শনিবার, ১৪ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং

দাউদকান্দির গ্রামীণ সড়কগুলো গিলে খাচ্ছে মৎস্য প্রকল্প

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
নভেম্বর ৮, ২০১৯
news-image

 

জাকির হোসেন হাজারীঃ

মাছের প্রকল্প গিলে খাচ্ছে কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার গ্রামীণ সড়কগুলো । মৎস্য প্রকল্প করার ক্ষেত্রে সড়কের পাশে আলাদা বেড়ি করার নিয়ম থাকলেও তা কেউ মানছে না এখানে। প্রকল্পের মালিকরা সরকারি রাস্তাগুলো বেড়ি হিসেবে ব্যবহার করলেও তাদের বিরুদ্ধে আইনগত কোন ব্যবস্থাও নেয়া হচ্ছে না।

সরেজমিনে দেখা যায়, সরকারি রাস্তা মৎস্য প্রকল্পের বেড়ি হিসেবে ব্যবহার ও কালভার্টের মুখ বন্ধ করে পানি নিষ্কাশন পথে প্রতিবন্ধকতা করে গড়ে উঠেছে এখানকার মৎস্য প্রকল্পগুলো। বর্ষা মৌসুমের পানি চলে গেলেও কৃত্রিমভাবে প্রকল্পের ভিতরে পানি আটকে রাখা হয়। ফলে সড়কের একপাশে পানি থাকায় আরেক পাশে না থাকায় পানি ছোক করায় সড়কগুলো আস্তে আস্তে দুর্বল হয়ে বড় বড় ফাটলের সৃষ্টি হয়েছে গ্রামীণ সড়কগুলো।

উপজেলার গৌরীপুর, জিংলাতুলি, সুন্দুলপুর, ইলিয়টগঞ্জ উত্তর ও ইলিয়টগঞ্জ দক্ষিন ইউনিয়নের বেশিরভাগ কাচা পাকা ও ইটের গ্রামীণ সড়ক হুমকির মুখে পড়েছে। গৌরীপুর বাজার- আমিরাবাদ সড়ক, আঙ্গাউড়া- স্বল্পপেন্নাই সড়ক, গৌরীপুর গ্রাম- জিংলাতুলী সড়কসহ অন্তত অর্ধশতাধিক কাচা পাকা সড়ক নষ্ট হয়ে গেছে। এসব সড়কে যান চলাচল বেশ ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। এরমধ্যে গৌরীপুর আমিরাবাদ সড়কটি পাকা করণ কাজ চলা অবস্থায় খালে ভেঙ্গে পড়েছে আর এ কারণে সীমাহীন দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে এলাকার মানুষকে।

দাউদকান্দি নাগরিক সমাজের উপজেলা আহবায়ক মতিন সৈকত বলেন, সরকারি রাস্তা মৎস্য প্রকল্পের বেড়ি হিসেবে ব্যবহার বন্ধ করা না গেলে একসময় যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়বে। তখন মানুষকে আরো ভোগান্তির শিকার হতে হবে।

উপজেলা প্রকৌশলী আহসান আলী জানান, প্রকল্প মালিকরা সড়ককে বেড়িবাঁধ হিসেবে ব্যবহার করে মাছ চাষের ফলে সড়ক ভেঙে যাচ্ছে। সড়ক থেকে ছয় ফুট দূরত্বে পৃথক বেড়ি নির্মাণ করে মাছ চাষের নিয়ম থাকলেও প্রকল্প মালিকরা তা মানছে না। কয়েকদিন আগে গৌরীপুর বাজার-আমিরাবাদ সড়কটি কার্পেটিং কাজ চলমান থাকায় অবস্থায় একপাশে দেবে গিয়েছে। কারণ হলো এক পাশে খাল থাকায় বর্ষার পানি শুন্য হয়ে গেছে, আরেক পাশে মৎস্য প্রকল্পের পানি আটকে রাখার কারনে এটা হয়েছে। এজন্য এখানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘোষিত “আমার গ্রাম আমার শহর”আমরা বলবো এলজিইডি তার মূল কারিগড়” মৎস্য প্রকল্পের ভাঙ্গনে দৃশ্যমান হচ্ছে না। আর এই ভয়ে ঠিকাদাররাও টেন্ডারে অংশ নিতে চায় না।

উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা সাবিনা ইয়াসমিন চৌধুরী বলেন, প্রকল্পের চাষিরা তাদের ব্যাক্তিগত জমিতে মাছ চাষ করে, এখানে আমার কিছু করার নেই। আমার কাজ হলো মৎস্য উন্নয়ন করা, রাস্তাঘাট কি হলো সেটা আমার কাজ না।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. কামরুল ইসলাম খান বলেন, উপজেলা পরিষদের মাসিক সভায় এমপি মহোদয়ের উপস্থিতিতে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়েছে। এখন থেকে নতুন কোন প্রজেক্ট চালু করার আগে প্রোটেকশন বাঁধ না করলে আমরা ওই প্রকল্পের অনুমোদন দিবো না।

আর পড়তে পারেন