মঙ্গলবার, ১৯শে নভেম্বর, ২০১৯ ইং

বাংলায় কারো নাগরিকত্ব বাতিল করতে দিবো না—-মমতা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
সেপ্টেম্বর ১৪, ২০১৯
news-image

বাংলায় কখনও নাগরিক তালিকার অনুমতি দেব না: মমতা
কলকাতা ডেস্কঃ

ভারতের আসাম রাজ্যে এনআরসি (জাতীয় নাগরিক তালিকা) প্রকাশের মাধ্যমে ১৯ লাখ মানুষের নাগরিকত্ব বাতিল হবার পর, পশ্চিমবঙ্গে এনআরসি প্রকাশের জোর কথন শুরু হয়। তবে রাজ্যে এনআরসি হতে দেবেন না বলে ঘোষণা দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী ও তৃণমূল কংগ্রেস প্রধান মমতা বন্দোপাধ্যায়।

বৃহস্পতিবার (১২ সেপ্টেম্বর) তার নেতৃত্বে এনআরসি’র বিরোধী এক মিছিল বের করে রাজ্যের ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দল তৃণমূল কংগ্রেস। এই মিছিল শেষে মমতা বন্দোপাধ্যায় বলেন, তিনি এ রাজ্যে এমন কোনও পদক্ষেপ কেন্দ্রীয় সরকারকে তিনি নিতে দেবেন না। সংবাদ সংস্থা পিটিআই

সংস্থাটির সূত্রে জানা যায় এ প্রসঙ্গে মমতা বলেন, ‘‘আমরা বাংলায় কখনওই নাগরিক তালিকার অনুমতি দেব না। রাজ্যের নাগরিকদের ধর্ম ও জাতের ভিত্তিতে ভাগ করতে দেব না ওদের। আমরা আসমের নাগরিক তালিকাও গ্রহণ করব না। ওরা আসামের মানুষের কথা বলা বন্ধ করে দিয়েছে পুলিশ ও প্রশাসনের সাহায্যে। কিন্তু ওরা বাংলাকে চুপ করাতে পারবে না।”

এ সময় ক্ষমতাসীন বিজেপি সরকারের প্রতি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে মমতা বলেন, “আগুন নিয়ে খেলবেন না, পরিণাম ভাল হবে না।”

এর আগে গত ৩১ আগস্ট প্রকাশিত হয় আসমের সংশোধিত নাগরিক তালিকা। এ তালিকা থেকে বাদ পড়া ১৯ লাখ মানুষ তাদের নাগরিকত্বের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে প্রয়োজনে আদালতে আবেদন করতে পারবেন বলেও জানা। তবে সমস্ত আইনি প্রক্রিয়া শেষ না হওয়া পর্যন্ত ওই ১৯ লাখ মানুষকে ‘বিদেশি’ বলে ধরা হবে না বলে জানিয়েছে কেন্দ্র।

আসামের এনআরসি প্রকাশিত হবার পর গত সপ্তাহে রাজ্যটি সফরে যান ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহ। সেখানে এক অনুষ্ঠানে বক্তব্য প্রদানকালে তিনি ইঙ্গিত দেন কেবল আসম নয় গোটা দেশেই কোনও অবৈধ অনুপ্রবেশকারী থাকবে না। সরকারের পরিকল্পনা রয়েছে গোটা দেশরই নাগরিক তালিকা তৈরি করার।

দু’দিনের এক সফরে দেশটির উত্তর-পূর্বাঞ্চলে গিয়ে তিনি জানান, ‘‘সমস্ত দেশই নাগরিক তালিকা নিয়ে ভয় পাচ্ছে। আসম মনে করছে নাগরিক তালিকা ভুল। ছোট রাজ্যগুলি ভাবছে সেখানেও এমন হবে। আমি আপনাদের নিশ্চিত করছি, কেবল আসম নয়, আমরা চাই গোটা দেশই বেআইনি অনুপ্রবেশকারী মুক্ত হোক। আমরা একটা প্ল্যান রেডি করে ফেলেছি। আমরা সব রাজ্যেই আত্মবিশ্বাস ফিরিয়ে আনব।”

গত বৃহস্পতিবার বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ জানান, রাজ্যে এক কোটিরও বেশি বেআইনি অনুপ্রবেশকারীকে আশ্রয় দিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস।

সংবাদ সংস্থা পিটিআই প্রকাশিত এক প্রতিবেদনের তথ্য মতে, এ প্রসঙ্গে দিলীপ বলেন, ‘‘গত কয়েক বছরে প্রায় দু’কোটি রোহিঙ্গা ও বাংলাদেশি মুসলিম বেআইনি ভাবে রাজ্যে ঢুকে পড়েছে। তার মধ্যে এক কোটি দেশের অন্য প্রান্তে চলে গিয়েছে। বাকিরা তৃণমূলের নিরাপত্তায় এরাজ্যেই রয়ে গিয়েছে।”

তবে এই এনআরসি কি এখন ভারতের রাজনৈতিক এজেন্ডায় পরিণত হবে কিনা এবং এই ইস্যুতে দলগুলোর মাঝে বিদ্যমান বিরোধীতার জেরে নিরীহ সাধারণ মানুষ ভোগান্তির শিকার হতে যাচ্ছে কিনা এ নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন দেশটির রাজনৈতিক বিশিষ্টজনেরা।

আর পড়তে পারেন