মঙ্গলবার, ২৮শে জানুয়ারি, ২০২০ ইং

পরিবারের ডায়াবেটিস দূর করুন,উদ্ধেগ কমান

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
November 18, 2019
news-image

 

ডাঃ অংকুর দত্তঃ

ডায়াবেটিস বর্তমানে এক মহামারীর নাম।বাংলাদেশে এ মুহূর্তে প্রায় ৭১ লক্ষ মানুষ ডায়াবেটিস রোগে আক্রান্ত। ২০৪০ সালের মধ্যে তার পরিমান হবে দ্বিগুণ। প্রায় ৫০ % মানুষ জানেই না যে তারা ডায়াবেটিস রোগে আক্রান্ত। দেখা যায় কোন একটা বড় অসুখে আক্রান্ত হওয়ার পর তাদের ডায়াবেটিস ধরা পড়ে।  ডায়াবেটিস থাকলে নিয়ন্ত্রিত খাবারের পাশাপাশি, শারিরিক ব্যায়ামসহ নিয়মিত ঔষধ সেবন করতে হয়। তা না হলে,অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস একটা পরিবারের অনেক খরচ বাড়িয়ে দেয়। এমনকি ডায়াবেটিসের কারণে মৃত্যু হলে একটি পরিবারকে পথে নামতে বাধ্য করে। চিকিৎসা বিজ্ঞানের এক জনপ্রিয় স্লোগান হলো রোগপ্রতিরোধ চিকিৎসার চেয়েও উত্তম। ৭০%  ক্ষেত্রে ডায়াবেটিস প্রতিরোধের করা সম্ভব।

ডায়াবেটিস প্রতিরোধে করণীয়ঃ
মানুষের খাবার থেকে তৈরী হয় গ্লুকোজ যা রক্তের মাধ্যমে শরীরে বিভিন্ন অংশে পৌঁছে যায়।ডায়াবেটিস আক্রান্ত রোগীর শরীর তৈরি হওয়া গ্লুকোজ শরীরে সম্পুর্ণ্য ভাবে ব্যবহার হয় না।তখন গ্লুকোজ রক্তে জমা হয়ে স্বাভাবিকের চেয়ে বেশী রক্ত ঘন করে।এই ঘন রক্ত রক্তনালিতে রক্ত চলাচলে বাধা দেয়। তখন রক্ত অক্সিজেন টিস্যুতে পৌঁছাতে পারে না,তখন টিস্যুর মৃত্যু হয় আস্তে আস্তে অংগহানী ঘটায়, এমনকি অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস মৃত্যু পর্যন্ত ডেকে আনে। তবে সচেতনতা ডায়াবেটিস থেকে রক্ষা পেতে সাহায্য করে।গবেষণায় দেখা গেছে ৭০ %  ক্ষেত্রে  ডায়াবেটিস প্রতিরোধ করা সম্ভব।

প্রতিরোধের উপায়ঃ
ডায়াবেটিসের ঝুকি এড়াতে অতিরিক্ত ফ্যাট,ফাস্টফুড,চকলেট, কোমল পানীয় বন্ধ করে প্রচুর পরিমানে সবুজ শাকশব্জী ফলমুলের দিকে নজর দিতে হবে।কারণ সবুজ শাকসবজীতে প্রচুর পরিমানে এন্টিঅক্সিডেন্ট,ফাইবার থাকে যা ডায়াবেটিস প্রতিরোধ করে। প্রতিদিন কমপক্ষে  ৩০-৪০ মিনিট হাঁটার অভ্যাস করতে হবে সেই সাথে ধূমপান ও মদ্যপান পরিহার করতে হবে।

ডায়াবেটিস চিকিৎসা ;
চিকিৎসকের পরামর্শমতো নিয়মতান্ত্রিক খাদ্যাভাস,জীবনযাত্রা, ব্যায়াম ঔষধ নিয়মিত মানতে হবে।

নিয়ন্ত্রণ করুন এবিসিঃ
ডায়াবেটিস হলে মাথার ব্রেইন থেকে শুরু করে পা পর্যন্ত বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়। তাই এবিসি নিয়ন্ত্রন করতে হবে। এখানে এ হলো এইচ বি এওয়ানসি,বি হলো ব্লাডপ্রেসার, সি হলো অতিরিক্ত কোলেস্টেরল। ডায়াবেটিস রোগীর শর্করা নির্নয়ে খালি পেটে ও খাওয়া র ২ ঘন্টা পর রক্তের শর্করা নির্নয় করা হয়।কিন্তু গত ৩ মাসে রক্তে গ্লুকোজের পরিমান জানা যায় না। এইচ বি এওয়ানসি দিয়ে ৩ মাসের শর্করার গড় পরিমান জানা যায়। যদি এইচবিএওয়ানসি ৬.৫ কম হয় তার মানে হলো সংশ্লিষ্ট ব্যাক্তির ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে আছে। সর্বোপরি  আপনার সুস্থতা হোক আপনার পরিবারের জন্য অংগীকার।

ডাঃ অংকুর দত্তঃ
ডায়াবেটিস, ফ্যামিলি মেডিসিন ও প্রিভেনটিভ মেডিসিন বিশেষজ্ঞ
সিনিয়র লেকচারার, ইস্টার্ন মেডিকেল কলেজ কুমিল্লা।
চেম্বারঃ সিডি প্যাথ হাসপাতাল।

আর পড়তে পারেন