মঙ্গলবার, ১১ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

পাঁচ দিনেও শনাক্ত হয়নি কুমিল্লায় শিশু রিফাতের হত্যাকারী

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ২৩, ২০১৯
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ
পাঁচ দিন পার হলেও কুমিল্লা সদর উপজেলার চম্পকনগর সাতরা এলাকার তৃতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থী রিফাত হত্যাকারীদের শনাক্ত করতে পারেনি পুলিশ।

রিফাতের মা জেসমিন আক্তার বলেন, ‘তদন্তের স্বার্থে তার স্বামী আলমগীর হোসেন ও রিফাতের বর্তমান টিউটর বিউটিকে পুলিশ থানায় যেতে বলেছে। রিফাতের খুনের ঘটনা বর্ণনা করতে গিয়ে তিনি ডুকরে কেঁদে উঠেন। রিফাতের শিক্ষক একই এলাকার আবদুল কাদের শিপনের মেয়ে ভিক্টোরিয়া কলেজের বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থী তাহমিদা আক্তার রিংকু।

তার কাছে প্রাইভেট পড়তো রিফাত। ‘
তিনি বলেন, বাসায় দু’বার চুরির ঘটনা ঘটেছে। প্রথমবার চুরির ঘটনায় বাসা থেকে একটি ট্যাব চুরি হয়।

দ্বিতীয়বার পাঁচ ভরি স্বর্ণালঙ্কার। পরে এ ঘটনায় রিফাতের প্রাইভেট টিউটর তাহমিদা আক্তার রিংকু ও তার ভাই হৃদয়ের প্রতি সন্দেহ হলে তাদের জিজ্ঞাসা করা হয়। এতে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে দেখে নেবে বলে হুমকি দেয়। এ ঘটনার এক মাস পরে রিংকুকে বাদ দিয়ে রিফাতকে পাশের বাড়ির বিউটি আক্তারের কাছে প্রাইভেট পড়ানোর জন্য ঠিক করা হয়। হত্যাকাণ্ডের রাতেও বিউটির কাছে প্রাইভেট পড়ে রিফাত।

এমন অভিযোগ অস্বীকার করে রিফাতের সাবেক টিউটর তাহমিনা আক্তার রিংকু বলেন, চুরির ঘটনা নিয়ে রিফাতের মা আমাদেরকে যথেষ্ট অপমান করে। ঘরে এসে তল্লাশিও চালায়। আমার ভাই এমন কাজ করতে পারে না। রিফাতের মা আমাদেরকে কবিরাজ থেকে এনে পানি পড়া পান করান। আমাদের কিছুই হয়নি। পরে সৌদিতে অবস্থানরত রিফাতের বাবা আমার ভাই হৃদয়কে চোর বলে প্রতিবেশীদের কাছে জানায়। তাই আমি বলছি যদি আমাদেরকে চোর প্রমাণ করতে ব্যর্থ হন তাহলে আপনাদের সবার সামনে ক্ষমা চাইতে হবে। এতটুকুই বলি। আজ আমার ভাই পাঁচদিন ধরে জেলে। কোন অপরাধ না করেও বিনা কারণে জেল খাটছে।

এদিকে বর্তমান টিউটর বিউটির বক্তব্য নিয়েও সন্দেহ প্রকাশ করেন রিফাতের মা। তিনি বলেন, আমি এখন বিউটিকেও বিশ্বাস করতে পারছি না। রিফাত খুনের পরে সে একবার বলছে বাড়ির কাছে পর্যন্ত রিফাতকে পৌঁছে দিয়ে গেছে। আবার বলে মাঝ রাস্তা পর্যন্ত রিফাতকে এগিয়ে দিয়ে যায়। আল্লাহই ভালো জানেন কে বা কারা রিফাতকে হত্যা করেছে।

রিফাত খুনের ঘটনা তদন্তকারী কর্মকর্তা কুমিল্লা কোতয়ালী মডেল থানার পরিদর্শক (অপারেশন) এসএম আরিফুর রহমান বলেন, তদন্ত শেষ পর্যায়ে। আমরা খুনের রহস্য উন্মোচন করার কাছাকাছি আছি। আশা করি খুব দ্রুতই আসামিদের আটক করে আদালতে সোপর্দ করতে পারবো। উল্লেখ্য, গত ১৯ অক্টোবর নিজ বাড়ির পেছনের ডোবা থেকে স্কুলছাত্র রিফাতের রক্তাক্ত মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

আর পড়তে পারেন