শনিবার, ১১ই জুলাই, ২০২০ ইং

বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের বোবা কান্না যেনো দেখার কেউ নেই

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ২০, ২০২০
news-image

 

সালাহ উদ্দিন সোহেলঃ

বাংলাদেশে সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি অসংখ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে ব্যক্তি মালিকানাধিন। আরো রয়েছে প্রায় ৫০ হাজার কিন্টারগার্ডেন ও অসংখ্য হিফজ খানা ও নূরানি মাদ্রাসা। এসব প্রতিষ্ঠানে প্রায় ১২ লাখ শিক্ষক ও কর্মচারী কর্মরত ছিল।

কিন্তু বাংলাদেশে মহামারী করোনার প্রাদুরভাবের কারণে গত ১৭ মার্চ থেকে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। তার সাথে বন্ধ করে দেয়া হয়েছিলো সরকারি বেসরকারি সকল কর্মক্ষেত্র।

ধীরে ধীরে সরকারি বেসরকারি সকল কর্মক্ষেত্র চালু হলেও এখনো চালু হয়নি দেশের কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এতে মানবেতর জীবন যাপন করছে দেশের বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রায় ১২ লাখ শিক্ষক ও কর্মচারী।যেন দেখার কেউ নেই শিক্ষকতা নামক এ মহান পেশার ভদ্র মানুষ গুলোর বোবা কান্না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেকে বলেন,গত তিন মাস যাবত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও কোচিং বন্ধ থাকার কারণে পরিবার নিয়ে খুবই কষ্টে দিন যাপন করতেছে। তারা না পারছে অন্য কোন কাজ করতে, না পারছে কারো কাছে হাত পাততে ফলে বাড়ি ভাড়াসহ নানান ধরনের অসুবিধার মধ্যে রয়েছে তারা।

অন্য আরেক জনে জানায়, লজ্বার কথা কি বলবো ভাই তরকারী কেনারও টাকা পয়সা নাই কারো কাছে হাত পাততেও লজ্জা লাগে তাই ফজরের নামাজের পর অন্ধকার থাকতেই রাস্ততার পাশ থেকে শাক ও কচুর লতি তুলে আনি রান্নার জন্য যেন কেউ না দেখে। এ ভাবে গত ১ মাস খাবার চালাচ্ছি আমার সংসারে। সরকারি প্রনদোনা পাবার জন্য উপজেলায় ভোটার আইডির ফটোকপি দিয়েছি কিন্তু এখনো কোন খবর আসেনি। অন্যদিকে সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ও কর্মাচারীরা ঠিকই বেতন ভাতা পাচ্ছে,গরীব অসহায়রা সবাই কোন না কোনভাবে সহযোগীতা পাচ্ছে কিন্তু আমাদের এ ভদ্র পেশার কারণে মনে হচ্ছে কারো চোখ পড়ছেনা আমাদের দিকে।

এদিকে গত ১৫ ই জুন শিক্ষা মন্ত্রণালয় আবার ঘোষণা করেন দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আগামী ৬ই আগষ্ঠ পর্যন্ত বন্ধ রাখার। এতে আবার পায়ের নিচের মাটি সরে যায় এ মহান পেশার মানুষ গুলোর। সরকারি কোন সাহায্য সহযোগীতা তাদের না দেয়া হলে অনিশ্চিত হয়ে পরবে তাদের ভবিষ্যৎ জীবন।

আর পড়তে পারেন