভুল যাতে না হয় সেদিকে বিএনপি এখন সতর্ক।

বিএনপি মনে করে, ভারত অবশ্যই বাংলাদেশের ক্ষেত্রে তাদের নীতি বদলাতে বাধ্য হবে। কারণ একটি বিশেষ দলের জন্য ভারত তার স্বার্থ বিসর্জন দেবে না। ইতিমধ্যে ভারতের প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা দিয়েছেন বিশেষ কোনো দলের সঙ্গে নয়, বাংলাদেশের জনগণের সঙ্গে সম্পর্ক রাখতে চায় ভারত।

ভারতের আস্থা অর্জনে বিএনপির উদ্যোগ প্রসঙ্গে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমান বলেন, বিএনপি প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের সময় থেকেই ভারতের সঙ্গে বিএনপির সম্পর্ক মজবুত। রাজনৈতিক অঙ্গনে একটা ভুল বার্তা রয়েছে যে, ভারতের সঙ্গে বিএনপির সম্পর্ক ভালো নয়। মানুষের এ ভুল ভাঙাতেই ভারতের সঙ্গে বিএনপির সম্পর্ককে জোরদার করা প্রয়োজন।