বৃহস্পতিবার, ১৪ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

বৃহত্তর কুমিল্লার প্রাচীণ ও দৃষ্টিনন্দিত হাজীগঞ্জ ঐতিহাসিক বড় মসজিদ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ৩১, ২০১৯
news-image

মাসুদ হোসেন,চাঁদপুর:
চাঁদপুর জেলার হাজীগঞ্জ উপজেলার প্রাণকেন্দ্রে সু-উচ্চ মিনার বিশাল আয়তন নিয়ে গুরুত্বপ‚র্ণ ইসলামিক কেন্দ্র হিসেবে দাড়িয়ে আছে শতাব্দির প্রাচীণ হাজীগঞ্জ ঐতিহাসিক বড় মসজিদ। বৃহত্তর কুমিল্লাসহ দেশের বৃহত্তম মসজিদগুলোর মধ্যে একটি। এই মসজিদের স্থাপত্য শৈলী এবং অলংকর্ম সত্যি চমৎকার ও দৃষ্টি নন্দন।

ঐতিহাসিক তথ্যমতে, হযরত মকিম উদ্দিন (রঃ) নামে এক বুজুর্গ অলীয়ে কামেল ইসলাম প্রচারের উদ্দেশ্যে আরব ভূমি হতে স্ব-পরিবারে চাঁদপুরের বর্তমান হাজীগঞ্জ অঞ্চলে আসেন। এর বংশধর হাজী মনির উদ্দিন এর নামানুসারে হাজীগঞ্জ নামকরন করা হয়। এই বংশের প্র-পৌত্র হাজী আহমাদ আলী পাটওয়ারী ১৩৩৭ বঙ্গাব্দে চাঁদপুর-কুমিল্লা আঞ্চলিক মহাসড়কের দক্ষিণ পাশে হাজীগঞ্জ বাজারের মধ্যবর্তী স্থানে পাকা মসজিদটি প্রতিষ্ঠা করেন।

মসজিদটির কাজ সমাপ্তের পর ১৩৪৪ সনের ১০ অগ্রহায়ন প্রথম জুমাআর নামাজে উপস্থিত ছিলেন অভিভক্ত বাংলার তৎকালীন মূখ্যমন্ত্রী একে এম ফজলুল হক, হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী, নওয়াব মোশারফ হোসেন ও নওয়াব জাদা খাজা নসুরুল্লাহ। ঐ নামাজে ইমামতি করেন হযরত মাওলানা আবুল ফারাহ্ জৈনিপুরী। পরবর্তীকালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানিসহ বহু বিখ্যাত ব্যাক্তিদের আগমন ঘটেছে এই মসজিদে। জলস্মৃতি আছে হাজী আহমাদ আলী পাটওয়ারী জাহাজ ভাড়া করে কলকাতা থেকে লোহার ভিম ও মর্মর পাথর নিয়ে আসেন মসজিদ তৈরির জন্য। বর্তমানে এই মসজিদটির মোতয়াল্লির দায়িত্ব পালন করছেন হাজী আহমাদ আলী পাটওয়ারীর নাতী আলহাজ্ব ড. আলমগীর কবির পাটওয়ারী। এখানে মসজিদ মাদ্রাসা ও অফিস নিয়ে বিশাল কমপ্লেক্স ভবন যা হাজীগঞ্জ উপজেলার প্রাণকেন্দ্র হিসেবে ধরা হয়।

দুই তলা বিশিষ্ট বিশাল এই মসজিদে সাদা রংয়ের মাঝে নীল তারকা খচিত তিনটি গম্ভুজ ও একটি মিনার রয়েছে। মসজিদ প্রাঙ্গণে প্রবেশের রাজকীয় মূল ফটক এবং এর মনোরম কালেমা সহিত নকশায় পরিচয় দেয় মসজিদটির ঐতিহ্য জৌলুস ও বিশালত্বে। খিলানযুক্ত মেহরাব আকৃতির তারগুলো সুন্দর কারুকাজ ও নকশা দ্বারা অলংকিত করা হয়েছে। দুই পাশে চওড়া পিলারের উপর আল্লাহ্ ও কালেমা তায়েবাসহ চমৎকার আরবী কালিগ্রাফি এবং চারপাশে ঝুলন্ত শিকল, ফুল ও লতাপাতার উন্নত কারুকাজে সমৃদ্ধ। মূল ভবনের পাশেই একসাথে অনেক মুসল্লির অজু আদায়ের জন্য আছে বিশাল অজুখানা। নারীদের জন্য এই মসজিদে পৃথক অজু ও নামাজের স্থান রয়েছে অনেক যুগ আগে থেকেই। মসজিদের অবাক করা স্থাপত্য ও বৈশিষ্ঠ হলো পঞ্চাশের দশকে নির্মিত এই বিশাল মিনার যার ঊচ্চতা ১’শ আটাশি ফুট। সু-উচ্চ মিনারের উপর দিকে উঠার জন্য ভিতর থেকে মোড়ানো সিঁড়ি রয়েছে। এর চ‚ড়ায় ডিজাইনে রাখা হয়েছে ফালুসের মত একটি টপ ও রহুন গোলাকার ফ্লাটফম। যা রেলিং দিয়ে ঘেরা। এর সিঁড়ি দিয়ে উঠার পথে দর্শনার্থী ও মুসল্লিদের সুবিধার কথা ভেবে মিনারের বাহির থেকে ভেন্টিলেশনের সু ব্যবস্থা রয়েছে। অনেক দূর থেকে যেমনি সহজে পরিলক্ষিত হয় তেমনি এর আজান শুনা যায় বহু দ‚র দ‚রান্ত থেকে। প্রতিদিন এর চ‚ড়ার ৮টি মাইক দিয়ে ভেসে আসা আজান যেন চড়িয়ে পড়ে দিগন্ত পেড়িয়ে। প্রায় ২ একর প্রতিষ্ঠিত মসজিদের নীচ তলায়, দো-তলায় এবং বাহিরের উন্মোক্ত প্রাঙ্গণ মিলিয়ে মোট ২০ হাজার মুসল্লি একসঙ্গে জুমার নামাজ আদায় করতে পারেন। তবে জুমাতুল বিধায় আশে পাশের রাস্তা, ভবন মিলিয়ে এর সংখ্যা ছাড়িয়ে প্রায় ৫০ হাজারে পৌছায়। নামাজ কক্ষের সংযুক্ত মেহরাবটি ম‚ল্যবান মার্বেল পাথরের টাইলস ও সিরামিকের সুক্ষ কারুকাজে অসাধারণ শিল্প মন্ডিত। ভেতর দেয়ালের প্রথম অংশে সূরা ইয়াসিন ও সূরা জুমা আরবী অক্ষরে চক্রাকারে লেখা। খোলামেলা আলো বাতাসের সুবিধার পাশাপাশি মুসল্লিদের সুবিধার্থে মসজিদ জুড়ে রয়েছে অর্ধশহস্রাধিক বৈদ্যতিক পাখা।

মানবতার এ মহান সেবক ১৩৭৫ সনের ১৭ বৈশাখ সকাল ৮টা ৪৫ মিনিটে ইন্তেকাল করেন এবং মসজিদ সংলগ্ন কবরস্থানে তাঁকে দাফন করা হয়। যেখানে প্রতিষ্ঠাতা আহমাদ আলী পাটওয়ারীসহ বহু বিশিষ্ট ব্যাক্তির কবর আছে। আলিয়া ও কওমী মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিলো এই মসজিদ কমপ্লেক্সের অধিনে। মনোমুগ্ধকর বিশাল শৈলী আর বিশালত্বের জন্য বিখ্যাত শতাব্ধির প্রাচীন চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ বড় মসজিদ। মসজিদের মাঠের দক্ষিণ ও পূর্ব পাশে এস.এস এর রেলিং দ্বারা বাউন্ডারী। ভেতরে স্থান বিশেষে রয়েছে বিভিন্ন ফুল গাছের সমারোহ। রাতের দৃশ্যে এই মসজিদটির অপরুপ সৌন্দয্যে হাজীগঞ্জ বাজারের উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া চাঁদপুর-কুমিল্লা আঞ্চলিক মহাসড়কের উপর দিয়ে চলাচলকারী মানুষকে আকৃষ্ট করে তোলে। এটি শুধু মুসল্লিদের সমাগমের জায়গাই নয় বরং ইতিহাস ও ঐতিহ্যের প্রতিক। প্রাচীণ ও দৃষ্টি নন্দন এই মসজিদটিতে দেশের যেকোন স্থান থেকেই আসা যায়। নৌ, রেল ও সড়ক পথে চাঁদপুর থেকে বাস অথবা সিএনজি যোগে ৩৫-৪০ টাকা ভাড়া দিয়ে মসজিদের সামনেই নামা যাবে। এছাড়াও রেল যোগে আসতে হলে লাকসাম অথবা চাঁদপুর থেকে হাজীগঞ্জ রেল স্টেশনে নেমে অটো কিংবা রিকশায় করে আসা যায়।

আর পড়তে পারেন