রবিবার, ৫ই জুলাই, ২০২০ ইং

দাউদকান্দিতে দ্রব্যমূল্য স্থিতিশীল রাখতে কঠোর অবস্থানে উপজেলা প্রশাসন

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ২৩, ২০২০
news-image

 

জাকির হোসেন হাজারী:
কুমিল্লার দাউদকান্দিতে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ সচেতনতা ও নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি রোধে কঠোর অবস্থান গ্রহন করেছেন উপজেলা প্রশাসন। খবর পাওয়া মাত্র ঘটনাস্থলে পৌছে বিদেশ ফেরত প্রবাসীদের হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশ দেন। সেই সঙ্গে পুলিশ প্রশাসন, রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনগুলোও তৎপর রয়েছে। জনসচেতনতায় লিফলেট বিতরণসহ মাক্স, হাত ধোয়ার সামগ্রী বিতরণ অব্যাহত রেখেছেন তারা। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ইউনিয়ন ভিত্তিক চারটি জোন ভাগ করে গঠন করেছেন মেডিকেল টিম ।

উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় গত কয়েকদিনে আগত প্রবাসীদের কড়া নজরদারীতে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। কেউ যেন হোম কোয়ারেন্টাইন নির্দেশনা ভঙ্গ না করে সে লক্ষে উপজেলা নির্বাহী অফিসার, উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তাসহ ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করছেন। পাশাপাশি ইউনিয়নে দায়িত্ব প্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা ও ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানরাও প্রতিটি ইউনিয়নে তদারকি করছেন। রবিবার (২২ মার্চ) রাত ৮ টা পর্যন্ত ৬৪ জন হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছে বলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার অফিস সূত্র জানায়। হোম কোয়ারেন্টাইন ভঙ্গ করায় জিংলাতুলি ইউনিয়নের গোপচর গ্রামের নুরুদ্দিন নামে কাতার প্রবাসীকে জরিমানা এবং জিংলাতুলি গ্রামের বায়তুল মামুর মসজিদের ঈমামকে দায়িত্ব থেকে আব্যাহতি দেয়ার কথা নিশ্চিত করেছেন ইউপি চেয়ারম্যান আলমগীর হোসেন। করোনা ভাইরাস আংতকের গুজব ছড়িয়ে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্য স্থিতিশীল রাখতেও কঠোর অবস্থানে প্রশাসন।

গত শনিবার এবং রবিবারে উপজেলার গৌরীপুর, সুন্দুলপুর, দাউদকান্দি পৌরসদর, ইলিয়টগঞ্জ ও গোয়ালমারী বাজার পরিদর্শন করে অতিরিক্ত মূল্য রাখায় বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্টানকে এবং প্রয়োজনের অধিক পন্য ক্রয় করায় একজন ক্রেতাকে ভ্রাম্মমান আদালতে নগদ জরিমানা আদায় করা হয়।

করোনা ভাইরাস সচেতনতায় বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন(বাফুফে) এর সহ-সভাপতি বাদল রায় শুক্রবার ও শনিবার ইলিয়টগঞ্জ উত্তর ও দক্ষিন ইউনিয়নে সচেতনতা লিফলেট, মাক্স ও হাত ধোয়ার সামগ্রী বিতরণ করেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ কামরুল ইসলাম খান বলেন, করোনা ভাইরাস নিয়ে আতংকিত না হয়ে সচেতনতা বাড়ানোর জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাইকিং ও লিফলেট বিতরন এবং নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্য স্থিতিশীল রাখতে বাজার মনিটরিং অব্যাহত রেখেছি। উপজেলায় ৬৪ জন প্রবাসীকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে।

আর পড়তে পারেন