সোমবার, ১৭ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

নবীনগরে একের পর এক সরকারি খাল ভরাট!

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
সেপ্টেম্বর ২০, ২০১৯
news-image

 

মো. দেলোয়ার হোসেন, নবীনগরঃ
ব্রা‏‏হ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার টিয়ারা গ্রামে সরকারি খাল ভরাট করে বাড়ি নির্মাণের রেশ কাটতে না কাটতেই এবার পৌর এলাকার গড়ের পাড়ে সরকারি খাল ভরাটের পাঁয়তারা শুরু করেছে একটি মহল।

বিষয়টির প্রতিকার চেয়ে বুধবার নবীনগর পৌরসভার মেয়রের কাছে ভুক্তভোগীরা আবেদন দাখিল করেছেন।
প্রাপ্ত ওই আবেদন থেকে জানা যায়, নবীনগর পৌর এলাকার ৮ নম্বর ওয়ার্ডের গড়ের পাড় এলাকায় নবীনগর-কোম্পানীগঞ্জ সড়কের পূর্ব পাশে থাকা সরকারি খালটি মাটি দিয়ে ভরাটের উদ্যোগ নিয়েছে স্থানীয় একটি চক্র। এতে আশ পাশের কৃষি জমির মালিকেরা জলাবদ্ধতার আশংকায় উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন।

বৃহস্পতিবার ঘটনাস্থলে সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, গড়ের পাড় এলাকার মো. আক্তারুজ্জামান ওরফে বাচ্চু মিয়া নামের এক ব্যক্তি সরকারি ওই খালের পাশে থাকা তার জমিতে বাঁধ নির্মাণ করে সেখানে মাটি ফেলার উদ্যোগ নিয়েছেন। তবে জমি সংলগ্ন খালটিতে পানি চলাচলের সুবিধা রেখে খালের উপর একটি মোটা পাইপ লাগানো থাকতেও দেখা গেছে। এতে স্থানীয় জমির মালিকেরা খালটি ভরাট হয়ে যাওয়ার আশংকায় মেয়রের কাছে আবেদন করেছেন।

এ বিষয়ে স্থানীয় বাসিন্দা বিনোদ পাল ও শুক্কু মিয়া নামের দু’জন ভুক্তভোগী বলেন,‘নিজেদের জমি ভরাটের কথা বলে মূলত কৌশলে এখন খালটিই ভরাট করার পাঁয়তারা চলছে। সেজন্যই খালটিতে মোটা পাইপও লাগানো হয়েছে। তবে খালটি ভরাট হয়ে গেলে, পানি চলাচলে মারাত্মক ব্যাঘাত সৃষ্টি হয়ে পাশের কৃষি জমিগুলো পানির নীচে তলিয়ে গিয়ে অল্প বৃষ্টিতেই আশপাশে প্রচন্ড জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হবে।’

এ বিষয়ে মাটি ভরাটকারী জমির মালিক আক্তারুজ্জামান বাচ্চু মিয়া বলেন, ‘আমার জমিতে আমি মাটি ফেলবো, তাতে অন্যদের আপত্তি কেন? আমিতো খালে মাটি ফেলছিনা। এরপরও যদি খালে মাটি গিয়ে পড়ে, সেই মাটি সরিয়ে ফেলবো।’ তবে সরকারি খালে পাইপ লাগিয়েছেন কেন, এর কোন সদুত্তর তিনি দিতে পারেন নি।
নবীনগর পৌরসভার মেয়র মোহাম্মদ মাইনুদ্দিন মাঈনু আবেদনের প্রাপ্তি স্বীকার করে বৃহস্পতিবার দুপুরে ‘আজকের কুমিল্লাকে’ বলেন, ‘শিগগীরই আমি নিজে ঘটনাস্থল পরদির্শন করে এ বিষয়ে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবো।’

প্রসংগত, গত ১৪ সেপ্টেম্বর ‘নবীনগরে সরকারি খাল ভরাট করে বাড়ি নির্মাণ’ শিরোনামে একটি সচিত্র সংবাদ ‘আজকের কুমিল্লায়’ প্রকাশিত হয়।

আর পড়তে পারেন