শুক্রবার, ৫ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং

বুড়িচং উপজেলা আ.লীগের নবকমিটি নিয়ে ক্ষোভ চরমে

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ২৯, ২০১৯
news-image

বিশেষ প্রতিবেদনঃ

বুড়িচং উপজেলা আওয়ামী লীগের সদ্য গঠিত কমিটি নিয়ে দলীয় নেতারাই তৃণমূলে নানা অভিযোগ তুলেছেন। চাপা ক্ষোভও বিরাজ করছে দলে। অভিযোগকারীরা বলছেন, কমিটি গঠনে দলীয় গঠনতন্ত্র মানা হয়নি। বিদ্রোহী উপজেলা চেয়ারম্যান আখলাক হায়দারকে শোকজ করা হয় চলতি বছরের ৮ সেপ্টেম্বর। দলীয় সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এমপির চিঠিতে উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর বিপক্ষে নির্বাচন ও নানা তৎপরতাসহ শৃঙ্খলাবিরোধী ও গঠনতন্ত্র পরিপন্থী কর্মকা-ে লিপ্ত থাকার অভিযোগ আনা হয় তার বিরুদ্ধে। ২১ কর্মদিবসের মধ্যে লিখিত জবাব দেওয়ার কথাও বলা হয়। সেই বিদ্রোহী নেতাকে সাধারণ সম্পাদক করে গত ৩০ সেপ্টেম্বর বুড়িচং উপজেলা আওয়ামী লীগের কমিটি ঘোষণা করেছেন স্থানীয় (কুমিল্লা-৫ বুড়িচং-ব্রাহ্মণপাড়া) সংসদ সদস্য ও আওয়ামী লীগ সভাপতিম-লীর সদস্য অ্যাডভোকেট আবদুল মতিন খসরু। কমিটির সভাপতি করা হয়েছে উপজেলা নির্বাচনে দলীয় পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থী অ্যাডভোকেট আবুল হাসেম খানকে। তিনি উপজেলা কমিটির আহ্বায়ক ছিলেন। আখলাক হায়দার ছিলেন অন্যতম যুগ্ম আহ্বায়ক।

নবগঠিত কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট রেজাউল করিম ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক জিএম জাকারিয়া অভিযোগ করেন, গঠনতন্ত্রে ৭১ সদস্যের কমিটির কথা বলা আছে, অথচ কমিটি করা হয়েছে ১০১ সদস্যের।

একাধিক অভিযোগকারী নেতা জানান, অনুপ্রবেশকারী বিএনপি নেতাদেরও ঠাঁই দেওয়া হয়েছে কমিটিতে। যুবদলের বাকশিমুল ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি মিজানুর রহমান লিটনকে নতুন কমিটির সহদপ্তর সম্পাদক করা হয়েছে। এ ছাড়া উপজেলা বিএনপির সাবেক সহসভাপতি আবদুস সালাম চেয়ারম্যানকে সহসভাপতি, বিএনপির সাবেক নেতা জহিরুল ইসলাম মাস্টারকে কোষাধ্যক্ষ, রফিক মাস্টার ও জালাল আহমেদকে সদস্য, উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি মশিউর রহমান খানকে সাংগঠনিক সম্পাদক করা হয়েছে। গঠনতন্ত্রে না থাকলেও দুজনকে সহসাংগঠনিক সম্পাদক করা হয়েছে। কমিটিতে উপজেলা চেয়ারম্যান আখলাক হায়দারের অনুসারীদের সংখ্যাই বেশি।

অভিযোগকারীরা আরও জানান, নৌকা প্রতীকের বিরুদ্ধে আখলাক হায়দার আনারস প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করেন। দলীয় নেতাকর্মীদের বাইরেও বিএনপি-ছাত্রদল ও জামায়াতের নেতাকর্মীরা সঙ্গত কারণেই তাকে সমর্থন করেন। আর তাদের খুশি করতেই এমন কমিটি করা হয়েছে। কমিটিতে জামায়াতের কামাল চেয়ারম্যান স্থান পেয়েছেন। অভিযোগ উঠেছে, কমিটি গঠন প্রক্রিয়ায় এমপি মতিন খসরুর পিএস মাহাবুবের ভূমিকা ছিল উল্লেখযোগ্য। মাহাবুব একসময় বিএনপির অনুসারী ছিলেন।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক ও নতুন কমিটির স্বাস্থ্যবিষয়ক সম্পাদক ডা. আবু মুসা ভূইয়া অভিযোগ করেন, কমিটি গঠনে সাংগঠনিক বিধি ও গঠনতন্ত্র মানা হয়নি। ওয়ার্ড-ইউনিয়ন কমিটি করে কাউন্সিলের মাধ্যমে উপজেলা কমিটি গঠনের কথা। তিনি আরও অভিযোগ করেন, ১৫ সেপ্টেম্বর দলীয় সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এক চিঠিতে ১০ ডিসেম্বরের মধ্যে উপজেলা সম্মেলন শেষ করার নির্দেশ দেন। ওই চিঠি পেয়ে হাতে দীর্ঘ সময় থাকার পরও তড়িঘড়ি কমিটি গঠনের কাজ শুরু করেন আবদুল মতিন খসরু। ২৭ সেপ্টেম্বর তিনি লিখিত চিঠি দিয়ে আহ্বায়ক কমিটির কার্যক্রম স্থগিত করেন। চিঠিতে ‘প্রধানমন্ত্রীর ধানমন্ডি কার্যালয়ে ২৩ সেপ্টেম্বর চট্টগ্রাম বিভাগীয় সভায় সারা দেশে আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কমিটির সব কার্যক্রম স্থগিত করা হয়েছে’ বলেও উল্লেখ করেন। পরে তা সঠিক নয় বলে কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক শামীম জানান। আমরা বিভিন্ন জাতীয় দৈনিকের সংবাদ থেকেও তা জানতে পেরেছি। একাদশ সংসদ নির্বাচনের মাসদুয়েক আগে সবাইকে খুশি করতে অ্যাডভোকেট আবুল হাসেম খানকে আহ্বায়ক ও ২০ জনকে যুগ্ম আহ্বায়ক করে উপজেলা কমিটি গঠন করা হয়েছিল বলেও জানান ডা. আবু মুসা ভূইয়া।

বিভিন্ন অভিযোগের জবাবে নতুন কমিটির সাধারণ সম্পাদক আখলাক হায়দার জানান, তাকে শোকজ নয়, চিঠি দেওয়া হয়েছিল। তিনি দু-তিন দিনের মধ্যেই জবাব দিয়েছেন। এতে কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব সন্তুষ্ট হয়েছে বলেও মনে করেন তিনি। উপজেলা নির্বাচনে তিনি নিজেকে বিদ্রোহী প্রার্থী বলতে নারাজ। তবে নৌকা প্রতীক না পেয়ে নির্বাচন করতে বাধ্য হয়েছিলেন বলেও জানান আখলাক।

নতুন উপজেলা সভাপতি আবুল হাসেম খান বলেন, কমিটির বিষয়ে আমাদের নেতা আবদুল মতিন খসরু ভালো বলতে পারবেন, তিনিই আমাদের অভিভাবক। তবে শোকজ হওয়া বিদ্রোহী প্রার্থীকে সাধারণ সম্পাদক করায় আমিও সন্তুষ্ট নই। নৌকা প্রতীক পেয়েও উপজেলা নির্বাচনে পরাজিত হওয়ার দুঃখবোধের কথা তিনি জানান।

বুড়িচং আওয়ামী লীগের আরেক শীর্ষ নেতা ও কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাত হোসেন স্বপন চেয়ারম্যান বলেন, আমাকে জানানোও হয়নি। তারিখ নির্ধারণ, কেন্দ্র ও জেলা নেতাদের আমন্ত্রণ জানানো, সাব-কমিটি গঠন, সম্মেলনের আয়োজনÑ এভাবে প্রক্রিয়া মেনে কমিটি গঠন করলে সবার অংশগ্রহণ নিশ্চিত হতো। এতে এত বিরোধিতা থাকত না। নেত্রী যাকে শোকজ করেছেন, তাকে নেত্রী ক্ষমা করে দিলে আর দোষ থাকে না। তবে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ প্রক্রিয়া চলাকালে কাউকে দায়িত্ব দেওয়ার যৌক্তিকতা আমাদের নেতা মতিন খসরু সাহেবই ভালো বলতে পারবেন।

কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল এমপি ও সাধারণ সম্পাদক সাবেক রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক এমপি। তারাই কমিটি অনুমোদন করেন। বুড়িচং উপজেলা কমিটি নিয়ে ক্ষোভ ও অভিযোগের বিষয়ে মুজিবুল হক এমপি বলেন, কমিটির ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন এমপি আবদুল মতিন খসরু। তিনি ওই এলাকার এমপি, সাবেক মন্ত্রী ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য। তিনিই প্রশ্নের উত্তর ভালোভাবে বলতে পারবেন।

আবদুল মতিন খসরু এমপি বলেন, গঠনতন্ত্রে ৭১ সদস্যের কথা বলা আছে। অনেক লোক, কমিটির সদস্য সংখ্যা দেড়শ হওয়া প্রয়োজন। তার পরও অনেক ত্যাগী নেতার জায়গা হয়নি। তিনি আরও বলেন, উপজেলা নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াত অংশ নেয়নি। স্বতন্ত্র প্রার্থী না থাকলে নির্বাচন না হয়ে সিলেকশন হতো। নির্বাচন ও গঠনতন্ত্রের স্বার্থে শোকজের বিষয়ে দলের কাছে আমরা তাই নমনীয়তা আশা করি। তিনি আরও বলেন, আমার জানামতে কমিটিতে কোনো অনুপ্রবেশকারী নেই, শনাক্ত হলে বের করে দেব।

আর পড়তে পারেন