সোমবার, ২০শে জানুয়ারি, ২০২০ ইং

দাউদকান্দিতে কিশোরী ধর্ষণের বিষয়টি আড়ালের চেষ্টা! আ’লীগ নেতার ফেসবুকে স্ট্যাটাস

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জানুয়ারি ১৩, ২০২০
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ
কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলায় একটি ধর্ষণের ঘটনা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে তোলপাড় চলছে। ঘটনাকে ইঙ্গিত করে ভিকটিম বা অভিযুক্ত ব্যাক্তির নাম পরিচয় গোপন রেখে ফেসবুক স্ট্যাটাস দেয়ায় সাধারণ মানুষের মধ্যে জন্ম দিয়েছে কৌতুহলের ।

কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার ইলিয়টগঞ্জ উত্তর ইউনিয়নের হাসেরখোলা গ্রামে কিশোরী ধর্ষিত হয়েছে মর্মে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে।

ওই ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মাসুদ আলম ভূইয়া গত ১১ জানুয়ারী তার ফেসবুক পেইজে লিখেন- “ইলিয়টগঞ্জ উত্তর ইউনিয়নের হাসেরখোলা গ্রামে একটি বোকা মেয়েকে ধর্ষণ করা হয়েছে. শুনতে পেলাম অনেক পত্রিকার সাংবাদিক ভাইয়েরা এবং এস আই এমদাদ সাহেবও ঘটনা পরিদর্শনে গিয়ে ছিলেন। মেয়ের বাবার সাথে কথা বলেছেন এবং আমার সাথে বলেছেন ঘটনা সত্য। তাহলে কোন কারণে ধর্ষণকারী আড়াল হতে চলেছে। কারা এটা নিয়ে ছিনিমিনি করছে, তার রহস্য কি? আমি মাসুদ আলম ভূইয়া, সাধারণ সম্পাদক অনুরোধ করছি মাননীয় উপজেলা চেয়ারম্যান সাহেবকে এবং দাউদকান্দি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে সুষ্ঠু তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য। ”

একইদিন বিকাল সাড়ে তিনটায় আরেকটি লেখা দেন যা এরকম-“ প্রানপ্রিয় সাংবাদিক বন্ধুগণ, ইলিয়টগঞ্জ উত্তর ইউনিয়নের হাসেরখোলা গ্রামের ধর্ষণ হওয়া মেয়েটিকে নিয়ে একটি মেয়ে কুমিল্লা গিয়েছে, ঘটনা আড়াল করার জন্য। (আজ) মেয়ে ও বাবাকে হুমকি ধমকি দিচ্ছে বলে দূরে  সরিয়ে রেখেছে। নিমক হারামরা জানেনা একটি অন্যায় দশটি অন্যায়ের জন্ম দেয়। এদের কারণে সমাজে অন্যায় অত্যাচার, অবিচার, মাদক অপকর্ম চলছে। এভাবে আর চলতে দেয়া যায়না। সাংবাদিক বন্ধুগণ এবং প্রশাসনকে অনুরোধ করছি, ধর্ষণ হওয়া মেয়েটি ও তার বাবাকে লুকিয়ে না রেখে জনসম্মুখে জিঞ্জাসাবাদ করা হউক।

এরপর থেকে ওই এলাকায় কোন না কোন মিডিয়াকর্মী আসে বলে গ্রামের লোকজন জানান। গ্রামের পাশে চারপাড়া বাজারের এক ব্যবসায়ী নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, লোকটি অনেক পয়সা ওয়ালা, এর আগেও এমন আরেকটি ঘটনা গ্রাম্য শালিসের মাধ্যমে মীমাংসা করেছে। এখন যে ঘটনার কথা শুনছি সেটিও ধামাচাপা হয়ে গেছে কারন মেয়ে এবং তার বাবাকে কেউ খুজে পাচ্ছে না। কোন ঘটনা না ঘটলে তাদেরকে লুকিয়ে রেখেছে কেনো?

দাউদকান্দি মডেল থানার এস আই এমদাদ হোসেন প্রথমে ওই গ্রামে যাওয়ার কথা অস্বীকার করেন।  অন্য অফিসারের নাম না বলে আপনার নাম কেন বলে এমন প্রশ্নে বলেন, ওই এলাকা প্রায় সময়ই কোন না কোন আসামী বা মাদক কারবারীর খুঁজে যাওয়া হয়। আর এলাকায় কোন ঘটনা ঘটলে চেয়ারম্যান থেকে শুরু করে অনেকেই আমাকে ফোন দেয়। আমাকে কেউ  একজন এ ধরনের (ধর্ষন) ঘটনা জানানোর পরে আমি বলেছি, মেয়ে অথবা মেয়ের মা বাবা কেউ একজন ওসি স্যারের কাছে আসতে হবে এবং লিখিত অভিযোগ করতে হবে। থানা যদি আমাকে দায়িত্ব দেয় তখন আমি যাব। এলাকার লোকজন বলছে ঘটনা সত্য, কিন্তু থানায় অভিযোগ না দিলে আমরা কি করতে পারবো?

আর পড়তে পারেন