সোমবার, ১৭ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

নবীনগরে বিদ্যুৎ পৃষ্টে শ্রমিকের মৃত্যু

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ফেব্রুয়ারি ২২, ২০১৯
news-image

 

মো. দেলোয়ার হোসেন, নবীনগর (ব্রাহ্মণবাড়ীয়া) প্রতিনিধি
ব্রা‏হ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার বগডহর গ্রামের শওকত আলীর পুত্র শামিম (২৮) বৃহস্পতিবার বিদ্যুৎ পৃষ্ট হয়ে মারা গেছে।

সরজমিনে গিয়ে ও পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, পৌর শহরের টিনএনটি পাড়ায় আবুল খায়ের মিয়ার নতুন বাড়ি নির্মাণের শ্রমিক হিসেবে কাজ করত শামিম। প্রতিদিনের মতো আজও সে সকালে কর্মস্থলে গিয়ে নতুন ভবনের বাহিরের দিকে ওয়াল প্লাস্টার করতে গিয়ে হাতের নাগালে থাকা পল্লী বিদ্যুতের তারে পৃষ্ট হয়ে মাটিতে পরে যায়। স্থানীয়রা তাৎক্ষনিক গুরুতর আহত অবস্থায় শামিমকে উদ্ধার করে সকাল আনুমানিক সাড়ে ৯ টার দিকে নবীনগর সরকারি হাসপাতালে নিয়ে যায়।

ওই সময় হাসপাতালের জরুরী বিভাগে কোন ডাক্তার না থাকায়, এমনকি দীর্ঘ ১ ঘন্টা পরও ডাক্তার না আসায় এবং শামিমকে হাসপাতালের একটি কক্ষে তালা বদ্ধ করে রাখায় শামিমের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছেন শামিমের পরিবারের লোকজন। সঠিক সময়ে যদি হাসপাতালে ডাক্তার থাকতো আর সঠিক চিকিৎসা প্রদান করা হতো তাহলে হয়তো শামিম বেঁচে যেতো বলে মন্তব্য করেছেন শামিমের স্বজনরা। কেননা যারা শামিমকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে আসছে তারা বলছে হাসপাতালে আনার পরও শামিম জীবিত ছিল।

এক পর্যায়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও শামিমের পরিবারের লোকজনের উত্তেজনায় পরিবেশ ভারী হয়ে উঠলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ নবীনগর থানা বরাবর শামিমের মৃত্যু বিদুৎ পৃষ্টে হয়েছে মর্মে চিঠি দিলে নবীনগর থানা পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে।

অপর দিকে দেখা যায় পৌর শহরের টিএনটি পাড়ার যেই স্থানে আবুল খায়ের মিয়ার নতুন বাড়ি নির্মাণের কাজ চলছিল সেই ভবনের একেবারে কাছেই পল্লী বিদ্যুতের মেইন লাইনের একটি খুঁটি বিদ্যমান। মূলত: সকালে শামিম ওই বিদ্যুতের তারের পাশের ওয়াল প্লাষ্টার করার সময় একটি বাঁশের মাধ্যমে বিদ্যুতের তার সরাতে গিয়ে বিদ্যুৎ পৃষ্ট হয়। পল্লী বিদ্যুতের খুঁটি ও তারের পাশ ঘেঁষে বাড়ি নির্মাণের অনুমতি কিভাবে পৌরসভা অনুমোদন করছে তা এখন অনেকের মনে প্রশ্ন।

শামিমের মৃত্যুর ব্যাপারে কর্তব্যরত চিকিৎসক মোশরাত ফারখান্দা জেবিন বলেন, পরিবারের লোকজন মৃত শামিমকে চড়-থাপ্পর দিতে থাকলে আমরা শামিমের লাশকে একটি কক্ষে তালাবদ্ধ করে রাখি।

নবীনগর থানার পুলিশ পরিদর্শক রাজু আহমেদ বলেন, মৃত্যুর সঠিক কারণ জানার জন্য লাশ ময়নাতদন্তের জন্য জেলা মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে, অন্য কেউ দায়ী থাকলে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আর পড়তে পারেন