বৃহস্পতিবার, ২৯শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

বৃষ্টির মৌসুমে যে ৩টি ফল নিয়মিত খাবেন

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ১৩, ২০১৮
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্ট :

আবহাওয়ার পরিবর্তন হয়েছে। প্রায়ই বৃষ্টি হয়। আর এই বৃষ্টির মৌসুমে বাজারে বেশ কিছু মৌসুমি ফল পাওয়া যায়। ফলগুলো তাদের নিজ নিজ স্বাদ ও পুষ্টিগুণে ভরপুর। এসবের মধ্যে রয়েছে আমড়া, পেয়ারা, লটকনসহ আরো কত কিছু। এবার তাহলে বাজারে পাওয়া এসব ফলের পুষ্টিগুণ সম্পর্কে কিছুটা জেনে নেওয়া যাক-

আমড়া
আমড়া সুস্বাদু ফলের মধ্যে একটি। এটি অনেক পুষ্টিকর ফল। যা কিনা দু’টি প্রজাতিতে চাষ হয়। দেশি আমড়া ও বিলাতি আমড়া। বিলাতি আমড়া দেশি আমড়ার মতো টক  হয় না। এ জাতের আমড়া টক-মিষ্টি স্বাদের। এতে শাঁস বেশি, আকারেও বড় হয়ে থাকে। বিলাতি আমড়া কাঁচা খাওয়া হয়। বিলাতি ও দেশি দুই’ধরনের আমড়া থেকেই সুস্বাদু আচার, চাটনি এবং জেলি তৈরি করা যায়। তরকারি হিসেবে রান্না করেও আমড়া খাওয়া যায়। মুখে রুচি বৃদ্ধিসহ অসংখ্য গুণাগুণ রয়েছে আমড়ার মাঝে। গোল্ডেন আপেলখ্যাত আমড়ার বৈজ্ঞানিক নাম Stondia Dulcis। এটি Anacardiaceae পরিবারভুক্ত।

প্রতি ১০০ গ্রাম খাদ্যোপযোগী আমড়ায় যেসব পুষ্টি উপাদান রয়েছে, তা হলো শর্করা ১৫ গ্রাম, আমিষ ১ দশমিক ১ গ্রাম, চর্বি শূন্য দশমিক ১ গ্রাম, ক্যালসিয়াম ৫৫ মিলিগ্রাম, আয়রন ৩ দশমিক ৯ মিলিগ্রাম, ক্যারোটিন ৮০০ মাইক্রোগ্রাম, ভিটামিন বি ১০ দশমিক ২৮ মিলিগ্রাম, ভিটামিন বি-২ শূন্য দশমিক শূন্য ৪ মিলিগ্রাম, ভিটামিন সি ৯২ মিলিগ্রাম, অন্য খনিজ পদার্থ শূন্য দশমিক ৬ গ্রাম ও খাদ্যশক্তি ৬৬ কিলোক্যালরি।

আমড়ায় প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন সি, আয়রন, ক্যালসিয়াম আর আঁশ আছে, যেগুলো শরীরের জন্য খুব দরকারি। হজমেও এটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। তাই তেল ও চর্বিযুক্ত খাদ্য খাওয়ার পর আমড়া খেয়ে নিতে পারেন; হজমে সহায়ক হবে। আমড়ায় প্রচুর ভিটামিন সি থাকায় এটি খেলে স্কার্ভি রোগ এড়ানো যায়। বিভিন্ন প্রকার ভাইরাল ইনফেকশনের বিরুদ্ধেও লড়তে পারে আমড়া। অসুস্থ ব্যক্তিদের মুখের স্বাদ ফিরিয়ে দিতেও অমড়া অনেক কার্যকর ভূমিকা পালন করে।

লটকন
নানান ফলের ভিড়ে লটকনের গুণের কথা আজও অনেকের কাছেই অজানা। লটকন একটি পুষ্টিকর ফল। এতে ভিটামিন ও খাদ্যশক্তিসহ নানারকম খনিজ উপাদান রয়েছে। লটকনে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি রয়েছে। দিনে দু/তিনটি লটকন খেলে শরীরের ভিটামিন সি’র চাহিদা পূরণ হয়।

এছাড়াও রয়েছে নানা রকম পুষ্টি উপাদান যা শরীরকে সুস্থ রাখে ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। রুচি বাড়াতে লটকন বেশ উপকারী। প্রতি ১০০ গ্রাম লটকনে খাদ্যশক্তি আছে ৯২ কিলোক্যালরি। প্রতি ১০০ গ্রাম লটকনে ভিটামিন সি আছে ১৭৮ মিলিগ্রাম, ক্যালসিয়াম ১৬৯ মিলিগ্রাম, শর্করা ১৩৭ মিলিগ্রাম, পটাশিয়াম ১৭৭ মিলিগ্রাম, ভিটামিন বি-১ ১৪.০৪ মিলিগ্রাম, ভিটামিন বি-২ শূন্য দশমিক ২০ মিলিগ্রাম; আমিষ আছে ১ দশমিক ৪২ গ্রাম, লৌহ ১০০ মিলিগ্রাম, চর্বি শূন্য দশমিক ৪৫ গ্রাম আর খনিজ পদার্থ ৯ গ্রাম।

এতে আছে ভিটামিন সি, থায়ামিন ও অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট। ফলে লটকন খেলে মুখে ঘা হয় না। শরীর সুস্থ রাখতেও ফলটি বিশেষ কাজ করে থাকে। এর জলীয় অংশ রক্তশূন্যতা কমায়, ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখে। এটি ত্বকের রুক্ষতা কমায়, শরীরে পানির সমতা ঠিক রাখে। লটকন খেলে বমির ভাব কমে, খাওয়ায় রুচি বাড়ে। মানসিক চাপ কমাতেও ফলটি বিশেষ কার্যকর। তৃষ্ণা নিবারণে লটকন অতুলনীয়।

লটকনের নানারকম গুণ থাকার পরও একবারে বেশি লটকন না খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন বিশেষজ্ঞ ডাক্তাররা। কেননা, এতে করে অনেক সময় ক্ষুধা মন্দা দেখা দেয়।

আর পড়তে পারেন