রবিবার, ২৪শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বিশ্বজুড়ে বাংলাদেশি বিজ্ঞানীর ঐতিহাসিক সাফল্য

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ডিসেম্বর ৪, ২০২০
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ডক্টর আবদুল্লাহ আল মামুন। প্লাজমা ফিজিক্স নিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন জার্নালে তাঁর প্রকাশিত প্রবন্ধের সংখ্যা ৪১৭টি। বিশ্বজুড়ে এসব গবেষণাকর্ম অন্য বিজ্ঞানীদের গবেষণার সূত্র হিসেবে ব্যাপক জনপ্রিয়। ১৪ হাজারেরও বেশিবার তাঁর এসব গবেষণাকর্মের কথা অন্য বিজ্ঞানীদের গবেষণাকর্মে তথ্যসূত্র হিসেবে উদ্ধৃত হওয়ার ঘটনা থেকেই এর প্রমাণ মেলে। বিজ্ঞানী হিসেবে এটি অনন্য রেকর্ডই বটে। এরই মধ্যে প্লাজমা ফিজিক্সে অবদানের জন্য ড. আবদুল্লাহ আল মামুন পেয়েছেন জার্মান চ্যান্সেলর পুরস্কার।

নিয়মিত বিরতিতে একের পর এক অর্জনের ট্রফি জমা পড়েছে তাঁর ঝুলিতে। এসবই পুরনো খবর। সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ভিত্তিক গবেষকদের একটি জার্নাল বিশ্বের শীর্ষ ২ শতাংশ বিজ্ঞানীর একটি তালিকা প্রকাশ করেছে। তালিকায় বিজ্ঞানের বিভিন্ন শাখার প্রায় ১ লাখ ৫৯ হাজার ৬৮৩ জন বিজ্ঞানীর নাম রয়েছে। এ তালিকায় ঠাঁই হয়েছে বাংলাদেশের ২৫ জন বিজ্ঞানীর। এদের একজন হলেন ড. আবদুল্লাহ আল মামুন। তাঁর এই অর্জন শুধু জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নয়, বরং পুরো বাংলাদেশের অর্জন বলেই মনে করেন এই পদার্থবিজ্ঞানী। অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে ড. মামুন বলেন, ‘যে কোনো স্বীকৃতিই মানুষকে নতুন উদ্যমে কাজ করতে উৎসাহিত করে। শীর্ষ ২ শতাংশ বিজ্ঞানীর তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হওয়ার এই স্বীকৃতি আসলে দীর্ঘদিনের কাজের ফসল। এটি আমাকে দারুণভাবে অনুপ্রাণিত করেছে।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত থেকে একাধিকবার ‘বাংলাদেশ একাডেমি অব সায়েন্স’ গোল্ড মেডেল পেয়েছেন তিনি। পদার্থবিজ্ঞানে অবদানের জন্য ১৯৯৯ সালে নির্বাচিত হন বাংলাদেশ বিজ্ঞান একাডেমির ফেলো। ২০০৯ সালে পদার্থবিদ্যায় অবদানের জন্য জার্মানির আলেকজান্ডার ভন হোমবোল্ট ফাউন্ডেশন থেকে অর্জন করেন ফ্রেডরিক উইলিয়াম ‘ব্যাসেল রিসার্চ অ্যাওয়ার্ড’। ড. মামুন যুক্তরাজ্যের সেন্ট অ্যান্ড্রুস বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কমনওয়েলথ বৃত্তি নিয়ে পিএইচডি করেছেন এবং তিনি জার্মানির হোমবোল্ট পোস্টডক ফেলো। বাংলাদেশ প্রতিদিনের সঙ্গে আলাপচারিতায় গবেষণা ও জীবনের নানা দিক নিয়ে কথা হয় এই বিজ্ঞানীর।

গবেষণায় আগ্রহী হওয়ার পেছেনে কী কারণ ছিল- জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমার শৈশব কেটেছে মানিকগঞ্জের ধামরাইয়ে। মধ্যবিত্ত পরিবার। বাবা ছিলেন স্কুলশিক্ষক। বাবার অনেক স্বপ্ন ছিল আমার ডক্টরেট ডিগ্রি নিয়ে। ছাত্রাবস্থায়ই তিনি আমাকে ড. মামুন বলে ডাকতেন। আমি এত কিছু বুঝতাম না। কিন্তু যখন ইন্টারমিডিয়েট পাস করলাম, ওই সময় আমার এক বড় ভাই, যিনি বর্তমানে জাবির প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর, কমনওয়েলথ স্কলারশিপ নিয়ে বাইরে পড়তে গেলেন। ওটা আমাকে অনেক উদ্বুদ্ধ করেছিল। আমিও তখন স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছিলাম বাইরে পড়তে যাওয়ার। এরপর সুযোগ হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞানে পড়ার। কিন্তু জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য আমাকে মুগ্ধ করেছিল। গবেষণায় হাতেখড়ি হয় জাবির প্রয়াত অধ্যাপক ড. এম সলিমুল্লাহ স্যারের হাত ধরে। তিনি ছিলেন একজন নামকরা পদার্থবিজ্ঞানী।’ সব সময় শুধু গবেষণা নিয়েই ব্যস্ত থাকেন না ড. মামুন। সক্রিয় আছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক রাজনীতিতেও। বর্তমানে দায়িত্বে আছেন জাবি শিক্ষক সমিতির সভাপতি (দ্বিতীয়বারের মতো) ও ওয়াজেদ মিয়া বিজ্ঞান গবেষণা কেন্দ্রের পরিচালক পদে। এত কিছু একসঙ্গে সমন্বয় করেন কীভাবে- জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘শিক্ষকতা আমার পেশা। অন্যদিকে গবেষণা আমার নেশা। আমি আমার কাজ উপভোগ করি, যার কারণে এত কিছু সামলাতেও কোনো সমস্যা হয় না। অন্যদিকে গবেষকরা সাধারণত রাজনীতিতে সক্রিয় হন না। কিন্তু আমি শিক্ষক রাজনীতিতে এসেছি গুণগত মান পরিবর্তনের একটা চেষ্টা নিয়ে। আমার প্রকাশিত প্রবন্ধের সংখ্যা চার শতাধিক। আমার বিশ্বাস, ভালো পরিবেশ তৈরি করতে পারলে আরও বেশি গবেষক তৈরি করা সম্ভব। বিশ্ববিদ্যালয়কে এগিয়ে নিতে সম্মিলিত প্রচেষ্টার প্রয়োজন। আইনস্টাইনও কিন্তু একসময় রাজনীতিতে সক্রিয় হয়েছিলেন।’ শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘স্বপ্ন দেখতে হবে। স্বপ্ন বাস্তবায়নের পথও নিজেকেই খুঁজতে হবে। আমার অনেক ছাত্রই এখন দেশের বাইরের বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক। তারাও হোমবোল্ট ফেলোশিপ পেয়েছে। একজনের জীবনবৃত্তান্ত ইউরোপিয়ান জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে। এগুলো আমাকে আনন্দ দেয়। আমি বারবার আমার ছাত্রদের কাছে হেরে যেতে চাই। আমি মনে করি ছাত্রদের কাছে হেরে যেতে পারাটাই জিতে যাওয়া।’

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কী- জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘একটা হাসপাতাল করছি গ্রামের বাড়িতে। আমার সব সম্মাননা থেকে প্রাপ্ত অর্থ দিয়ে “ড. এ এ মামুন ট্রাস্ট” নামে একটি ট্রাস্ট করে যাওয়ার ইচ্ছা আছে, যেটা গবেষণা করতে ইচ্ছুক শিক্ষার্থীদের বৃত্তি দেবে। এই দেশ, এই দেশের মানুষের জন্য কিছু একটা করার স্বপ্ন দেখি। আমি কিন্তু ইউরোপ, আমেরিকা, জার্মানি, অস্ট্রেলিয়ায় থাকার সুযোগ পেয়েও যাইনি। আমি এ দেশেই মরতে চাই।’
সূত্র-বা:প্র

আর পড়তে পারেন