রবিবার, ২৯শে মার্চ, ২০২০ ইং

বরুড়ায় এক ব্যক্তির রহস্যজনক মৃত্যু, পরিবারের দাবি হত্যা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জানুয়ারি ৩, ২০২০
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ
কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার ১নং আগানগর ইউনিয়নের আগানগর মোল্লা বাড়িতে সিরাজুল ইসলামের ছেলে কবির হোসেন(৫৫) নামে এক গৃহকর্তাকে গলায় ফাঁস দিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়,২৯ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার সকালে ফজর নামাজ পড়তে গিয়ে নিজ বাড়ি থেকে নিখোঁজ হন কবির হোসেন। পরিবারের লোকজন অনেক খোঁজাখুজি করেও কবির হোসেনের কোন সন্ধান পাননি। নিখোঁজের ৪৮ ঘন্টা পর নিজ বাড়ির লাকড়ির ঘরে তার একমাত্র ছেলে বাবার ঝুঁলন্ত লাঁশ দেখতে পেয়ে চিৎকার দিয়ে উঠানে এসে পড়লে পরিবারের অন্যান্যরা এসে দেখে ফাঁসিতে ঝুঁলন্ত তার লাঁশ।পরে প্রতিবেশীরা এসে কবিরের ঝুঁলন্ত লাঁশের আলামত দেখে সবার মনে প্রশ্ন এটা আত্মহত্যা নয় এটা পরিকল্পিত হত্যা।

পারিবারিক সূত্রে জানায়,কবির হোসেন এইচএসসি পাশ করে স্থানীয় বিজয়পুর রেজিস্টার্ড প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ১০ বছর শিক্ষকতা করে।বিদ্যালয়টি সরকারি না হওয়ায় চাকরি ছেড়ে দিয়ে ২০০৮ সালে জীবিকার সন্ধানে সৌদিআরবে চলে যান। সেখানে মোটামুটি ভালোই টাকা উপার্জন করেছেন। বাড়িতে দালান কোটাসহ জমিয়েছেন অনেক টাকা। প্রবাসে যাবার পর প্রথমে ছোট ভাই প্রাথমিক শিক্ষক নাসিরের নিকট টাকা পাঠালেও মাঝে মাঝে সংসার খরচের জন্য নিজের স্ত্রী হাসিনার কাছে টাকা পাঠাতেন।পরে স্ত্রী’র ছোট ভাই (বরুড়া বাজারের ফার্মেসী ব্যবসায়ী) কাছে টাকা পাঠাতেন। ২০১৯ সালের প্রথম দিকে তিনি দেশে চলে আসেন। দেশে এসে একটি হোমিওপ্যাথিক ঔষধের দোকানের সহকারি হিসেবে কাজ করতেন।

তবে নিহত কবিরের এ মৃত্যু মেনে নিতে পারছেন না এলাকাবাসী। তাদের দাবী পারিবারিক জামেলা বা কলহের কারনে এ হত্যাকান্ড হতে পারে। তা না হলে নিহতের পরিবারের লোকজন এ হত্যার বিচার চায় না কেন ? এ ব্যাপারে নিহতের স্ত্রী,সন্তান ও মা চুপ কেন প্রশ্ন এলাকাবাসির ? এলাকাবাসী ও প্রতিবেশীরা এ হত্যাকান্ডের মূল রহস্য উদঘাটন চায়।

প্রায় শতাধিক এলাকাবাসির সাথে কথা হলে তারা বলেন,নিহত কবির  সৌদি আরব থাকাকালে শ্যালককে  অনেক টাকা পয়সা পাঠিয়েছে । হয়তো এই টাকা আত্মসাৎ করার জন্য কবিরকে হত্যা করতে পারে।

তারা আরো জানান,কবির খুব সহজ সরল ভালো মানুষ। তাকে এভাবে মৃত্যু সত্যিই খুব কষ্টের।

নিহতের ছোট ভাই প্রাথমিক শিক্ষক নাসির উদ্দিন বলেন,আমি আমার ভাইয়ের মৃত্যুটাকে স্বাভাবিক মৃত্যু মনে করি না।এটা নিশ্চিত পরিকল্পিত হত্যা ’’।

নিহত কবিরের মা বলেন,আমি হত্যার বিচার চাই না। যারা আমার ছেলেকে হত্যা করেছে তাদের বিচার আল্লাহ করবে”।

নিহতের স্ত্রী হাসিনা বেগম এ ব্যাপারে মামলা করতে উদাসিন। পরে স্থানীয়দের চাপে পড়ে মামলা করবে বলে জানায়।

স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের মহিলা মেম্বার ও প্রতিবেশী বলেন, আলামত দেখে স্পষ্ট বুঝা যাচ্ছে এটা পরিকল্পিত হত্যা। আমি সকলের পক্ষ থেকে মূল রহস্য উদঘাটনসহ দৃষ্টান্তমূলক বিচার চাই।

এ বিষয়ে বরুড়া থানা পুলিশ বলেন,এ ব্যাপারে বরুড়া থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা করা হয়েছে। লাঁশের ময়নাতদন্তের পর বিস্তারিত জানা যাবে এটা হত্যা নাকি আত্মহত্যা ।

আর পড়তে পারেন