শুক্রবার, ২২শে নভেম্বর, ২০১৯ ইং

বাঁশের সাঁকোই ভরসা সরাইলের লোপাড়া গ্রামের মানুষের

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৯
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্ট :

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার উত্তর প্রান্তে হাওর এলাকায় ৯ বছর আগে নির্মাণ করা হয় সরাইল-অরুয়াইল সড়ক। এটি ১৪ কিলোমিটার দীর্ঘ। সড়কটি নির্মাণ করায় উপজেলার কৃষিনির্ভর চুন্টা, পাকশিমুল ও অরুয়াইল ইউনিয়নের অন্তত ৩০টি গ্রামের বাসিন্দার জীবনযাত্রায় পরিবর্তন এসেছে। কিন্তু সরাইল-অরুয়াইল সড়কের সঙ্গে সংযুক্ত গ্রামীণ সড়কগুলোর বেশ কয়েকটি সড়কের খালে এখনো কোনো সেতু নির্মাণ হয়নি। এমনই একটি গ্রামীণ সড়ক হচ্ছে লোপাড়া সড়ক।

লোকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, চুন্টা ইউনিয়নের লোপাড়া গ্রামটি সরাইল-অরুয়াইল সড়কের পাশে অবস্থিত। লোপাড়া বাজার গড়ে উঠেছে এই সড়কের পাশে। এই সড়ক ও বাজারের পাশ দিয়ে বয়ে গেছে হাডিঙ্গা খাল। বাজার ও সড়কে যেতে হাডিঙ্গা খাল পারাপার হতে হয় লোপাড়া গ্রামের লোকজনকে। কিন্তু এখানে সেতু না থাকায় লোপাড়া গ্রামের মানুষের দুর্ভোগের সীমা নেই। সেই সঙ্গে তারা শিক্ষা, ব্যবসাসহ নানা দিক দিয়ে পিছিয়ে আছে। গ্রামবাসী বাধ্য হয়ে কয়েক বছর ধরে প্রতিবছর পাঁচ মাসের জন্য তৈরি করে আসছে প্রায় ৩০০ ফুট দীর্ঘ বাঁশের সাঁকো।

গত শুক্রবার সরেজমিন দেখা গেছে, লোপাড়া গ্রামে হাডিঙ্গা খালের ওপর গ্রামবাসী তৈরি করেছে বাঁশের সাঁকো। সাঁকো তৈরির উদ্যোক্তাদের একজন রাসেল মিয়া। তিনি লোপাড়া গ্রামের বাসিন্দা। তিনি বলেন, তিন-চার বছর ধরে তিনিসহ পাঁচজনের উদ্যোগে প্রায় এক লাখ টাকা ব্যয়ে এখানে এই বাঁশের সাঁকো তৈরি করে আসছেন। তাঁরা প্রতিবছর জ্যৈষ্ঠ মাসের প্রথম দিকে (মে মাসের মাঝামাঝিতে) বাঁশ, বেত, রশি ও গুনা দিয়ে সাঁকো তৈরি করে আসছেন। এই সাঁকো পারাপার হতে প্রত্যেকের কাছ থেকে পাঁচ টাকা করে তাঁরা আদায় করেন। সেই সাঁকো দিয়ে পারাপার চলে পাঁচ মাস। কার্তিক মাসের প্রথম দিকে (অক্টোবরের মাঝামাঝি) বর্ষার পানি শুকিয়ে গেলে সাঁকো ভেঙে ফেলতে হয়। তবে এই সাঁকো দিয়ে বর্ষাকালে রিকশা, ভ্যান, মোটরসাইকেল এমনকি বাইসাইকেল পারাপার করা যায় না। আবার শুষ্ক মৌসমেও সেতুর অভাবে গ্রামে কোনো যানবাহন চলাচল করতে পারে না। ফলে কৃষিনির্ভর এ এলাকার মানুষ কৃষিপণ্য নিয়ে বিপাকে পড়ে। প্রসূতি ও নবজাতকদের নিয়ে পারাপার হতে হিমশিম খেতে হয় গ্রামবাসীকে।

লোপাড়া গ্রামের বাসিন্দা রেনু মিয়া ও রানা মিয়া বলেন, ‘হাডিঙ্গা হালের (খাল) ওফর আমরা সেতু চাই। সেতু অইলে আমরা গাড়ি নিয়ে গ্রামে প্রবেশ করতে পারুম।’ চুন্টা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহজাহান মিয়া বলেন, এখানে একটি সেতু নির্মাণের চেষ্টা চলছে। এখানে দ্রুত সেতু নির্মাণ করা হবে।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘ওই সাঁকোর জায়গায় ২০ মিটার দীর্ঘ একটি গার্ডার সেতু নির্মাণের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। আশা করি খুব শিগগির সেতু নির্মাণ করা সম্ভব হবে।’

উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রফিক উদ্দিন ঠাকুর বলেন, লোপাড়া বাজারের পাশে ওই খালের ওপর খুব শিগগির একটি সেতু নির্মাণ করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

আর পড়তে পারেন