বুধবার, ২৫শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

প্রেমিক-প্রেমিকা পরিচয় দিয়ে অভিনব কায়দায় ঘুরে ঘুরে ছিনতাই

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
নভেম্বর ১৮, ২০২০
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের কোতোয়ালী থানায় ধরা পড়েছে নগরীর বিভিন্ন স্থানের সংঘবদ্ধ ছিনতাইকারী চক্রের ১৩ সদস্য।

অভিযোগ পেয়ে মঙ্গলবার (১৭ নভেম্বর) রাতভর অভিযান চালিয়ে নগরীর বিভিন্ন স্থানের সংঘবদ্ধ ছিনতাইকারী চক্রের ১৩ সদস্যকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

তারা হলেন- রাকিবুল হাসান রাকিব (২৫), তার সহযোগী রুপা প্রকাশ নিপা (২০) ও মো. আলাউদ্দিন। অপর একটি গ্রপের মো. রুবেল (২৮) ও তার স্ত্রী ফারজানা বেগম (২৬), সহযোগী রাজু প্রকাশ সুমন (২৩), মো. আলামিন (২৮) ও আব্দুল নাইম (২০)।

এছাড়া একটি কিশোর ছিনতাইকারী চক্রের পাঁচ সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তারা হলো- শফিক (১৬), মো. দেলোয়ার (১৭), মো. উজ্জল (১৩), মো. ইসহাক (১৯) ও অপু প্রকাশ হৃদয় (১৪)। গ্রেফতারদের কাছ থেকে ১৪টি মোবাইল ফোন, ৩টি কাটার ব্লেড ও ৬টি ধারালো ছোড়া উদ্ধার করা হয়।

কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসিন জানান, গত ১৬ নভেম্বর সন্ধ্যায় নগরের গনি বেকারি মোড়ে ছিনতাইয়ের শিকার হন অরবিন্দু দত্ত নামে এক ব্যক্তি। এ সময় ছিনতাইকারীরা তাকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। গতকাল রাত ৮টার দিকে নগরের চকবাজারের সার্সন রোড দিয়ে যাওয়ার সময় মো. সেলিম নামে আরও এক ব্যক্তি ছিনতাইয়ের শিকার হন। এ ঘটনায়ও ভুক্তভোগীর বুক, পেট ও উরুতে ছোড়া দিয়ে মারাত্মক যখম করে ছিনতাইকারীরা।

মোহাম্মদ মহসিন বলেন, এ দুটি ঘটনায় কোতোয়ালি থানায় অভিযোগ করা হলে ঘটনা তদন্তে নামে পুলিশ। তথ্য-প্রযুক্তির সাহায্যে ছিনতাই হওয়া মোবাইল ফোন ক্রয়কারী শনাক্তের পর প্রথমে নগরের সিরাজউদ্দৌলা রোড থেকে রুবেল ও তার স্ত্রী ফারজানা বেগমকে এবং তাদের দলের আরও তিন সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়। পরে আন্দরকিল্লা রাজাপুকুর লেন থেকে পাঁচ কিশোর ছিনতাকারীকে গ্রেফতার করা হয়।

তিনি আরও বলেন, তাদের গ্রেফতারের পরও গতকাল রাত ৮টার দিকে নগরের চকবাজারের সার্সন রোডে ছিনতাইয়ের শিকার হন মো. সেলিম। এ ঘটনায় বিচলিত হয় পুলিশ। পরে আবারও তথ্যপ্রযুক্তির সাহায্যে রাত ৮টার দিকে নগরের স্টেশন রোড থেকে ছিনতাইকারী রাকিবুল হাসান রাকিব (২৫) ও তার সহযোগী রুপা ওরফে নিপাকে (২০) গ্রেফতার করা হয়।

সহকারী পুলিশ কমিশনার (কোতোয়ালি জোন) নোবেল চাকমা জানান, পুলিশি অভিযানে গ্রেফতার রাকিব ও নিপা দুজন বন্ধু। ছিনতাইয়ের সূত্রেই তারা একে অপরের সঙ্গে পরিচিত হয়ে এক বছর ধরে নগরের বিভিন্ন এলাকায় ছিনতাই করে বেড়াতেন।অভিনব কায়দায় প্রেমিক-প্রেমিকা পরিচয়ে সিএনজি অটোরিকশা ভাড়া নিতেন তারা। এরপর শহরের রাস্তায় রাস্তায় ঘুরে বিভিন্ন ব্যক্তিকে টার্গেট করতেন নিপা। সুবিধা মতো কাউকে পেলে তাকে টার্গেট করে তিনি সিএনজি থেকে নেমে পড়তেন। এরপর টার্গেট ব্যক্তিকে নানাভাবে প্রলুব্ধ করে আটকে রাখার চেষ্টা করতেন নিপা। এই ফাঁকে ভুক্তভোগীর কাছ থেকে মোবাইল ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করতেন রাকিব। ভুক্তভোগী মোবাইল ফোন দিতে না চাইলে ছুরিকাঘাত করে ছিনিয়ে নিতেন।

আর পড়তে পারেন