মঙ্গলবার, ৭ই এপ্রিল, ২০২০ ইং

দেশের দ্বিতীয় যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধার ভাস্কর্য নির্মাণ হচ্ছে কুমিল্লায়

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ফেব্রুয়ারি ২, ২০২০
news-image

 

মাছুম কামাল:

একজন যুদ্ধাহত (পঙ্গু) মুক্তিযোদ্ধা এক হাতে ক্রাচে ভর দিয়ে অন্য হাতে রাইফেল (৩০৩) উঁচিয়ে দাঁড়িয়ে আছেন শ্লোগানের ভঙ্গিতে। রাইফেলের আগায় বাংলাদেশের পতাকা লাগানো। এমন আদলের একটি ভাস্কর্য নির্মিত হচ্ছে কুমিল্লায়।

কুমিল্লা নগরীর সিটি পার্কে শেষ বেলা স্ন্যাকসবারের সামনে প্রতিষ্ঠানটির স্বত্ত্বাধিকারী কামালের অর্থায়নে, কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের সহায়তায় যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরণে নির্মিত হচ্ছে এই ভাস্কর্যটি। প্রাথমিকভাবে এর নামকরণ করা হয়েছে ‘যুদ্ধাহত বীর’।

বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে মুক্তিযুদ্ধের প্রেক্ষাপটে অনেকগুলো ভাস্কর্য থাকলেও যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধার ভাস্কর্য নেই বললেও চলে। গেলো মাসের ১০ তারিখ থেকে শুরু হওয়া এই ভাস্কর্যের নির্মাণ কাজ খুব শীগগিরই শেষ হওয়ার কথা।

বর্তমানে দেশে একমাত্র যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধার ভাস্কর্যটি আছে একটি। যার নাম ‘সংশপ্তক’। সাভারের জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৯৯০ সালের ২৬ মার্চ নির্মিত হয়েছিল স্মারক ভাস্কর্যটি। বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে এক পায়ে ভর করে দাঁড়িয়ে আছে ভাস্কর্যটি। এর ভাস্কর হামিদুজ্জামান খান।

তবে, আকৃতি এবং ধরণের ভিন্নতায় কুমিল্লায় নির্মীয়মাণ ভাস্কর্যটি অদ্বিতীয় বলছেন কুমিল্লার সাধারণ ও শিল্পমনা জনগণ।

কথা হল পার্কে বেড়াতে আসা বিপ্লব সাহা নামের একজনের সঙ্গে, তিনি বলেন: এর আগে কুমিল্লায় অন্য আদলের আরও কয়েকটি ভাস্কর্য নির্মিত হলেও যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধার ভাস্কর্য এই প্রথম। এর কনসেপ্টটা ভাল লেগেছে খুব।

ভাস্কর্যটির শিল্পী মোঃ শাহীন বলেন, এই জায়গাটি প্রথমে খালিই পড়ে ছিল। মেয়র মহোদয়ের নির্দেশনায়, কামাল ভাইয়ের অর্থায়নে ভাস্কর্যটি নির্মাণ করা হচ্ছে। সম্পূর্ণ বিনা পারিশ্রমিকেই কাজটি তিনি করছেন বলে জানান শিল্পী। নির্মাণ শেষে ভাস্কর্যটি প্রাণবন্ত করে তোলার জন্য এর উপরে কোনো রঙ ব্যবহার না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

তিনি আরও বলেন, দেশে মুক্তিযোদ্ধাদের অনেক পূর্ণাঙ্গ ভাস্কর্য থাকলেও, যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরণে তেমন ভাস্কর্য নেই বললেই চলে। তাই আমি এই আইডিয়াটা নিয়েছি। আমি মনে করি ভাস্কর্য হতে হবে হিস্ট্রিকাল, যাতে সেটা মানুষের মনে দাগ কাটে।

এ বিষয়ে কথা হলে কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মনিরুল হক সাক্কু বলেন, ‘পার্কে শেষ বেলা নামক দোকানটির সামনে জায়গাটি খালিই পড়ে ছিল। সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে আমরা জায়গাটি ছেড়ে দিয়েছি। সাম্প্রতিক সময়ে পার্কের আধুনিকায়নের সাথে মিলিয়ে আমরা সব কিছুই উন্নত করার চেষ্টা করছি। ভাস্কর্যটি সেটিরই অংশ’।

আর পড়তে পারেন